kalerkantho

শুক্রবার । ৯ আশ্বিন ১৪২৮। ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৬ সফর ১৪৪৩

কর্মসূচিতে বাধা, মাহমুদুর রহমান মান্নার প্রতিবাদ

অনলাইন ডেস্ক   

২৩ আগস্ট, ২০২১ ১৮:৪০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কর্মসূচিতে বাধা, মাহমুদুর রহমান মান্নার প্রতিবাদ

গতকাল রবিবার বগুড়া জেলা নাগরিক যুব ঐক্যের সভায় বাধা দেয় জেলা পুলিশ। দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সাকিব আনোয়ার স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এই ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না।

বিবৃতিতে বলা হয়, রবিবার বেলা ২ টায় বগুড়া শহরের একটি হোটেলে নাগরিক যুব ঐক্যের সভার আয়োজন করা হয়। বেলা ১২ টার দিকে বগুড়া জেলা পুলিশ সুপারের অফিস থেকে জানানো হয়, সভা করা যাবে না। পরবর্তীতে সদর থানা ইন চার্জ (ওসি) ফোন করে আয়োজকদের সভা স্থগিত করতে বলেন। এর কিছু সময় পর হোটেল কর্তৃপক্ষ জানায়, উপরের নির্দেশ আছে, এখানে সভা করা যাবে না। পরবর্তীতে স্থান পরিবর্তন করে অন্য একটি স্থানে সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় সেখানেও সভা করতে এসবি এবং পুলিশ বাধা দেয়। এই বাধার পরও নেতাকর্মীরা সেখানে সংক্ষিপ্ত আকারে আলোচনা সভা চালিয়ে যান। সভা শেষে নাগরিক যুব ঐক্যের বগুড়া জেলা কমিটি অনুমোদন এবং ঘোষণা করা হয়। একারণে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ সভায় যোগ দিতে পারেননি। সভা শেষে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ জেলা নাগরিক ঐক্য ও যুব ঐক্যের নেতাকর্মীদের সাথে মতবিনিময় করেন। এর আগেও নারায়নগঞ্জে একটি পারিবারিক অনুষ্ঠানে নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নাসহ দলের নেতাকর্মীদের উপর হামলা করা হয়। এমনকি রংপুরে জেলা নাগরিক ঐক্য আয়োজিত একটি সভায় দলের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নার ভার্চুয়াল (অনলাইন) বক্তব্য প্রচারে বাধা দেয়া হয়।

এই ঘটনার তীব্র নিন্দা এবং প্রতিবাদ জানিয়ে ডাকসু'র সাবেক দুইবারের ভিপি মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, সভা সমাবেশ করা আমাদের সাংবিধানিক অধিকার। করোনা পরিস্থিতির দোহাই দিয়ে সরকার বিরোধী দলকে কোন ধরনের রাজনৈতিক কর্মসূচি করতে দিচ্ছে না। এমনকি সম্পূর্ণ ঘরোয়া ভাবে একটি হোটেলের অভ্যন্তরেও তারা সভা করতে বাধা দিয়েছে। অথচ সরকার এবং সরকারি দল কোন ধরনের বিধি নিষেধের তোয়াক্কা না করে ত্রাণ বিতরণ এবং বিভিন্ন দিবস উপলক্ষে তাঁদের রাজনৈতিক, ব্যক্তিগত অনুষ্ঠান পালন করছে। এই আচরণ প্রমাণ করে জনবিচ্ছিন্ন সরকার বিরোধী শক্তিকে কতটা ভয় পায়।

সরকারের প্রতি হুশিয়ারি উচ্চারণ করে মান্না বলেন, এত জেল, জুলুম, অত্যাচারের পরও জনগণ জেগে উঠছে, প্রতিবাদ করছে। দখলদার সরকারের পতনের ঘন্টা বাজতে শুরু হয়েছে।

সরকারের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের এই শীর্ষনেতা বলেন, বর্তমান ক্ষমতাসীনরা গণতন্ত্রকে গলা টিপে হত্যা করেছে। ভোট ডাকাতি করে ক্ষমতায় গিয়ে তারা অন্যায়, দূর্নীতি, দুঃশাসন, জুলুম, অত্যাচারের সব সীমা অতিক্রম করেছে। দখলদার সরকারের দিন ফুরিয়ে এসেছে। তাই তারা বিরোধী শক্তিকে দমনে মরিয়া হয়ে উঠেছে। কিন্তু তারা যতই চেষ্টা করুক না কেন জনগণ তাদের রুখে দিবে।



সাতদিনের সেরা