kalerkantho

শুক্রবার । ৯ আশ্বিন ১৪২৮। ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৬ সফর ১৪৪৩

সামাজিক আন্দোলন ছড়িয়ে দিতে পারলেই ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ সম্ভব: মেয়র আতিক

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৮ আগস্ট, ২০২১ ১৬:২৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সামাজিক আন্দোলন ছড়িয়ে দিতে পারলেই ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ সম্ভব: মেয়র আতিক

রাজধানীবাসীকে ডেঙ্গু থেকে রক্ষা করতে প্রয়োজনীয় সব পদপে নিতে প্রস্তুত ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম। তিনি মনে করেন, ঢাকাবাসীর মধ্যে সামাজিক আন্দোলন ছড়িয়ে দিতে পারলেই ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ সম্ভব। আজ বেলা ১টার দিকে উত্তর সিটির নগর ভবনে ডেঙ্গু প্রতিরোধে ‘সুস্থতার জন্য সামাজিক আন্দোলন’ আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে এই আশাবাদ ব্যক্ত করেন মেয়র। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম।

সভায় আতিকুল ইসলাম বলেন, দেশের মানুষকে ডেঙ্গু থেকে রা করতে যা যা প্রয়োজনীয় আমি সবই করবো। এজন্য যত দূর যেতে হয় যাবো। আমরা যদি ডেঙ্গুর বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে পারি তাহলে আমাদের ১১ বছর লাগবে না বরং সবচেয়ে কম সময়ের মধ্যে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ করতে পারবো। মানুষ যেনো ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতন হয় সেজন্যই আজকে আমাদের এই আলোচনা সভা। ভবিষ্যতেও আামদের এই কার্যক্রম চলমান থাকবে। সামাজিক আন্দোলন ছড়িয়ে দিতে পারলে আমরা শুধু ডেঙ্গুই নয় বরং অন্যান্য অসুখও প্রতিরোধ করতে পারবো।

মশার ওষুধের কার্যকারিতা সম্পর্কে মেয়র বলেন, মশক নিধনের জন্য ব্যবহৃত আমাদের প্রতিটি ওষুধ পরীতি। রোজ আমরা এই ওষুধের কার্যকারিতা পরীা করি। তারপর সব এলাকায় সেই ওষুধ ছিটানো হয়। তবে যদি কোনো এলাকায় মশার ওষুধ না পৌঁছায় তাহলে সেসব এলাকাবাসীর প্রতি আমার আহ্বান আপনারা আমাদের ‘সবার ঢাকা’ অ্যাপসের মাধ্যমে অভিযোগ করুন, আমরা মশার ওষুধ দিয়ে আসবো। এসময় মেয়র আগস্ট মাসের শোককে শক্তিতে পরিনত করে সবাইকে নিজ নিজ বাড়িঘর পরিষ্কার করার আহ্বান জানান।

আলোচনা সভায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম বলেন, ১৯২০ সাল থেকে ডেঙ্গু পৃথিবীতে দৃশ্যমান হয়। শহর এলাকায় এডিস মশার প্রজনন বেশি। ২০১৯ সালে বাংলাদেশে ডেঙ্গু ভয়াবহ আকার ধারণ করে। তবে এবছর যাতে ডেঙ্গু ভয়াবহ আকার ধারণ না করে সেজন্য ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন কাজ করে যাচ্ছে। আমরা আশা করছি শীঘ্রই ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে আসবে। আমরা যদি এই কাজে রাজধানীবাসীকে অন্তর্ভুক্ত করতে পারি তাহলে আরো ভালো ফল পাবো। এসময় মন্ত্রী এয়ারপোর্ট, নৌ সদর দপ্তর, ক্যান্টনমেন্টসহ অন্যান্য সংরতি এলাকায় মশক নিধনের বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদপে নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপরে সঙ্গে আলোচনা করবেন বলে জানিয়েছেন। আলোচনা সভায় মন্ত্রী এবং মেয়র নাগরিকদেরকে প্রতি শনিবার সকাল ১০টায় ১০ মিনিট ধরে বাসার জমে থাকা পানি ফেলে দেয়ার আহ্বান জানান।

সভায় সংসদ সদস্য নাহিদ ইজাহার খান, ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সেলিম রেজা, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক পরিচালক (রোগ নিয়ন্ত্রণ বিভাগ) ডা. বে-নজির আহমেদ, স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন, স্থপতি ইকবাল হাবিবসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক, ধর্মীয় নেতা এবং হাউজিং সোসাইটির প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।



সাতদিনের সেরা