kalerkantho

বুধবার । ১২ মাঘ ১৪২৮। ২৬ জানুয়ারি ২০২২। ২২ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

উন্মুক্ত স্থলবন্দর ঝুঁকি বাড়াচ্ছে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৫ ডিসেম্বর, ২০২১ ০৪:২১ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



উন্মুক্ত স্থলবন্দর ঝুঁকি বাড়াচ্ছে

ভারতের কর্ণাটকে দুই ব্যক্তির দেহে করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন শনাক্তের পর বাংলাদেশে ঝুঁকি বাড়ছে। এরই মধ্যে সরকার আফ্রিকার দেশ থেকে প্রবাসীদের দেশে আসায় নিরুৎসাহ করতে নানা পদক্ষেপ নিয়েছে। তবে ভারতের সঙ্গে স্থলপথে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ এখনো যথাযথভাবে কার্যকর হয়নি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া, যশোরের বেনাপোল, লালমনিরহাটের বুড়িমারী ও পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিতে বলা হলেও সেগুলোতে তেমন তৎপরতা দেখা যায়নি।

বিজ্ঞাপন

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভারত থেকে আসা যাত্রীদের বিষয়ে কোয়ারেন্টিনসহ এখনই আরো কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে।

অবশ্য সরকারের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট আইইডিসিআরের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. আলমগীর কালের কণ্ঠকে বলেন, ওমিক্রন সংক্রমণ এড়াতে স্থল, নৌ ও বিমানবন্দরে আগের সতর্কতামূলক ব্যবস্থা পুরোপুরি কার্যকর করতে বলা হয়েছে।

গতকাল দেশের বিভিন্ন স্থলবন্দরে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বেশির ভাগ বন্দরে পর্যাপ্ত সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেই। বাংলাবান্ধা বন্দরে প্রতিদিন ভারত, নেপাল ও ভুটান থেকে ২৫০ থেকে ৩০০ পণ্যবাহী গাড়ি ঢুকছে। চালকরা মাস্ক ছাড়া বন্দর এলাকায় অবাধে ঘুরছেন। ফলে এই বন্দর দিয়ে বাংলাদেশে ওমিক্রন সংক্রমণের ঝুঁকি রয়েছে।

ইমিগ্রেশন পুলিশের দেওয়া তথ্য মতে, বর্তমানে বাংলাবান্ধা ইমিগ্রেশন দিয়ে দৈনিক ৩০ থেকে ৩৫ জন মানুষ যাতায়াত করেন। ৭২ ঘণ্টার মধ্যে করোনা নেগেটিভ সনদধারীদের ভারত থেকে দেশে ঢুকতে দেওয়ার নির্দেশ রয়েছে।

স্থানীয় আমিনুর ইসলাম বলেন, ‘বন্দর কর্তৃপক্ষের তেমন তৎপরতা নেই। বিশেষ করে ভারতীয় গাড়িচালকরা বন্দর এলাকায় বাংলাদেশিদের সঙ্গে মিশে যাচ্ছেন। ওমিক্রন সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারকে এখনই পদক্ষেপ নিতে হবে। ’

বাংলাবান্ধা ইমিগ্রেশন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা বন্দর এলাকায় সতর্কতা জারি করেছি। যাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে। ’

পঞ্চগড় সিভিল সার্জন ফজলুর রহমান বলেন, ‘ভারত থেকে যাঁরা বাংলাদেশে আসছেন তাঁদের এখন ৪৮ ঘণ্টার আরটিপিসিআর ল্যাবের করোনা পরীক্ষার সনদ নেওয়া হচ্ছে। গাড়িচালকদের বিষয়ে শিগগিরই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। ’

বেনাপোলে অবাধ যাতায়াত

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে গত সোমবার রাতে সতর্কতার নির্দেশ দিয়ে চিঠি পাঠানো হলেও ভারত থেকে আসা পণ্যবাহী ট্রাকে জীবাণুনাশক স্প্রে করা হচ্ছে না। ট্রাকচালক ও হেলপারদের মাস্ক ছাড়া ঘুরতে দেখা গেছে।

