kalerkantho

রবিবার । ৪ আশ্বিন ১৪২৮। ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১১ সফর ১৪৪৩

চাঁদা না দেওয়ায় নৃশংসতা

হাতুড়িপেটা করে কুকুর লেলিয়ে দিল সন্ত্রাসীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক    

৭ জুলাই, ২০২১ ০৪:১৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



হাতুড়িপেটা করে কুকুর লেলিয়ে দিল সন্ত্রাসীরা

চাঁদা না পেয়ে এক ফেরিওয়ালাকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে কুকুর লেলিয়ে দিয়েছে চাঁদাবাজ-সন্ত্রাসীরা। হাতুড়ির আঘাত ও কুকুরের কামড়ে আহত অবস্থায় উজ্জ্বল হোসেন নামের ওই খুদে ব্যবসায়ীকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রাজধানীর কদমতলী পূর্ব জুরাইন মেডিক্যাল রোড এলাকায় গতকাল মঙ্গলবার এ ঘটনা ঘটেছে।

স্বজনরা জানায়, উজ্জ্বল হোসেন পূর্ব জুরাইনের মেডিক্যাল রোড এলাকার ফুটপাতে অ্যালুমিনিয়ামের হাঁড়ি-পাতিল বিক্রি করেন। আর এখানে ব্যবসা করার জন্য স্থানীয় কিছু বখাটে সন্ত্রাসী এর আগে তাঁর কাছ থেকে জবরদস্তি ১০ হাজার টাকা চাঁদা আদায় করে। সম্প্রতি ওই চাঁদাবাজরা আবারও ১০ হাজার টাকা দাবি করে। উজ্জ্বল সেই টাকা না দেওয়ায় গতকাল বিকেলে তাঁর ওপর হামলা চালায় ওই সন্ত্রাসীরা।

কদমতলী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) শিহাব উদ্দিন বলেন, ‘আহত উজ্জ্বলের বাবা রফিকুল ইসলাম থানায় এসে অভিযোগ করেন যে ওই এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা তাঁর ছেলেকে চাঁদার জন্য পিটিয়ে জখম করেছে। তাঁর অভিযোগের ভিত্তিতে জুরাইন মেডিক্যাল রোড এলাকার বিক্রমপুর প্লাজার পেছনে গিয়ে উজ্জ্বলকে আহত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। তাত্ক্ষণিক তাঁকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’

উজ্জ্বলের গ্রামের বাড়ি দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের ইস্টার্নবাজার এলাকায়। বর্তমানে তিনি পূর্ব জুরাইনের মুরাদপুর হাই স্কুল রোড এলাকায় অহেদ মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থেকে ফুটপাতে ও ফেরি করে হাঁড়ি-পাতিল বিক্রি করেন।

রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমার ছেলে ফেরি করে সিলভারের হাঁড়ি-পাতিল বিক্রি করে। ওই এলাকার স্থানীয় সন্ত্রাসীরা আগেও তার কাছ থেকে জোর করে ১০ হাজার টাকা চাঁদা নিয়েছে। পরে আবার টাকা চাইলে আমার ছেলে তা দিতে অস্বীকার করে। মহল্লার সন্ত্রাসী অনিক, মাহাবুব, জাকিরসহ কয়েকজন চাঁদা না পেয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে গতকাল বিকেলে বিক্রমপুর প্লাজার পেছনে উজ্জ্বলকে ঘিরে ধরে। এরপর তাকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। এক পর্যায়ে নিজেদের পালিত কুকুর লেলিয়ে দেয়। কুকুরের কামড়ে আমার ছেলের শরীরের নানা জায়গায় জখম হয়। পরে তিনি থানায় গিয়ে পুলিশকে খবর দিলে তারা তাঁকে উদ্ধার করে।’



সাতদিনের সেরা