kalerkantho

রবিবার । ১০ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৫ জুলাই ২০২১। ১৪ জিলহজ ১৪৪২

মগবাজারে বিস্ফোরণে দগ্ধ আরো একজনের মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক   

৩০ জুন, ২০২১ ১৪:১৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মগবাজারে বিস্ফোরণে দগ্ধ আরো একজনের মৃত্যু

রাজধানীর মগবাজারের ওয়্যারলেস গেট এলাকায়  বিস্ফোরণে দগ্ধ আরো একজনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতের নাম ইমরান হোসেন (২৫)। তাঁর শরীরের ৯০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছিল।

আজ বুধবার (৩০ জুন) সকাল সাড়ে ৬টায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান ইমরান। এই নিয়ে ওই ঘটনায় মোট ৯ জনের মৃত্যু হলো।

ইনস্টিটিউটের প্রধান সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, চিকিৎসাধীন অবস্থায় আইসিইউতে সকাল সাড়ে ৬টায় ইমরান নামে একজনের মৃত্যু হয়েছে। তাঁর শরীরের ৯০ শতাংশ দগ্ধ ছাড়াও শ্বাসনালী ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। প্রথম থেকেই আশঙ্কাজনক অবস্থায় আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিল ইমরান। সবশেষ আজ সকালে মারা গেলেন তিনি। এ ঘটনায় আরও চারজন বার্ন ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন। এর মধ্যে নুরুন্নবী ও রাসেলের অবস্থা সংকটাপন্ন।

ইমরানের বোন আইরিন জানান, রাজধানীর শান্তিনগর এলাকায় তাঁদের বাসা। ইমরান তাঁর স্ত্রীকে নিয়ে মগবাজার এলাকায় থাকতেন। ৩ বছর আগে তিনি বিয়ে করেন। তাঁদের কোনো সন্তান নেই।  দুই বছর ধরে ইমরান ওয়ারলেসে 'বেঙ্গল মিট' নামের মাংসের দোকানে সেলসম্যানের চাকরি করছিলেন। 

আইরিন আরো জানান, তিনি ঘটনার দিন সন্ধ্যায় খবর পান মগবাজার এলাকায় তাদের দোকানের পাশে বিস্ফোরণ হয়েছে। ইমরানকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। পরে বার্ন ইনস্টিটিউটে গিয়ে তাঁকে আহতাবস্থায় দেখতে পান তিনি।

গত রবিবার (২৭ জুন) সন্ধ্যায় এ ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে মগবাজারের ওয়্যারলেস গেট এলাকায় অবস্থিত 'রাখি নীড়' নামের একটি তিনতলা ভবন ধসে নারী ও শিশুসহ অন্তত সাতজন নিহত হন। পরে হাসপাতালে যান ইমরানসহ দুইজন। ওই ঘটনায় আহত হন ওই ভবনের বাসিন্দা, সামনের রাস্তায় থাকা বাসযাত্রী, পথচারীসহ শতাধিক।

বিস্ফোরণে রাখি নীড় ছাড়াও ক্ষতিগ্রস্ত হয় আশপাশের বেশ কয়েকটি ভবন, তিনটি যাত্রীবাহী বাসসহ বেশ কিছু যানবাহন। আহতদের ৩৯ জন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল ও বার্ন এবং শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ১৬, হলি ফ্যামিলিতে আহত দুইজন, আদ-দ্বীন হাসপাতালে আহত দুইজনসহ মোট ৬৪ জন চিকিৎসাধীন। 



সাতদিনের সেরা