kalerkantho

বুধবার । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ১ ডিসেম্বর ২০২১। ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী বললেন

সৌরবিদ্যুতের জন্য জমি কম লাগে এমন প্রযুক্তি প্রয়োজন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ নভেম্বর, ২০২১ ২১:৫৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সৌরবিদ্যুতের জন্য জমি কম লাগে এমন প্রযুক্তি প্রয়োজন

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, বিদ্যুৎ উৎপাদনে কয়লার পরিমাণ কমে আসছে। ইতোমধ্যে ৮৪৫১ মেগাওয়াটের ১০টি কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র বাতিল করা হয়েছে যেখানে বিনিয়োগ ছিল প্রায় ১০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। সৌরবিদ্যুতের জন্য কম জমি লাগে এমন প্রযুক্তি প্রয়োজন। বাংলাদেশের মতো ঘনবসতিপূর্ণ দেশে বড় আকারের সৌর বিদ্যুৎ কেন্দ্র করা দূরহ। তাই সোলার হোম সিস্টেম ও সোলার মিনি গ্রীড এর মতো প্রকল্প নিয়ে কাজ করতে হচ্ছে। ৬০ লক্ষ সোলার হোম সিস্টেমের মাধ্যমে প্রায় ২ কোটি গ্রামীণ জনগণ বিদ্যুতায়নের আওতায় এসেছে।

আজ বৃহস্পতিবার গ্লাসগোতে ‌“ কপ২৬ এনার্জি ট্রানজিশন কাউন্সিল (কপ২৬ইটিসি) মিনিস্টারিয়াল ইভেন্ট” – এ বক্তব্যকালে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ পরিচ্ছন্ন জ্বালানির প্রসারে এনার্জি ট্রানজিশন কাউন্সিল ও সংশ্লিষ্ঠ সকলের সাথে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে চায়। বাংলাদেশ নবায়ণযোগ্য জ্বালানির প্রসারে গৃহীত কৌশলপত্র জ্বালানির বৈচিত্রময়তা ও পরিষ্কার জ্বালানির ব্যবহার দ্রুতগতিতে বাড়াতে কার্যকরি অবদান রাখছে। উন্নত প্রযুক্তি, গবেষণা ও আর্থিক সহযোগিতার সমন্বয় করা সম্ভব হলে  নবায়ণযোগ্য জ্বালানির ব্যাপক প্রসার নিশ্চিত হবে। সক্ষমতা বৃদ্ধিতেও সম্মিলিতভাবে কাজ করা আবশ্যক।

প্রতিমন্ত্রী এ সময় আরো বলেন, বায়োমাস জ্বালানি বাংলাদেশের মোট প্রাথমিক জ্বালানি সরবরাহ খাতের  গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। বায়োগ্যাস প্ল্যান্টের সংখ্যা এক লাখ এর কাছাকাছি পৌঁছেছে। বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ, বায়ু বিদ্যুৎ, ওশান এনার্জি হতে বিদ্যুৎ ইত্যাদি বিষয়ে গবেষণায় এনার্জি ট্রানজিশন কাউন্সিল-এর সহযোগিতাকে স্বাগত জানানো হবে। পরিষ্কার জ্বালানি আমদানিতেও সরকার কাজ করছে। সকলের জন্য সাশ্রয়ী, টেকসই জ্বালানি ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে সম্মিলিত প্রচেষ্টা জোরদার করা অত্যাবশ্যক।

সিওপি ২৬ এনার্জি ট্রানজিশন কাউন্সিল (ইটিসি) কপ২৬ এনার্জি ট্রানজিশন কাউন্সিল (কপ২৬ইটিসি) -এর অন্যতম প্রধান লক্ষ্য হ'ল বৈশ্বিক নেতৃত্বকে একত্রিত করে এনার্জি ট্রানজিশনকে ত্বরান্বিত করা, এবং পরিষ্কার জ্বালানির জন্য অর্থায়নকে সহজ করা। ইটিসি ফোকাস দেশগুলো হলো -বাংলাদেশ, মিশর, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, কেনিয়া, লাওস, মরোক্কো, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান,ফিলিপাইন, ভিয়েতনাম, দক্ষিণ আফ্রিকা।

ইন্টারন্যাশনাল রিনিউয়েবল এনার্জি এজেন্সি (আইআরইএনএ) -এর পরিচালক ইলিজাবেদ প্রেসের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মাঝে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের কমিশনার কাদরি সিম্পসন ও ইটিসি ফোকাস দেশগুলোর মন্ত্রীবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।



সাতদিনের সেরা