kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৩০ নভেম্বর ২০২১। ২৪ রবিউস সানি ১৪৪৩

খালেদাকে বেশি ভোগাচ্ছে লিভার, হৃদরোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি    

২১ নভেম্বর, ২০২১ ১০:১৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



খালেদাকে বেশি ভোগাচ্ছে লিভার, হৃদরোগ

রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া হার্ট, কিডনি, লিভার ও ডায়াবেটিস জটিলতায় বেশি ভুগছেন। এ ছাড়া তাঁর রক্তে হিমোগ্লোবিনের স্বল্পতা রয়েছে। পাশাপাশি রক্তচাপও ওঠানামা করছে।

খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসক এ জেড এম জাহিদ হোসেন জানিয়েছেন, হৃদরোগ, ডায়াবেটিস ও লিভারের অসুস্থতা খালেদা জিয়াকে বেশি ভোগাচ্ছে।

খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় আইনের বাইরে সরকার কিছু করবে না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক এমপি। পাশাপাশি তিনি এটাও বলেছেন, তাঁর চিকিৎসার জন্য বিএনপি যদি বিদেশ থেকে চিকিৎসক আনতে চায়, সেটা পারবে। মন্ত্রী গতকাল দুপুরে আখাউড়া আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন।

গতকাল শনিবার কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিএনপির গণ-অনশন কর্মসূচিতে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘খালেদা জিয়া জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে রয়েছেন। আমরা ডাক্তারদের সঙ্গে কথা বলেছি বারবার, বিদেশে ডাক্তারদের সঙ্গে কথা বলেছি। তাঁরা বলছেন, তাঁর চিকিৎসা বাংলাদেশে অসম্ভব। যেসব জটিলতা আছে তা বিদেশে আরো উন্নত চিকিৎসাকেন্দ্রে নেওয়া না হলে তাঁকে সুস্থ করা যাবে না।’

হাসপাতালে অবস্থান করছেন বেগম জিয়ার ছোট ছেলে প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান সিথি এবং ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক এ জেড এম জাহিদ হোসেন। গতকাল সকালের দিকে খালেদা জিয়াকে দেখতে যান গণ-অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক রেজা কিবরিয়া ও সদস্যসচিব সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর। তাঁরা খালেদা জিয়াকে দেখতে না পারলেও ডা. এ জেড এম জাহিদের কাছ থেকে তাঁর স্বাস্থ্যের খোঁজখবর নেন।

৭৬ বছর বয়সী খালেদা জিয়া বহু বছর ধরে আর্থ্রাইটিস, ডায়াবেটিস, লিভার, কিডনি, ফুসফুস, চোখের সমস্যাসহ নানা জটিলতায় ভুগছেন। গত এপ্রিলে তিনি করোনায় আক্রান্ত হন। করোনা থেকে সেরে উঠলেও নানা জটিলতায় তাঁকে দুই দফা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। খালেদা জিয়াকে বিদেশে উন্নত চিকিৎসার সুযোগ দিতে এরই মধ্যে তাঁর পরিবার, নিজ দল বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকে সরকারের কাছে দাবি জানানো হয়েছে। তাতে এখনো সরকারের পক্ষ থেকে সাড়া মেলেনি।



সাতদিনের সেরা