kalerkantho

বুধবার । ১২ মাঘ ১৪২৮। ২৬ জানুয়ারি ২০২২। ২২ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল নিয়ে কটূক্তি: মেয়র আব্বাসের বিরুদ্ধে ১০দিনের রিমান্ড আবেদন

অনলাইন ডেস্ক   

২ ডিসেম্বর, ২০২১ ১৩:২০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল নিয়ে কটূক্তি: মেয়র আব্বাসের বিরুদ্ধে ১০দিনের রিমান্ড আবেদন

বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল নিয়ে কটূক্তি করায় রাজশাহীর কাটাখালীর মেয়র আব্বাসের বিরুদ্ধে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেছে পুলিশ। সিএমএম আদালতের কাছে পুলিশের এ আবেদনের পর তাকে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে ৮টায় মেয়র আব্বাসকে আদালতে তোলা হয়। রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের (আরএমপি) অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (সদর) মো. গোলাম রুহুল কুদ্দুস এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, বুধবার (১ ডিসেম্বর) সকালে রাজধানীর রাজমণি ইসা খাঁ নামের একটি আবাসিক হোটেল থেকে তাকে আটক করে র্যাব। পরে ওই দিন (১ ডিসেম্বর) রাতেই র্যাবের কাছ থেকে আব্বাসকে গ্রহণ করে বোয়ালিয়া থানা পুলিশ। এরপর তাকে নিয়ে রাজশাহীর উদ্দেশে রওনা দেওয়া হয়। সকাল ৭টা ৪০ মিনিটে তাকে নিয়ে রাজশাহী পৌঁছায় পুলিশ। রাজশাহীতে আসার পর তাকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করা হয়।

তিনি জানান, আদালতে সোপর্দের সময়ই তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানানো হয়। তবে এর শুনানি অনুষ্ঠিত হয়নি। রোববার (৫ ডিসেম্বর) রিমান্ড আবেদনের শুনানি হওয়ার কথা আছে। শুনানি না হওয়ায় আদালতের নির্দেশে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে গতকাল বুধবার ঈশা খাঁ হোটেল থেকে আব্বাস আলীকে আটকের পর র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ‘বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল স্থাপন নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগে আব্বাস আলীর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। গত ২৩ নভেম্বর থেকে তিনি আত্মগোপনে গিয়েছিলেন। মঙ্গলবার আমরা জানতে পারি, তিনি এই হোটেলে অবস্থান করছেন। ’

তিনি আরো বলেন, ‘আব্বাস আলী দেশত্যাগের পরিকল্পনা করছেন বলে আমাদের কাছে তথ্য ছিল। তাঁর সঙ্গে আমরা পাসপোর্ট পেয়েছি। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি বিষয়টি স্বীকারও করেছেন। ’

এর আগে ২২ নভেম্বর সামাজিক মাধ্যমে দুটি অডিও ক্লিপ ছড়িয়ে পড়লে আলোচনায় আসেন আব্বাস আলী। ওই অডিও ক্লিপে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল নিয়ে আপত্তিকর কথা বলতে শোনা যায় তাঁকে। এরই মধ্যে তাঁর বিরুদ্ধে তিনটি মামলা করা হয়েছে। রাজশাহী সিটি করপোরেশনের তিন কাউন্সিলর ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে নগরের তিন থানায় পৃথক তিনটি মামলা করেন।

পরে ২৬ নভেম্বর ফেসবুক লাইভে এসে আব্বাস দাবি করেন, অডিওতে ওই সব কথা তিনি বলেননি। ভুল হয়েছে স্বীকার করে তিনি সবার কাছে সহানুভূতি চান।

আব্বাস আলী কাটাখালী পৌর আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক। ২০১৫ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়ে তিনি প্রথমবার মেয়র নির্বাচিত হন। ২০২০ সালের ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে তিনি নৌকা প্রতীক নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হন।  



সাতদিনের সেরা