kalerkantho

রবিবার । ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২৮ নভেম্বর ২০২১। ২২ রবিউস সানি ১৪৪৩

আবরার হত্যা মামলায় তিন আসামির পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ অক্টোবর, ২০২১ ১৮:২৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আবরার হত্যা মামলায় তিন আসামির পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন

ফাইল ফটো

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় তিন আসামির পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করা হয়েছে। সোমবার ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক আবু জাফর মো. কামরুজ্জামানের আদালতে তিন আসামির পক্ষে আইনজীবী আমিনুল গনি টিটু যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন। তবে তাদের পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ না হওয়ায় আগামীকাল মঙ্গলবার অবশিষ্ট যুক্তিতর্ক উপস্থাপন হবে।

এদিন কারাগারে আটক ২২ আসামিকে আদালতে হাজির করা হয়। এরপর তাদের উপস্থিতিতে আসামি আসামি ইফতি মোশাররফ সকাল, মেফতাহুল ইসলাম জিওন ও মো. মেহেদী হাসান রবিনের পক্ষে যুক্তিউপস্থাপন শুরু হয়। তবে তাদের পক্ষে যুক্তিউপস্থাপন শেষ না হওয়ায় আদালত পরবর্তী যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের জন্য মঙ্গলবার দিন ধার্য করেন।

এর আগে গতকাল রোববার রাষ্ট্রপক্ষের চিফ প্রসিকিউটর মোশাররফ হোসেন কাজল যুক্তিতর্ক উপস্থাপনে পলাতক তিন আসামিসহ ২৫ জনের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড চেয়ে দাবি করেন। গত ১৪ সেপ্টেম্বর আত্মপক্ষ সমর্থনে কারাগারে আটক ২২ আসামি নিজেদের নির্দোষ দাবি করে আদালতের কাছে ন্যায়বিচার প্রত্যাশা করেন। এরপর আদালত যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের দিন ধার্য করেন।

২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর রাতে বুয়েটের শেরে বাংলা হলের দ্বিতীয় তলার সিঁড়ি থেকে অচেতন অবস্থায় আবরার ফাহাদকে উদ্ধার করা হয়। পরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনার পরের দিন ৭ অক্টোবর চকবাজার থানায় আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ হত্যা মামলা করেন। তদন্ত শেষে ২০১৯ সালের ১৩ নভেম্বর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবির পরিদর্শক ওয়াহিদুজ্জামান আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। অভিযোগপত্রে ২৫ আসামিকে অভিযুক্ত করেন। এরপর গত বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর এ মামলার অভিযোগ গঠন করেন বিচারের আদেশ দেন আদালত। গত ৫ অক্টোবর এ মামলার বাদী ও আবরারের বাবা বরকতুল্লাহর আদালতে সাক্ষ্য দেন। এর মধ্য দিয়ে এ মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। এরপর গত ২৪ জানুয়ারি তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. ওয়াহিদুজ্জামান মামলার শেষ সাক্ষী হিসেবে আদালতে জবানবন্দি দেন। গত ৪ মার্চ তদন্তকারী কর্মকর্তার জেরার মধ্য দিয়ে এ মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়। এ মামলায় মোট ৬০ জন সাক্ষীর মধ্যে ৪৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করেন আদালত।



সাতদিনের সেরা