kalerkantho

বুধবার । ২০ শ্রাবণ ১৪২৮। ৪ আগস্ট ২০২১। ২৪ জিলহজ ১৪৪২

আজ থেকে দেশে ফাইজারের টিকা দেওয়া শুরু, যারা পাবেন

অনলাইন ডেস্ক   

২১ জুন, ২০২১ ০৯:৩৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আজ থেকে দেশে ফাইজারের টিকা দেওয়া শুরু, যারা পাবেন

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে আজ থেকে দেশে প্রথমবারের মতো ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকা প্রদান শুরু হচ্ছে। সোমবার (২১ জুন) রাজধানীর তিনটি কেন্দ্রে ফাইজারের টিকা দেওয়া হবে। প্রতিদিন ১২০ জনকে দেওয়া হবে এ টিকা। সে ক্ষেত্রে যারা আগে থেকে নিবন্ধন করেছিলেন কিন্তু টিকা দিতে পারেননি, তারা অগ্রাধিকার পাবেন।

রবিবার (২০ জুন) করোনাবিষয়ক নিয়মিত স্বাস্থ্য বুলেটিনে এ তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের লাইন ডিরেক্টর ও টিকা বিতরণ কমিটির সদস্য অধ্যাপক শামসুল হক। প্রাথমিকভাবে যেসব কেন্দ্রে ফাইজারের টিকা দেওয়া হবে সেগুলো হলো- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ), শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতাল ও কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল।

শামসুল হক বলেন, টিকা দেওয়ার পর এক সপ্তাহ টিকাগ্রহীতাদের ওপর টিকার প্রতিক্রিয়া পর্যবেক্ষণ করা হবে। এরপর মূল্যায়নের পরিপ্রেক্ষিতে সেকেন্ড রান বা গণটিকা প্রদান শুরু হবে। সেকেন্ড রান যখন শুরু হবে, তখন হাসপাতালের সংখ্যা বাড়ানো হবে। যিনি প্রথম ডোজ হিসেবে ফাইজারের টিকা পাবেন, তাকে দ্বিতীয় ডোজ হিসেবেও সেটাই দেওয়া হবে।

তিনি আরো বলেন, ইতিমধ্যে কোভ্যাক্স থেকে এক লাখ ৬২০ ডোজ টিকা আমাদের হাতে এসেছে। আমরা এটিকে সংরক্ষণ করেছি। টিকা দেওয়ার জন্য গাইডলাইন এবং প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শেষ হয়েছে। আমরা আশা করি, সোমবার থেকে ফাইজারের টিকা কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছি।

১৮ বছরের ওপরের সবাইকে পর্যায়ক্রমে করোনাভাইরাসের টিকার আওতায় নিয়ে আসার উদ্দেশ্য সামনে রেখে সরকার গত ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে সারা দেশে গণটিকাদান কর্মসূচি শুরু করে। কিন্তু টিকার স্বল্পতার কারণে ২৬ এপ্রিল সরকার প্রথম ডোজ টিকাদান বন্ধের ঘোষণা দেয়। এর সপ্তাহখানেক পর একই কারণে সারা দেশের সবগুলো কেন্দ্রে দ্বিতীয় ডোজের টিকা দেওয়াও বন্ধ করে দেওয়া হয়।

ভারতে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় সেরাম ইনস্টিটিউট অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা সরবরাহে ব্যর্থ হলে, বাংলাদেশের টিকাদান কর্মসূচিতে প্রভাব পড়ে। চুক্তি অনুযায়ী, সেরাম থেকে ছয় মাসের মধ্যে বাংলাদেশের তিন কোটি ডোজ টিকা পাওয়ার কথা ছিল।

জানুয়ারিতে সেরাম প্রথম দফায় ৫০ লাখ ডোজ টিকা সরবরাহ করে। যার মধ্যে ওই মাসে মাত্র ২০ লাখ ডোজের একটি চালান ঢাকায় পৌঁছায়। এরপর সেরাম থেকে বাংলাদেশে টিকার আর কোনো চালান আসেনি। উপায় না পেয়ে সরকার অন্য দেশ থেকে টিকা কেনার চিন্তাভাবনা করে।

গত ১২ মে উপহার হিসেবে বাংলাদেশকে পাঁচ লাখ ডোজ সিনোফার্মের টিকা দেয় চীন। এরপর উপহারের এই টিকা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের দেওয়া শুরু করা হয়। এরপর গত ১৩ জুন বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর দুটি উড়োজাহাজ চীন থেকে আরো ছয় লাখ ডোজ সিনোফার্মার টিকা দেশে আনে। শনিবার থেকে এই টিকাও দেয়া শুরু হয়।

এছাড়া গত ৩১ মে বাংলাদেশে এক লাখ ছয় হাজার ডোজ ফাইজারের টিকা পৌঁছায়। ঢাকার বাইরে এই টিকা নেওয়ার সুবিধা পাওয়া সম্ভব না হওয়ায় ঢাকার তিনটি টিকাকেন্দ্রে এগুলো ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। আজ থেকে টিকাগুলোর প্রয়োগ শুরু হবে।



সাতদিনের সেরা