kalerkantho

বুধবার । ১২ মাঘ ১৪২৮। ২৬ জানুয়ারি ২০২২। ২২ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

আজ সড়কের এক পাশে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করার সিদ্ধান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২ ডিসেম্বর, ২০২১ ০৮:৪১ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



আজ সড়কের এক পাশে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করার সিদ্ধান্ত

রাজধানীর রামপুরায় বাসচাপায় ছাত্র নিহত হওয়ার ঘটনায় দায়ীদের বিচার ও নিরাপদ সড়কসহ ১১ দফা দাবিতে গতকালও বিক্ষোভ করে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। এইচএসসি পরীক্ষার জন্য আজ কর্মসূচি শিথিল হলেও সড়কের পাশে মানববন্ধন চলবে বলে জানিয়েছে শিক্ষার্থীরা। ছবি : শেখ হাসান

সারা দেশে গণপরিবহনে অর্ধেক ভাড়াসহ (হাফ পাস) নিরাপদ সড়ক আন্দোলন সীমিত পরিসরে চালিয়ে যাবে শিক্ষার্থীরা। আজ বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া উচ্চ মাধ্যমিক (এইচএসসি) পরীক্ষার কারণে তারা অবরোধ না করে সড়কের এক পাশে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

গতকাল বুধবার আন্দোলনের ২১তম দিনে রাজধানীর রামপুরায় সড়ক অবরোধ করে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি থেকে এ ঘোষণা দেওয়া হয়। আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা এ সময় সারা দেশে হাফ পাস চালুসহ ১১ দফা দাবি তুলে ধরে।

বিজ্ঞাপন

 

বাসচাপায় এসএসসির ফলপ্রত্যাশী মাঈনুদ্দিনের মৃত্যুর বিচারের দাবিতে রামপুরায় শুরু হওয়া আন্দোলনে গতকাল রাজধানীর অন্য এলাকার শিক্ষার্থীরাও যোগ দেয়। অবরোধের কারণে প্রগতি সরণিসহ রাজধানীর পূর্বাংশের রাস্তাগুলোতে দেখা দেয় যানজট। এ সময় গণপরিবহনসংকটে ভোগান্তিতে পড়ে সাধারণ মানুষ। তবে গতকাল রাজধানীর অন্য এলাকার যানবাহন চলাচল অনেকটা স্বাভাবিক ছিল। শান্তিনগর মোড়, মতিঝিলের শাপলা চত্বর, যাত্রাবাড়ী ও ধানমণ্ডির সায়েন্স ল্যাব এলাকার সড়কেও বিক্ষোভ-স্লোগানে সোচ্চার থাকে শিক্ষার্থীরা। তবে আন্দোলনকারীরা যানবাহন চলাচল বন্ধ করেনি।

এদিকে গতকাল দুপুরে সাভারের পাকিজা এলাকায় পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় আল্লামা আতিফ নামের এক শিশু শিক্ষার্থী আহত হয়। এ ঘটনায় মহাসড়ক আটকে বিক্ষোভ করে স্থানীয় শিক্ষার্থীরা। তারা ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে নেমে নিরাপদ সড়কের দাবিতে স্লোগান দেয়। এ ছাড়া চট্টগ্রামে প্রেস ক্লাবের সামনের সড়ক এবং চেরাগি পাহাড় মোড় এলাকায় গতকাল গণপরিবহনে অর্ধেক ভাড়ার দাবিতে মিছিল-সমাবেশ করেছে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। একই কর্মসূচি পালিত হয়েছে রাজবাড়ী ও গাজীপুরের কালিয়াকৈরেও।

২০১৮ সালে রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার পর নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন শুরু করেছিল শিক্ষার্থীরা। সম্প্রতি জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার পরিপ্রেক্ষিতে পরিবহনের ভাড়া বাড়ানো হলে ১১ নভেম্বর থেকে হাফ পাসের দাবিতে রাস্তায় নামে শিক্ষার্থীরা। এরই মধ্যে ২৪ নভেম্বর ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়ির চাপায় নটর ডেম কলেজের ছাত্র নাঈম হাসান নিহত হলে আন্দোলনকারীরা নিরাপদ সড়কসহ ৯ দফা দাবি ঘোষণা করে। গত মঙ্গলবার ঢাকায় শর্ত সাপেক্ষে হাফ পাস চালুর ঘোষণা এলেও আন্দোলন থেকে সরেননি তারা। গতকাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক অনুষ্ঠানে বিচারের আশ্বাস দিয়ে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় মনোযোগী হওয়ার আহ্বান জানান।

