kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৩ আশ্বিন ১৪২৮। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১। ২০ সফর ১৪৪৩

দুর্নীতি প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর জবাবে সংসদে হট্টগোল

এ বছরের মধ্যে ১০ কোটি টিকা আসবে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১ জুলাই, ২০২১ ০৩:৩০ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



দুর্নীতি প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর জবাবে সংসদে হট্টগোল

করোনাকালে স্বাস্থ্য খাতে অনিয়ম-দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনার অভিযোগ তুলে সংসদ অধিবেশনে আবারও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিরোধী দলের সদস্যরা। ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে স্বাস্থ্য বিভাগের মঞ্জুরি দাবির ওপর বিরোধী দলের সদস্যদের সমালোচনার জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের দেওয়া বক্তব্যে অধিবেশন কক্ষে হট্টগোলও হয়েছে। বিরোধী সদস্যদের বক্তব্যের জবাব দিতে মন্ত্রী তাঁদের দায়িত্ব নিতে বলেন। ঢালাও অভিযোগ ‘অগ্রণযোগ্য’  উল্লেখ করেন।

গতকাল বুধবার স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে বাজেট পাসের সময় মন্ত্রণালয় ও বিভাগ সম্পর্কিত ৫৯টি মঞ্জুরি দাবির মধ্যে আইন মন্ত্রণালয়, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ এবং স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ নিয়ে আলোচনা করেন বিরোধী দল জাতীয় পার্টি, বিএনপি ও গণফোরাম সদস্যরা। তাঁরা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ব্যর্থতা তুলে ধরেন। অনিয়ম-দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনার অভিযোগ তুলে ধরে মন্ত্রী ও মন্ত্রণালয়ের কঠোর সমালোচনা করেন। করোনার টিকার অপ্রতুলতা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তাঁরা।

পরে জবাব দিতে উঠে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এক পর্যায়ে বিরোধী দলের সদস্যদের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনারা তো হাসপাতালের চেয়ার। আপনাদের দায়িত্ব আছে। আপনাদের দায়িত্ব নিতে হবে।’ তিনি দুর্নীতির অভিযোগেরও জবাব দেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘মাস্ক নিয়ে কথা বলছেন। মাস্ক তো কেনাই হয়নি। তার পেমেন্ট দেওয়া হয়নি। ঢালাও অভিযোগ দিলে তো চলবে না।’

এ সময় বিরোধী দলের বেঞ্চ থেকে হৈচৈ, হট্টগোল শুরু হয়। স্বাস্থ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের বিরোধিতা করে জাতীয় পার্টি ও বিএনপির সদস্যরা মাইক ছাড়াই নানা কথা বলতে থাকেন। ‘আমরা পত্রিকা পড়ি না’ এমন বাক্যও হাউস থেকে শোনা যায়। এ সময় সরকারি দলের সদস্যরা কী করবেন বুঝে উঠতে পারছিলেন না। পরস্পরের দিকে তাকাতাকি করছিলেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী একটু থেমে গেলে সামনে বসা তথ্য ও সমপ্রচারমন্ত্রী তাঁকে বক্তব্য চালিয়ে যেতে ইশারা করলে তিনি পুনরায় বক্তৃতা করেন।

মন্ত্রণালয়ের অনিয়ম ও দুর্নীতি নিয়ে অভিযোগ প্রসঙ্গে জাহিদ মালেক বলেন, সুনির্দিষ্ট করে বলতে হবে। ঢালাওভাবে অনিয়মের কথা বললে গ্রহণযোগ্য হবে না। সুনির্দিষ্ট করে বলতে হবে কোথায় দুর্নীতি হয়েছে? এ সময় বিরোধী দলের দিক থেকে আবারও হৈচৈ হলে মন্ত্রী বলেন, ‘মাস্কের কোনো টাকাই তো দেওয়া হয়নি। ঢালাওভাবে বললে হবে না।’ এ পর্যায়ে হট্টগোল চলতে থাকলে বিরোধী দলের সদস্যদের ছাঁটাই প্রস্তাব গ্রহণ করা সম্ভব হচ্ছে না জানিয়ে তিনি বসে পড়েন।

এর আগে ছাঁটাই প্রস্তাব নিয়ে আলোচনাকালে বিএনপির হারুনুর রশীদ বলেন, ‘স্বাস্থ্য খাত সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। দুর্নীতি দূর করতে হলে ডালপালা কেটে লাভ নেই। গাছের শিকড় উপড়ে ফেলতে হবে। স্বাস্থ্যের কেনাকাটায় ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে। দুর্নীতি নিয়ে নতুন করে বলার কিছু নেই।’

জাতীয় পার্টির পীর ফজলুর রহমান বলেন, ‘কতবার ডিও লেটার দেব, আমার এলাকার হাসপাতালে অ্যাম্বুল্যান্স নেই, ডাক্তার কবে পাব? এক্স-রে মেশিন কবে পাব? রেডিওলজিস্ট কবে পাব? স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে যতবার বলি, উনি ডিও লেটার দিতে বলেন। কতবার দেব?’ তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, চলমান বরাদ্দের টাকাই খরচ করতে পারেননি। আবার বরাদ্দ চেয়েছেন।

