kalerkantho

শনিবার । ১৫ মাঘ ১৪২৮। ২৯ জানুয়ারি ২০২২। ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট-ন্যাশনাল আই কেয়ারে নতুন দুই পরিচালক নিয়োগের দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৭ ডিসেম্বর, ২০২১ ১৯:৩৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট-ন্যাশনাল আই কেয়ারে নতুন দুই পরিচালক নিয়োগের দাবি

জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও ন্যাশনাল আই কেয়ার প্রজেক্টের পরিচালক পদে অধ্যাপক ডা. গোলাম মোস্তফার বিরুদ্ধে বড়ধরণের অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ করেছেন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের নেতা তিনজন বিশেষজ্ঞ চক্ষু চিকিৎসক। তারা অবিলম্বে পরিচালক গোলাম মোস্তফার চুক্তি বাতিল এবং দুটি সংস্থায় পৃথক দুইজন পরিচালক নিয়োগের দাবি জানিয়েছেন।

আজ মঙ্গলবার বিকেলে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানান তারা। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন প্রফেসর ডা. এনামুর রহমান চৌধুরী।

বিজ্ঞাপন

এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রফেসর ডা. গোলাম ফারুক ও প্রফেসর ডা. চন্দ্র শেখর মজুমদার।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, নানান অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ থাকা সত্ত্বেও ডা. গোলাম মোস্তফাকে তৃতীয় মেয়াদে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। অথচ অবসরে যাওয়া অনেক সিনিয়র চিকিৎসকের স্বপ্ন ছিল জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের পরিচালক হওয়া। কিন্তু একই ব্যক্তিকে বারবার নিয়োগ দেওয়ায় সেই স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছে এবং অনেক সিনিয়র অধ্যাপক বঞ্চিত হয়েছেন। যেখানে সরকার চুক্তিভিত্তিক নিয়োগকে নিরুৎসাহিত করছে, সেখানে উপযুক্ত অধ্যাপক থাকা সত্ত্বেও তাকে প্রথমে দুই বছর করে এবং সর্বশেষ চুক্তির মেয়াদ ৩ বছর বাড়ানোর ঘটনা সকলকে স্তম্ভিত করেছে।

পরিচালক গোলাম মোস্তফা ন্যাশনাল আই কেয়ার প্রজেক্টের অর্থ নানান কৌশলে আত্মসাত করছেন বলে অভিযোগ করে সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, চক্ষু চিকিৎসা শিবিরের প্রচার ও সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য বাজেটের অতিরিক্ত ব্যয় করা হয়। ভুয়া ভাউচার দিয়ে সেই অর্থ আত্মসাত করা হয়। প্রকল্পের গাড়িগুলো স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে অপেক্ষাকৃত জুনিয়র কর্মকর্তাদের জন্য বরাদ্দ করা হয়।

এ সময় আরো বলা হয়, ন্যাশনাল আই কেয়ার কর্মপরিকল্পনার অধীনে চালুকৃত ভিশন সেন্টারগুলোতে লোকবল নিশ্চিত না করেই যন্ত্রপাতি ক্রয় করা হয়েছে। সেখানে বড়ধরণের দুর্নীতি হয়েছে। বাজার দরের থেকে বেশী মূল্যে তা ক্রয় করা হয়েছে। এমনকি বিভিন্ন কম্পানির কাছ থেকে উৎকোচ গ্রহণের অভিযোগ রয়েছে। তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যাবে বলে দাবি করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বিএনপি সমর্থিত সংগঠন ড্যাবের সদস্য গোলাম মোস্তফা দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সদস্যদের সদস্যদের উপর নিপীড়ন ও হয়রানি শুরু করেন। বিশেষজ্ঞদের ঢাকার বাইরে বদলি করা হয়। বিএনপি-জামাতপন্থী চিকিৎসকদের ঢাকায় পুনর্বাসন করা হয়।

এমতাবস্থায় বর্তমান সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী জনগণের চক্ষু চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও ন্যাশনাল আই কেয়ার প্রজেক্টকে আলাদা করে সেখানে দুইজন নতুন পরিচালক নিয়োগ দেওয়া জরুরি বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিমত ব্যক্ত করা হয়। একইসঙ্গে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানানো হয়।



সাতদিনের সেরা