kalerkantho

বুধবার । ২০ শ্রাবণ ১৪২৮। ৪ আগস্ট ২০২১। ২৪ জিলহজ ১৪৪২

হলি আর্টিজানে হামলার পাঁচ বছর

নব্য জেএমবি নিষিদ্ধ করার প্রক্রিয়া চলছে

► জঙ্গি দমনে র‌্যাবের কার্যক্রম চলমান : র‌্যাব মহাপরিচালক ► জঙ্গিদের অনলাইনকেন্দ্রিক কার্যক্রমের ওপরও কঠোর নজরদারি : ডিএমপি কমিশনার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২ জুলাই, ২০২১ ০২:৩৬ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



নব্য জেএমবি নিষিদ্ধ করার প্রক্রিয়া চলছে

গুলশানের হলি আর্টিজান হামলায় আলোচনায় উঠে আসা জঙ্গিদের নতুন সংগঠন নব্য জেএমবিকে নিষিদ্ধ করার প্রক্রিয়া চলছে। শিগগিরই এটি নিষিদ্ধ করা হতে পারে। নব্য জেএমবিসহ অন্য সংগঠনগুলোর অনলাইনকেন্দ্রিক কর্মকাণ্ড কঠোর নজরদারিতে আছে। জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণে অভিযানের পাশাপাশি সচেতনতার জন্য সমন্বিত কার্যক্রম চালাচ্ছে পুলিশ ও র‌্যাব।

গতকাল বৃহস্পতিবার হলি আর্টিজান হামলার পাঁচ বছর উপলক্ষে র‌্যাব ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এসব কথা বলেন। তাঁরা জানান, হলি আর্টিজান হামলার পর ২৩টি ‘হাই রিস্ক অপারেশন’ পরিচালনা করে কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি)। এসব অভিযানে ৬৩ জন জঙ্গি নিহত হয়। দেশে-বিদেশে যেভাবেই নব্য জেএমবি সংগঠিত হওয়ার চেষ্টা করে, সেখানেই নজরদারি আছে পুলিশের গোয়েন্দাদের।

সকালে গুলশান থানার (পুরনো) সামনে নিহত পুলিশের দুই কর্মকর্তার স্মরণে নির্মিত স্মৃতিস্তম্ভ ‘দীপ্ত শপথ’-এ ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে র‌্যাবের মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন ও ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন। দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন সিটিটিসির প্রধান মো. আসাদুজ্জামান।

এদিকে গুলশানের ৭৯ নম্বর রোডের ৫ নম্বর বাড়ির সেই হলি আর্টিজান ভবনটিতে গতকাল ছিল সুনসান নীরবতা। কঠোর লকডাউনের কারণে গত বুধবার কয়েকটি দেশের কূটনীতিক ও কর্মকর্তারা সেখানে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।

ডিএমপির তৎকালীন সহকারী কমিশনার রবিউল ইসলাম ও বনানী থানার তৎকালীন ওসি সালাহউদ্দিন খানের স্মরণে স্মৃতিস্তম্ভে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে র‌্যাব মহাপরিচালক আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, জঙ্গি দমনে র‌্যাবের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। জঙ্গিরা অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে সক্রিয় হওয়ার চেষ্টা করছে। তবে র‌্যাবের নিয়মিত অভিযান ও নজরদারির কারণে জঙ্গিরা তৎপরতা দেখাতে পারছে না।

ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম বলেন, শুধু বাংলাদেশে নয়, সারা বিশ্বেই জঙ্গিরা নেটভিত্তিক প্রচারণা চালাচ্ছে। ভার্চুয়াল ওয়ার্ল্ডে তারা অনেক তৎপর। তবে পুলিশ জঙ্গিদের কার্যক্রমের ওপর কঠোর নজরদারি করছে। আপাতত দেশে কোনো জঙ্গি হামলার আশঙ্কা নেই।

দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে সিটিটিসি ইউনিট প্রধান আসাদুজ্জামান বলেন, ‘ওই সময় জেএমবির কয়েকজন সদস্যসহ জুন্নুদার তাওহীদ কানাডিয়ান প্রবাসী তামিম চৌধুরী বাংলাদেশে এই নিউ জেএমবি তৈরি করেন। পরবর্তী সময়ে জেএমবির শীর্ষ কয়েকজন কর্মকর্তার (মামলার চার্জশিটভুক্ত ও নিহত জঙ্গি) সমন্বয়ে নব্য জেএমবি নামে সংগঠন তৈরি করা হয়। তাঁরা নিজেদের আইএস দাবি করেন—এমন কোনো প্রমাণ আমরা পাইনি।’ নব্য জেএমবিকে নিষিদ্ধ করা হবে কি না—এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, তাদের নিষিদ্ধ করার কাজ প্রক্রিয়াধীন।