গতকাল রামপুরা এলাকায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, সকাল সোয়া ১১টা থেকে শিক্ষার্থীরা রামপুরা ব্রিজ থেকে আবুল হোটেল পর্যন্ত সড়কে জড়ো হতে থাকে। রামপুরা ব্রিজ এলাকায় একরামুন্নেছা স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ইম্পিরিয়াল কলেজ, ন্যাশনাল আইডিয়াল কলেজ, আলাতুন্নেছা স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ক্যামব্রিয়ান কলেজ, গুলশান কমার্স কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা আন্দোলন কর্মসূচিতে অংশ নেয়। কয়েক দিন ধানমণ্ডির ২৭ নম্বরে অংশ নেওয়া আন্দোলনকারীদের একটি দলও তাদের সঙ্গে যোগ দেয়। এ সময় অ্যাম্বুল্যান্স ও জরুরি কাজে ব্যবহার করা যানবাহন ছাড়া কোনো গাড়িই চলতে পারেনি। এতে সড়কের উভয় পাশে যানজট দেখা দেয়। যানবাহনের কাগজপত্র ঠিক আছে কি না, তা যাচাই করে দেখছিল শিক্ষার্থীরা।

ক্যামব্রিয়ান স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী ও আন্দোলনের সমন্বয়কারী সাজ্জাদ হোসেন বলেন, দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চলবে।

দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে শিক্ষার্থীরা ১১ দফা দাবি তুলে ধরে। এর মধ্যে রয়েছে নাঈম ও মাঈনুদ্দিন হত্যার বিচার, গুলিস্তান ও রামপুরা ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায় ফুট ওভারব্রিজ নির্মাণ, সারা দেশের সব গণপরিবহনে শিক্ষার্থীদের অর্ধেক ভাড়ার সরকারি প্রজ্ঞাপন জারি, ফিটনেস ও লাইসেন্সবিহীন গাড়ি, চালক নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি উল্লেখযোগ্য।

দুপুর ২টার দিকে অবরোধ তুলে নেওয়ার ঘোষণা দিয়ে শিক্ষার্থীরা বলে, এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে তারা আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে কর্মসূচি শুরু করবে। সড়কের এক পাশে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি চলাকালে যান চলাচলে যেন বিঘ্ন না ঘটে, সেটি তারা নিশ্চিত করবে। নিরাপদ সড়ক ও অর্ধেক ভাড়ার দাবিতে আন্দোলনের যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল্লাহ মেহেদী বলেন, ‘আলাদাভাবে ১১ দফা ঘোষণা করা হয়েছে। তবে আমাদের আসল দাবি ৯ দফা, যেটি আমরা সব জায়গায় দিয়েছি। এসব দাবির ব্যাপারে আমরা অনড়। ’

অন্য এলাকার চিত্র : সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সকাল সাড়ে ১১টার দিকে মিছিল নিয়ে শান্তিনগর মোড়ে উড়ালসেতুর নিচে অবস্থান নেয় একদল শিক্ষার্থী। কাকরাইলের উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল অ্যান্ড কলেজ, সবুজবাগ সরকারি কলেজ, খিলগাঁও আইডিয়াল কলেজসহ আশপাশের কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা এতে অংশ নেয়। ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’ স্লোগানে তারা নিরাপদ সড়ক ও হাফ পাসের দাবি তুলে ধরে। এ সময় তারা রাস্তা বন্ধ করেনি। রমনা থানার এসআই মাসুম হোসেন বলেন, শিক্ষার্থীরা শান্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচি পালন করে চলে গেছে।

দুপুর ১টায় মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ উচ্চ বিদ্যালয়, মতিঝিল সেন্ট্রালের শিক্ষার্থীরা শাপলা চত্বরে অবস্থান নিয়ে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়। সেখানে তারা বিক্ষোভ দেখায় এবং নিরাপদ সড়কের দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকে।



সাতদিনের সেরা