জাপার আরেক সদস্য শামীম হায়দার পাটোয়ারী বলেন, ‘স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় টাকা খরচ করতে পারেনি। ফেরত দিয়েছিল। এটা আমরা চাই না। খরচ করতে না পারলে এখানে ৩৫০ জন এমপিকে ভাগ করে দেন। আমরা খরচ করি। স্বাস্থ্যসেবা আমরা দেখব। আপনাদের দরকার নেই। ডাক্তার-নার্স নিয়োগ করতে পারছেন না। ৩৫০ এমপিকে দায়িত্ব দেন। আমরা নিয়োগের ব্যবস্থা করি।’

বিএনপির রুমিন ফারহানা স্বাস্থ্য খাতের বিভিন্ন অনিময় তুলে ধরে বলেন, ‘স্বাস্থ্য খাতে এই যে বরাদ্দ দিচ্ছি সেটা কোথায় যাচ্ছে? বরাদ্দ খরচ করার সক্ষমতা মন্ত্রণালয়ের আছে কি না সেই প্রশ্ন চলে আসছে।’

জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী সংসদ সদস্যদের উদ্দেশ করে বলেন, ‘সব লকডাউন। এই সময় আপনারা কেউ তো বাইরে যেতে পারেননি। সেবা কোথায় নিচ্ছেন? সব বাংলাদেশের হাসপাতালেই সেবা নিচ্ছেন। যেতে তো পারছেন না কোথাও। হাসপাতাল সেই সেবা দিতে পারে বিধায় আপনারা সেবা নিচ্ছেন। ভালো আছেন।’

আসছে ভ্যাকসিন : ভ্যাকসিন সংগ্রহ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ভ্যাকসিন আমরা আনার চেষ্টা করছি। আগামী ২-৩ তারিখের মধ্যে ২৫ লাখ মডার্নার ভ্যাকসিন চলে আসবে। চীনের ভ্যাকসিনও একই সময়ে চলে আসবে। কোভ্যাক্স থেকে আমরা ছয় কোটি ৩০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন ডিসেম্বরের মধ্যে পাব। সিনোফার্মার সঙ্গে চীনা দেড় কোটি ভ্যাকসিনের চুক্তি হয়েছে। সব মিলিয়ে ডিসেম্বর পর্যন্ত ১০ কোটি ভ্যাকসিনের ব্যবস্থা রয়েছে। এটা দিয়ে আমরা পাঁচ কোটি মানুষকে টিকা দিতে পারব। জনসন অ্যান্ড জনসনকে রিসেন্টলি অনুমতি দিয়েছি, সেখানকার সাত কোটি ভ্যাকসিন দিয়ে সাত কোটি মানুষকে টিকা দিতে পারব। আগামী বছরের প্রথম কোয়ার্টারে পাব। সব মিলিয়ে আগামী বছরের প্রথম কোয়ার্টারের মধ্যে ৮০ শতাংশ মানুষকে টিকা দিতে পারব।’

মন্ত্রী বলেন, ‘স্বাস্থ্যসেবার সব স্বাভাবিক কাজের পাশাপাশি করোনার চিকিৎসা চলছে। প্রায় এক কোটি লোককে আমরা ভ্যাকসিন দিয়েছি। সেখানে প্রায় তিন হাজার কোটি টাকার কাজ হয়েছে। কভিড-১ টেস্ট প্রায় ৫০ লাখ মানুষের করেছি। সেখানে দুই হাজার কোটি টাকার কাজ হয়েছে। এক লাখ করোনার রোগীকে চিকিৎসা দিয়েছি। সেখানে দুই হাজার কোটি টাকা খরচ হয়েছে। অক্সিজেন সেন্টার হয়েছে ১০০টি, ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে ১০০টি। এ বছর এডিপির ১২ হাজার কোটি টাকার বাজেট ছিল। ভ্যাকসিন বাদ দিলে এর ৮৫ শতাংশ অর্জন হবে। ভ্যাকসিনের আট হাজার কোটি টাকা ধরা হলে সেটা ১৫০ শতাংশ আমাদের অর্জন।’

জনবল ঘাটতি থাকার কথা উল্লেখ করে জাহিদ মালেক বলেন, ‘এই করোনার মধ্যেও আমরা চিকিৎসক, নার্সসহ ২০ হাজার লোক নিয়োগ দিয়েছি। টেকনিশিয়ান নিয়োগ চলমান রয়েছে। এটা নিয়ে একটা জটিলতা হয়েছিল। অল্পদিনের মধ্যে আমরা এটা সম্পন্ন করতে পারব। মামলার কারণে নিয়োগে কিছুটা সমস্যা হয়েছে।’ মামলার কারণে নার্স নিয়োগও আটকে ছিল বলে তিনি জানান।

হাসপাতালে বেহাল অবস্থার অভিযোগের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সব এমপি তো হাসপাতালের চেয়ার। মেশিন চলে না। লোক লাগবে। এগুলো তো আপনাদের দেখতে হবে। কিন্তু আপনারা তো সেটা দেখেন না। নার্স, ডাক্তার বা যন্ত্রপাতি লাগলে তো আপনাদেরকেই বলতে হবে। শুধু অভিযোগ দিলে তো হবে না। যা যা প্রয়োজন আছে তার ব্যবস্থা করা হবে। কিন্তু চেয়ারম্যান হিসেবে এগুলো দেখার দায়িত্ব আপনাদের ওপর বর্তায়।’



সাতদিনের সেরা