kalerkantho

রবিবার । ১ কার্তিক ১৪২৮। ১৭ অক্টোবর ২০২১। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

বিশ্ব ফার্মাসিস্ট দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা

অনলাইন ডেস্ক   

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ২১:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিশ্ব ফার্মাসিস্ট দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা

বাংলাদেশ ফার্মাসিস্ট ফোরামের উদ্যোগে ‘স্বাস্থ্যখাতে ফার্মাসিস্টদের ভূমিকা’ শীর্ষক  এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে। সভায় বক্তারা ফার্মাসিস্টদের গুরুত্ব, অবদান ও বিভিন্ন দাবি উত্থাপন করেন। আজ সারা বিশ্বে পালিত হচ্ছে বিশ্ব ফার্মাসিস্ট দিবস, তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ ফার্মাসিস্টস্ ফোরাম জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে আলোচনা সভার আয়োজন করে। 

উক্ত অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়েছিলেন ডাঃ মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, সভাপতি, বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন, অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব (স্বপ্নীল), ডিভিশনাল হেড, ইন্টারভেনশনাল হেপাটোলজি ডিভিশন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়,আঞ্চলিক পরামর্শক, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া,সদস্য সচিব, সম্প্রীতি বাংলাদেশ, প্রফেসর ড. ফিরোজ আহমেদ, চেয়ারম্যান, ফার্মেসি বিভগের, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং ফার্মেসি গ্র্যাজুয়েটস এসোসিয়েশন এর সাধারন সম্পাদক এম আমিনুল ইসলাম, সিনিয়র ফমার্মাসিস্ট বেলায়েত হোসেন সহ দেশ বরেণ্য ফার্মাসিস্ট নেতৃবৃন্দ। 

অনুষ্ঠানের সভপতিত্ব করেন জনাব হারুন অর রশীদ, সভপতি, বাংলাদেশ ফার্মাসিস্টস্ ফোরাম এবং মূল বক্তব্য প্রদান করেন সংগঠনটির সাধারন সম্পাদক সাদেক আহমেদ সৈকত এবং সাংগঠনিক সম্পাদক মেগেদী হাসান তানভীর স্বাগত বক্তব্য রাখেন। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন সংগঠনটির সিনিয়র সহসভাপতি মোঃ আজিবুর রহমান  এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান শরন।

আমেরিকা থেকে ভিডিও বার্তার মাধ্যমে বিশ্ব ফার্মাসিস্ট দিবস এর শুভেচ্ছা প্রেরণ করেন বাংলাদেশ ফার্মাসিস্টদের অভিভাবক অধ্যাপক আ ব ম ফারুক, পরিচালক, বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ সেন্টার, সাবেক ডিন, ফার্মেসি অনুষদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং সাধারন সম্পাদক, বঙ্গবন্ধু পরিষদ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি।

এসময় বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন বলেন, আন্তর্জাতিকভাবে ফার্মাসিস্টদের যে কদর রয়েছে, যে সম্মান তারা পান, বাংলাদেশে ফার্মাসিস্টদের সেই অবস্থান দেওয়া যায়নি। স্বাস্থ্যখাতে উন্নয়ন ও বর্তমান বাস্তব প্রেক্ষাপটে প্রধানমন্ত্রী এ দাবি পূরণ করতে পারেন। তিনি আরও বলেন, ফার্মাসিস্টদের দাবি পূরণ করা আজ সময়ের দাবি। আমাদের এই লক্ষ্যে এগিয়ে যেতে হলে অবশ্যই টেবিলে বসতে হবে। 

আলোচনা সভায় বক্তারা ফার্মাসিস্টদের অবদানের পাশাপাশি দেশে ফার্মাসিস্টদের যোগ্য মর্যাদার অভাব বলে দঃখ প্রকাশ করেন। বক্তারা বলেন দুঃখের বিষয় হলো উন্নত বিশ্বের হাসপাতাল গুলোতে যেখানে গ্র্যাজুয়েট ফার্মাসিস্টরা বহির্বিভাগ, জরুরী বিভাগ, সহ সকল বিভাগ এমনকি ওয়ার্ডেও সফলতার সাথে চিকিৎসক এবং নার্সদের সাথে সমন্বয় করে কাজ করছে, সেখানে ১৯৬৫ সালে ফার্মেসি শিক্ষা চালু হলেও আজও বাংলাদেশে প্রকৃত হসপিটাল ফার্মাসিস্ট (গ্র্যাজুয়েট) চালু হয়নি। 

আমাদের অনেক সিনিয়র রাজনীতিবিদ এমনকি বড় বড় ব্যবসায়ী, আমলারা বিদেশে চিকিৎসা নিয়ে থাকেন, তারা কি দেশে এসে ভূলে যান,  ওখানে কিভাবে চিকিৎসা তারা পেয়ে থাকেন। একজন হসপিটাল ফার্মাসিস্ট হসপাতালে ডাক্তারের কাজে যেমন সহযোগিতা করতে পারে, তেমনি নার্সদের কাজেও গতি আনতে পারে।



সাতদিনের সেরা