আসাদুজ্জামান বলেন, হলি আর্টিজানে নৃশংস হামলার পর গত পাঁচ বছরে সিটিটিসি একের পর এক সফল অভিযানের মাধ্যমে উগ্রবাদী কর্মকাণ্ডকে কঠোরভাবে প্রতিহত করেছে। কল্যাণপুরে অপারেশন স্টর্ম-২৬, নারায়ণগঞ্জে অপারেশন হিট স্টর্ম-২৭, গাজীপুরের পাতারটেকে অপারেশন স্পেট-৮সহ সিটিটিসি ২৩টি হাই-রিস্ক অপারেশনে ৬৩ জন সন্ত্রাসী নিহত হয়।

সিটিটিসির প্রধান বলেন, সিটিটিসি সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে কঠোর ও কোমলের সমন্বিত পদক্ষেপ অর্থাৎ স্মার্ট এপ্রোচ গ্রহণ করেছে। এর অংশ হিসেবে সিটিটিসি আইন প্রয়োগের পাশাপাশি সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তোলার জন্য সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিভিন্ন সেমিনার ও কর্মশালা আয়োজন করেছে; যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে স্কুল-কলেজ-মাদরাসা-বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময়, পুলিশ সদস্য, কারা কর্মকর্তা ও কারারক্ষী, চৌকিদার-দফাদার, জনপ্রতিনিধি, নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ, শিক্ষাবিদ, এনজিও সংস্কৃতিকর্মী, সাংবাদিক, ধর্মীয় পাণ্ডিত্যসম্পন্ন ব্যক্তি, উগ্রবাদী বা সন্ত্রাসী (জামিনপ্রাপ্ত), তাদের মা-বাবা ও পরিবারের সদস্য, সন্ত্রাসী ঘটনার ভুক্তভোগী ও তাদের পরিবারের সদস্য এবং বিভিন্ন অংশীজনের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত কর্মশালা। এ পর্যন্ত এ ধরনের ১৭৪টি আলোচনা সভা বা কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছে, যার মাধ্যমে প্রত্যক্ষভাবে ৩৯ হাজার ৪০০ জনকে উগ্রবাদের বিরুদ্ধে সচেতন করে তোলা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সবার মতামতের ভিত্তিতে সন্ত্রাসবাদ প্রতিরোধে একটি সমন্বিত কর্মকৌশল গ্রহণের গুরুত্ব উপলব্ধি করে সিটিটিসি ২০১৯ সালে বাংলাদেশ সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় বা বিভাগ, নাগরিকসমাজ, শিক্ষা-গবেষণা ক্ষেত্রে কর্মরত ব্যক্তি, বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা, আন্তর্জাতিক এনজিওর প্রতিনিধিদের অংশগ্রহণে দেশে প্রথমবারের মতো উগ্রবাদবিরোধী জাতীয় সম্মেলনের আয়োজন করে। সাইবার স্পেসকে নিরাপদ রাখতে সিটিটিসি সাইবার মনিটরিংসহ সচেতনতামূলক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে।

সেই হলি আর্টিজান বেকারির মালিক সাদাত মেহেদি গতকাল বলেন, ‘আজ (গতকাল) থেকে কঠোর লকডাউন শুরু হয়েছে। এ জন্য বুধবারই যুক্তরাষ্ট্র, ইতালি, ভারতসহ কয়েকটি দেশের কূটনীতিক ও কর্মকর্তারা এখানে এসেছিলেন। তাঁরা ফুল দিয়ে নিহত ব্যক্তিদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। লকডাউনের কারণে এখানে কোনো কর্মসূচি নেই।’

২০১৬ সালের ১ জুলাই রাতে পাঁচ জঙ্গি গুলশান-২-এর ৭৯ নম্বর সড়কের হলি আর্টিজান বেকারিতে ঢুকে ১৭ বিদেশিসহ ২০ জনকে গুলি করে এবং কুপিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করে। পরদিন সকালে প্যারা কমান্ডো অভিযানে পাঁচ জঙ্গিসহ ছয়জন নিহত হয়। জঙ্গি হামলা প্রতিরোধ করতে গিয়ে পুলিশের তৎকালীন এএসপি রবিউল করিম ও ওসি সালাউদ্দিন আহম্মেদ নিহত হন। ২০১৮ সালের ২৪ জুলাই ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে এই মামলার চার্জশিট দাখিল করে সিটিটিসি। দেশে জঙ্গি তৎপরতা আছে জানান দিয়ে আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠনের দৃষ্টি আকর্ষণ করতেই গুলশানে হামলার পরিকল্পনা করেছিল জঙ্গিরা। ২০১৯ সালের ২৭ নভেম্বর আদালতের রায়ে সাত জঙ্গির ফাঁসি ও একজনকে খালাস দেওয়া হয়।



সাতদিনের সেরা