তবে বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. রাজু আহমেদ বলেন, ভারত থেকে আসা পণ্যবাহী ট্রাকে জীবাণুনাশক স্পে করার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ইউসুফ আলী বলেন, ভারত থেকে আসা যাত্রীদর ডিজিটাল স্ক্যানিং মেশিনে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে। যাত্রীদের বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে রাখা হবে।

সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দরে আগের মতোই ঢিলেঢালা করোনা সতর্কতা মেনে চলছে বন্দরের কার্যক্রম। পাসপোর্টধারী যাত্রী ও ভারত থেকে পণ্য নিয়ে আসা ট্রাকচালক ও সহকারীদের ওপর নজরদারি কম লক্ষ করা গেছে।

ইমিগ্রেশনের ওসি জাহাঙ্গীর হুসাইন খান বলেন, ওমিক্রন নিয়ে ভোমরা ইমিগ্রেশন ও স্থলবন্দরে বাড়তি সতর্কতা জারি করা হয়নি। তবে ওমিক্রন সতর্কতা মাথায় নিয়েই চলছে সব দাপ্তরিক কাজ। গত এক সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে ৮০ জন পাসপোর্টধারী যাতায়াত করেছেন।

ভোমরা কাস্টমস ক্লিয়ারিং অ্যান্ড ফরোয়ার্ডিং এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের আহ্বায়ক শেখ এজাজ আহমেদ স্বপন বলেন, ওমিক্রন নিয়ে এখনো সরকারের কাছ থেকে কোনো নির্দেশনা আসেনি।

‘ওমিক্রন’ সন্দেহ হলে তাৎক্ষণিক পরীক্ষা : আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে গতকাল সাড়ে ৪টা নাগাদ প্রায় ৮০ জন ভারত থেকে আসেন। আরো প্রায় ১০ থেকে ১৫ জন আসার অপেক্ষায় ছিলেন। কর্তৃপক্ষ বলছে, যাত্রীদের বিষয়ে বাড়তি সতর্কতা নেওয়া হচ্ছে। ওমিক্রনের উপসর্গ আছে সন্দেহ হলে তাৎক্ষণিক পরীক্ষার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। আখাউড়া স্থলবন্দর ইমিগ্রেশন পুলিশের ইনচার্জ মো. আব্দুল হামিদ বলেন, নির্দেশনা অনুযায়ী যাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষাসহ বিভিন্ন ব্যবস্থা নিচ্ছেন তাঁরা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন মো. একরাম উল্লাহ বলেন, প্রয়োজন হলে কোয়ারেন্টিনের নির্দেশনা বাস্তবায়ন করা হবে।

বুড়িমারীতে বাড়তি সতকর্তা : লালমনিরহাটের পাটগ্রামের বুড়িমারী স্থলবন্দরে ভারত থেকে আসা সব যাত্রীর ৪৮ ঘণ্টা মেয়াদি করোনাভাইরাস নেগেটিভ সনদ দেখা হচ্ছে। ভারতীয় ট্রাকচালকদের বাইরে বের হতে হলে ৪৮ ঘণ্টা আগের করোনাভাইরাস নেগেটিভ সনদ দেখাতে বলা হচ্ছে।

গতকাল বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত এই বন্দর দিয়ে ভারত থেকে একজন যাত্রী আসেন। তাঁকে হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে।

বুড়িমারী স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের সহকারী পরিচালক (এডি) রুহুল আমিন বলেন, ‘বুড়িমারী বন্দরে ওমিক্রন নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে সরকারের কাছ থেকে কোনো নির্দেশনা পাইনি। তবু ভারতীয় ট্রাকচালকদের তাপমাত্রা মাপা হচ্ছে। ’

[প্রতিবেদন তৈরিতে তথ্য দিয়ে সহায়তা করেছেন  ব্রাহ্মণবাড়িয়া, পঞ্চগড়, সাতক্ষীরা, পাটগ্রাম (লালমনিরহাট) ও বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি)



সাতদিনের সেরা