kalerkantho

রবিবার । ১ কার্তিক ১৪২৮। ১৭ অক্টোবর ২০২১। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

হাইকোর্টের রায়

আদালতের অনুমতি ছাড়া কোনো ব্যক্তির ব্যাংক হিসাব সম্পদ জব্দ অবৈধ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ আগস্ট, ২০২১ ২৩:৪৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আদালতের অনুমতি ছাড়া কোনো ব্যক্তির ব্যাংক হিসাব সম্পদ জব্দ অবৈধ

দুদক আইন অনুযায়ী আদালতের অনুমতি ছাড়া কোনো ব্যক্তির ব্যাংক হিসাব বা সম্পদ জব্দ করতে পারে না দুদক। এই রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট। রায়ে বলা হয়েছে, দুদকের কোনো কর্মকর্তা কমিশনের অনুমতি ছাড়াও কোনো ব্যক্তির ব্যাংক হিসাব বা সম্পদ জব্দ করতে পারেন না। আদালত ও দুদকের অনুমোদন ছাড়া কোনো ব্যক্তির ব্যাংক হিসাব বা সম্পদ জব্দ অবৈধ।

বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ গত ২৭ জুন এ রায় দেন। তবে রায়ের পূর্ণাঙ্গ কপি গতকাল বুধবার প্রকাশিত হয়েছে। কক্সবাজারের বেলায়েত হোসেন নামের এক ব্যবসায়ীর ব্যাংক হিসাব জব্দ করতে দুদকের চট্টগ্রাম কার্যালয়ের তদন্ত কর্মকর্তার দেওয়া নির্দেশ বেআইনি ঘোষণা করে এ রায় দেন হাইকোর্ট। তবে এ রায় ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে দুদকের তদন্ত কার্যক্রমে বাধা হয়ে দাঁড়াবে না বলেও রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে।

গত ৬ জানুয়ারি দুদকের চট্টগ্রাম-২ সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপসহকারী পরিচালক মো. শরীফ উদ্দিন কক্সবাজারের বাসিন্দা ব্যবসায়ী বেলায়েত হোসেনের ব্যাংক হিসাব জব্দ করতে সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডের কক্সবাজার শাখার ম্যানেজারকে নির্দেশ দেন। 

এই নির্দেশে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ বেলায়েত হোসেনের ব্যাংক হিসাব জব্দ করে। ফলে বেলায়েত হোসেনের এক কোটি ৮ লাখ ৫০ হাজার ৫১৪ টাকা আটকে দেয় ব্যাংক। এ অবস্থায় দুদক কর্মকর্তার ওই নির্দেশের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে বেলায়েত হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন। 

রিট আবেদনের ওপর প্রাথমিক শুনানি শেষে ২২ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্ট রুল জারি করেন। রুলে বেলায়েতের ব্যাংক হিসাব জব্দ করতে নির্দেশ কেন আইনগত কর্তৃত্ব বহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়েছিলেন। এই রুলের ওপর শুনানিকালে আদালত দেখতে পান, কমিশনের অনুমতি না নিয়ে দুদক কর্মকর্তা ওই ব্যবসায়ী বেলায়েত হোসেনের ব্যাংক হিসাব জব্দ করার নির্দেশ দিয়েছেন।

এছাড়া দুদক আইনের ১৮ ধারা অনুযায়ী আগেই আদালতের অনুমতি নেওয়ার প্রয়োজন থাকলেও তা নেননি ওই কর্মকর্তা। ফলে ওই রুলের শুনানি শেষে হাইকোর্ট ব্যাংক হিসাব জব্দের আদেশ অবৈধ বলে রায় দেন। আদালতে রিট আবেদনকারী পক্ষে আইনজীবী ছিলেন রাকিবুল হাসান। দুদকের পক্ষে ছিলেন শাহীন আহমেদ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার।



সাতদিনের সেরা