kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৩০ নভেম্বর ২০২১। ২৪ রবিউস সানি ১৪৪৩

সাবেক ডেপুটি স্পিকার শওকত আলীর স্মরণসভা

স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রতিটি পর্যায়ে অনন্য ভূমিকা রেখেছেন তিনি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১৫ নভেম্বর, ২০২১ ০১:২৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রতিটি পর্যায়ে অনন্য ভূমিকা রেখেছেন তিনি

জাতীয় সংসদের সাবেক ডেপুটি স্পিকার কর্নেল (অব.) শওকত আলী ছিলেন সৎ, সাহসী মানুষ। একজন মিলিটারি অফিসার হয়েও অত্যন্ত নরম মনের মানুষ ছিলেন। সারা জীবন অন্যায়ের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করেছেন। স্বাধীনতা সংগ্রামের প্রতিটি পর্যায়ে অনন্য ভূমিকা রেখেছেন তিনি।

রবিবার (১৪ নভেম্বর) বিকালে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আয়োজিত শওকত আলীর প্রথম স্মরণ সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। ‘৭১ ফাউন্ডেশন, মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদ, কর্নেল (অব.) শওকত আলী ফাউন্ডেশন ও জাতীয় বীর কর্নেল (অব.) শওকত আলী স্মৃতি পরিষদের যৌথ আয়োজনে এই স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম, মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও শওকত আলীর স্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা মাজেদা শওকত আলী, সাবেক আইজিপি এ কে এম শহীদুল হক, যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলে ফাহিম, যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুব্রত পাল, উদীচীর প্রতিষ্ঠাতা আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা কামরুল হাসান খান, মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক নিম চন্দ্র ভৌমিক প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

সভায় কর্নেল (অব.) শওকত আলী স্মরণে ‘শ্রদ্ধাঞ্জলি’ ও ‘মুক্তির মহানায়ক কিংবদন্তী’ নামক দুটি স্মারক বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয়। এছাড়াও অসহায়, অস্বচ্ছল মুক্তিযুদ্ধের সন্তানদের মধ্যে ‘জাতীয় বীর কর্নেল শওকত আলী বৃত্তি’ নামে একটি শিক্ষাবৃত্তির কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়। এছাড়াও বার্ষিক অস্বচ্ছল, নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত পাঁচজন নারীকে সেলাই মেশিন প্রদানের ঘোষণা দেওয়া হয়।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ‘স্বাধীনতার উত্তাল দিনগুলোতে তিনি একজন মিলিটারি অফিসার ছিলেন। আমরা তখন তরুণ ছিলাম। তার ভূমিকার গল্প শুনে নায়ক মনে করতাম। জাতীয় সংসদে এসে তার সঙ্গে প্রথম পরিচয় হয়। তার আচরণে মুগ্ধ হয়েছি। অত্যন্ত কোমল স্বভাবের মানুষ ছিলেন। সারা জীবন অন্যায়ের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করেছেন। সৎ সাহসী ও নির্ভীক ছিলেন। সুযোগের সন্ধানী ছিলেন না। কর্নেল শওকত আলীর মতো একজন সৎ সাহসী প্রকৃত বাঙালির সঙ্গে পরিচয় হওয়াটা আমার জীবনের অন্যতম আনন্দের অনুভূতি।’

পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম বলেন, ‘শওকত ভাইয়ের নির্বাচিত এলাকায় বর্তমান সংসদ সদস্য আমি। শওকত ভাই জীবিত থাকাকালীন আমি সবসময় তার সঙ্গে থেকেছি। অনুসরণ করেছি। আমি এখন চেষ্টা করি শওকত ভাইয়ের অসমাপ্ত কাজগুলো সম্পন্ন করতে। তার অসমাপ্ত স্বপ্নগুলো পূরণ করতে।’

মাজেদা শওকত আলী বলেন, তিনি সবসময় মুক্তির স্বপ্ন দেখতেন। তিনি সবসময় রাজনীতি করার কথা বলতেন। আমি ভাবতাম তিনি হয়তো যখন অবসর গ্রহণ করবেন তখন হয়তো রাজনীতি করবেন। এক দিন তিনি বললেন, আমাদের নির্দেশ এসেছে পাকিস্তান থেকে পূর্ব পাকিস্তানকে আলাদা করার। আর নির্দেশ দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি সবসময় শিখিয়েছেন দেশকে ভালোবাসতে। দেশের মানুষকে ভালোবাসতে।’



সাতদিনের সেরা