kalerkantho

শনিবার । ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮। ৩১ জুলাই ২০২১। ২০ জিলহজ ১৪৪২

একটি উদ্যোগ ও ছয় শ পরিবারের ঈদ আনন্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি   

২১ জুলাই, ২০২১ ১৯:৫৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



একটি উদ্যোগ ও ছয় শ পরিবারের ঈদ আনন্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জের ছয় শ পরিবারের ঈদ আনন্দে যোগ হয়েছে নতুন মাত্রা। পশু কোরবানি দিতে না পারলেও তাদের ভাগ্যে ঠিকই মাংস মিলেছে। 'আশ্রয় বিদ্যাপিঠ' ও এটেক্সার নামে দুইটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের উদ্যোগে বুধবার (২১ জুলাই) বিকেলে অসহায় ছয় শ পরিবারের মাঝে ১২০০ কেজি মাংস বিতরণ করা হয়। 

আশ্রয় বিদ্যাপিঠ আশুগঞ্জ উপজেলা কেন্দ্রিক সংগঠন ও আশুগঞ্জ তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের নিয়ে গড়া সংগঠন এটেক্সা। বিকেলে সরকারি আব্দুল জলিল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অসহায়দের মাঝে তারা মাংস বিতরণ করেন।

প্রধান অতিথি থেকে মাংস বিতরণ করেন এটেক্সার সভাপতি ও দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) মহাপরিচালক মাহমুদুল হোসেন খান। অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) অরবিন্দ বিশ্বাস। 

এছাড়া অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, আশুগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন, টেক্সা সংগঠনের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি আক্তারুজ্জামান ইকবাল ও ওয়াছি উদ্দিন নাসিম, অর্থ সম্পাদক সৈয়দ আমিনুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাফর আহমেদ আশ্রয় বিদ্যাপিঠের উপদেষ্টা ইসহাক সুমন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এটেক্সা সংগঠনের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি আক্তারুজ্জামান ইকবাল বলেন, আমরা চাই সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠিকে এগিয়ে নিতে। তারই ধারাবাহিকতায় আমরা নানা উদ্যোগ নিয়েছি।  

আশ্রয় বিদ্যাপীঠের উদ্যোক্তা ইশতিয়াক আশিক বলেন, ‘এবার নিয়ে পাঁচ বছর ঈদে মাংস বিতরণ করেছি আমরা। আমাদের সদস্যরা বিভিন্ন এলাকা থেকে কোরবানির মাংস সংগ্রহ করেন। এছাড়াও এইবার প্রথম সংগঠনের সদস্যরা একটি গরু কোরবানি দিয়েছি। সব মিলিয়ে ১২০০ কেজি মাংস এ বছর বিতরণ করা হলো।’ 

আশুগঞ্জ তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের সংগঠন এটেক্সার গত  তিন বছর ধরে প্রতিষ্ঠার পর থেকে সংগঠনটি নানা সামাজিক কর্মকাণ্ড করছে। এর মধ্যে অন্যতম এক বেলার আহার, সুবিধাবঞ্চিতদের মাঝে ঈদ উপহার সামগ্রী, নতুন জামা প্রদানসহ নানা সামাজিক কর্মকাণ্ড।

এছাড়া ২০১৭ সালের মে মাস থেকে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের এগিয়ে নিতে আশ্রয় বিদ্যাপীঠ নামে সামাজিক সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করে আশুগঞ্জের শতাধিক তরুণ। প্রতিষ্ঠার পর থেকে সংগঠনের সদস্যরা বিনামূল্যে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের পাঠদান চালিয়ে যাচ্ছে। বর্তমানে প্রথম শ্রেণি থেকে অষ্টম শ্রেণির ১১০ জন ছাত্রকে শিক্ষাদান করেছে এই সংগঠনটি।



সাতদিনের সেরা