kalerkantho

বুধবার । ৭ আশ্বিন ১৪২৮। ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৪ সফর ১৪৪৩

এডিস নিয়ন্ত্রণে দক্ষিণ সিটিতে ৩৬ নির্মাণাধীন ভবনকে জরিমানা

অনলাইন ডেস্ক   

৫ আগস্ট, ২০২১ ২১:২১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এডিস নিয়ন্ত্রণে দক্ষিণ সিটিতে ৩৬ নির্মাণাধীন ভবনকে জরিমানা

এডিস মশার লার্ভা নিয়ন্ত্রণে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ৩৬ নির্মাণাধীন ভবন ও বাসা-বাড়িকে ৫ লক্ষ ৯০০ টাকা জরিমানা করেছে।

আজ বৃহস্পতিবার (৫ অগাস্ট) দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৫ জন আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও ৭ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আদালতসমূহ পরিচালনা করেন।

দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের মধ্যে অঞ্চল-১ এর ধানমন্ডি ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে মাহফুজুল আলম মাসুম, অঞ্চল-২ এর কমলাপুর ও মিতিঝিলে মোহাম্মদ আলমগীর হোসেন, অঞ্চল-৩ এর রহমতবাগ ও চকবাজারে তৌহিদুজ্জামান পাভেল, অঞ্চল-৫ এর অভয়দাস লেনে শাহিন রেজা, অঞ্চল-৫ এর ওয়াসা রোড, নতুন রাস্তা ও পশ্চিম মীরহাজারিবাগে মুহাম্মদ হাসনাত মোর্শেদ ভূঁইয়া, অঞ্চল-৮ এর ডেমরার কবরস্থানের ৪ নং গলি কাজী হাফিজুল আমিন এবং অঞ্চল-১০ এ বিকাশ বিশ্বাস এসব ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন।

এছাড়াও আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তাদের (আনিক) মধ্যে অঞ্চল-১ এর মেরীনা নাজনীন ধানমন্ডির ১৩,১৪,১৫ ও ২৭ নং রোডে, অঞ্চল-৩ আনিক বাবর আলী মীর ছোট দায়রা শরীফে, অঞ্চল-৪ এর আনিক মো. হায়দর আলী ওয়ারীর শাহজাহানপুর লেনে, অঞ্চল-৭ এর আনিক ড. মোহাম্মদ মাহে আলম দক্ষিণ মান্ডায় এবং অঞ্চল-৯ এর আনিক মো. খায়রুল হাসান যাত্রাবাড়ীর মোমেনবাগ এলাকায় এসব অভিযান পরিচালনা করেন।

অঞ্চল-৩ এর আনিক বাবর আলী মীর অভিযান প্রসঙ্গে বলেন, “আজ রহমতবাগ এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেছি। অভিযানকালে ৩৭/১ ছোট দায়রা শরীফ হোল্ডিং সম্বলিত একটি বহুতল ভবনের ছাদে মশার লার্ভা পাওয়ায় সে ভবনের সাধারণ সম্পাদক ও কোষাধ্যক্ষ প্রত্যেককে আলাদা আলাদাভাবে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।”

ভ্রাম্যমাণ আদালতসমূহ এ সময় ৮৮৫টি নির্মাণাধীন ভবন, বাসাবাড়ি ও প্রতিষ্ঠানে অভিযান পরিচালনা করেন এবং মশার লার্ভা পাওয়ায় ৩৬টি নির্মাণাধীন ভবন ও বাসাবাড়িকে ৩৬ মামলায় সর্বমোট ৫ লক্ষ ৯০০ টাকা জরিমানা আদায় করেন।

এছাড়াও এ সময় এডিস মশার লার্ভা প্রজনন উপযোগী পরিবেশ বিরাজ করায় মোট ২২টি বাসা ও নির্মাণাধীন ভবনকে সতর্ক করা হয়।

এডিসের লার্ভাবিরোধী অভিযানের পাশাপাশি করপোরেশনের বিভিন্ন ওয়ার্ডে জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা অব্যাহত রয়েছে।



সাতদিনের সেরা