kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৩০ নভেম্বর ২০২১। ২৪ রবিউস সানি ১৪৪৩

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

স্বাধীনতাবিরোধীরা বিদ্বেষ ছড়াচ্ছে

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

২০ অক্টোবর, ২০২১ ০১:১৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



স্বাধীনতাবিরোধীরা বিদ্বেষ ছড়াচ্ছে

৫০ বছর আগের স্বাধীনতাবিরোধীরা এখনো এ দেশে বিষাক্ত প্রচারণার মাধ্যমে হিংসা, বিদ্বেষ ও গোঁড়ামি উস্কে দিচ্ছে বলে জানিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। দেশের বিভিন্ন স্থানে হিন্দু সম্প্রদায়ের সদস্যদের ওপর হামলা ও উদ্বেগের প্রেক্ষিতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গতকাল মঙ্গলবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা বলা হয়।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, উৎসব মুখর পরিবেশে বাংলাদেশের মানুষ যখন দুর্গাপূজার উৎসব উদযাপন করছিল, তখন দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে হিন্দুদের ধর্মীয় স্থান ও মূর্তির ওপর হামলার খবর আসছিল। বাংলাদেশ সরকার দ্ব্যর্থহীনভাবে এ ঘটনার নিন্দা জানিয়েছে ও এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে ২২টি জেলায় স্থানীয় প্রশাসনকে সহযোগিতা করতে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) মোতায়েন করে। 

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আরো জানায়, একটি স্বার্থান্বেষী মহল অজানা রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য সংখ্যালঘুদের ওপর এ ধরনের পূর্বপরিকল্পিত আক্রমণে সরকার উদ্বিগ্ন। ৫০ বছর আগে স্থানীয় যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছিল, তারা এখনো ঘৃণা, গোঁড়ামি ও সহিংসতাকে উসকে দিতে তাদের বিষাক্ত প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। এটি দুঃখজনক। 

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বাংলাদেশের ধর্মনিরপেক্ষতা, অসাম্প্রদায়িকতা ও বহুত্ববাদের যে পরিচয় রয়েছে, তা খাটো করতে জেনে বুঝে তারা দেশের অন্যতম বড় ধর্মীয় অনুষ্ঠানকে লক্ষ্য বানিয়েছে। আন্তরিকতার সঙ্গে উত্সব সমাপ্ত করার জন্য হিন্দু সম্প্রদায় এবং এর সঙ্গে সংহতি প্রকাশের জন্য সরকার সাধারণ মানুষকে স্বাগত জানিয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজে দায়ীদের বিচারের আওতায় নিয়ে আসার বিষয়টিতে নিশ্চয়তা দিয়েছেন। তিনি এ নিয়ে সংশ্লিষ্ট সবাইকে গুজব ও অপপ্রচার বন্ধেরও আহ্বান জানিয়েছেন। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৭১টি মামলা করা হয়েছে। আর কুমিল্লায় যে মূল পরিকল্পনাকারী ছিলেন, তাকেও গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, ‘ধর্ম যার যার, উৎসব সবার’—এই মন্ত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় বাংলাদেশ সরকার কাজ করে যাচ্ছে। বিশ্বে শুধু বাংলাদেশই এমন একটি দেশ, যেখানে প্রধান সব ধর্মের উৎসবে সাধারণ ছুটি দেওয়া হয়ে থাকে। এছাড়া সরকার বিভিন্ন ধর্মের সমৃদ্ধির জন্য তাদের প্রতি সহযোগিতা হিসেবে ট্রাস্ট তহবিলও গঠন করেছে। এ বছরেই দুর্গাপূজার উৎসবে প্রধানমন্ত্রী হিন্দু কল্যাণ ট্রাস্টে তিন কোটি টাকার তহবিল দান করেছেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আরো জানায়, ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে সরকার সংশ্লিষ্ট সবাইকে সহনশীলতা, অন্তর্ভুক্তি, শান্তি ও বহুত্ববাদের মনোভাব সমুন্নত রাখার এবং রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে কলঙ্কিত করার এবং দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করার আরো প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছে।

এই ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে সরকার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। সরকার আশা করে, সব গণমাধ্যম প্ল্যাটফরমের মাধ্যমে দায়িত্বশীল এবং সত্যভিত্তিক প্রতিবেদনের মাধ্যমে আরো জটিলতা বা ভুল বোঝাবুঝি এড়ানো সম্ভব হবে।’ 



সাতদিনের সেরা