kalerkantho

শনিবার । ৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৪ জুলাই ২০২১। ১৩ জিলহজ ১৪৪২

গুগল মোবিলিটি রিপোর্টে বাংলাদেশ

স্বাভাবিকের চেয়ে দ্রুত ছুটছে জীবন

মেহেদী হাসান   

২১ জুন, ২০২১ ০৩:৩৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



স্বাভাবিকের চেয়ে দ্রুত ছুটছে জীবন

বাড়ছে করোনা সংক্রমণের হার। অন্যদিকে বাড়ছে মানুষের আনাগোনা, জীবন-জীবিকার তাগিদে ছোটাছুটি। কভিড-১৯ মহামারির সময় মানুষের চলাচল ও অবস্থান পর্যবেক্ষণের ভিত্তিতে তৈরি করা গুগল মোবিলিটি রিপোর্টে দেখা গেছে, বাংলাদেশে মানুষের ছোটাছুটি ‘স্বাভাবিক’ পরিস্থিতির চেয়েও বেশি।

গত বছরের ৩ জানুয়ারি থেকে ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত পাঁচ সপ্তাহে মানুষের জীবনযাত্রা পর্যবেক্ষণ করে একটি মানদণ্ড নির্ধারণ করা হয়েছিল। গত বছর এপ্রিল ও মে মাসের দিকে সেই মানদণ্ডের চেয়ে অনেক কমে গিয়েছিল গণপরিবহন, কর্মক্ষেত্র, বিনোদনকেন্দ্র, বিপণিবিতানে উপস্থিতি। অন্যদিকে বেড়েছিল ওষুধের দোকান ও বাড়িতে উপস্থিতির সময়। কিন্তু বছর দেড়েক পর সেই চিত্র প্রায় পুরোপুরি বদলে গেছে।

গত ১৬ জুন প্রকাশিত গুগল মোবিলিটি রিপোর্টের তথ্য অনুযায়ী, রেস্তোরাঁ, ক্যাফে, বিপণিবিতানের মতো স্থানগুলোতে লোকজনের উপস্থিতি এখন বেইসলাইনের (স্বাভাবিকের) চেয়েও ২৩ শতাংশ বেশি। স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে লোকজন এখন ৫৩ শতাংশ বেশি সময় কাটাচ্ছে খাবারের দোকান ও ফার্মেসিতে। পার্ক বা খোলা জায়গায় মানুষের কাটানো সময়ের পরিমাণ স্বাভাবিকের চেয়ে ২৫ শতাংশ বেশি। বেড়েছে গণপরিবহনে লোকজনের উপস্থিতি।

গুগল মোবিলিটি রিপোর্ট অনুযায়ী, গত সপ্তাহে লোকজন স্বাভাবিকের চেয়ে ৩২ শতাংশ বেশি সময় কাটিয়েছে গণপরিবহনে। কর্মক্ষেত্রে লোকজনের উপস্থিতিও বেড়েছে। বর্তমানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছাড়া অফিস-আদালত প্রায় সবই খোলা। গুগল মোবিলিটি রিপোর্ট অনুযায়ী, গত সপ্তাহে লোকজন যে পরিমাণ সময় কর্মক্ষেত্রে কাটিয়েছে, তা স্বাভাবিকের চেয়ে ১৪ শতাংশ বেশি। গত বছর এপ্রিল-মে মাসের দিকে এই হার ছিল স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক কম।

লোকজনের বাড়িতে অবস্থানের সময় এখনো কিছুটা বেশি আছে। গত সপ্তাহে তা ছিল স্বাভাবিকের চেয়ে ৬ শতাংশ বেশি। গত বছর লকডাউনের প্রথম দিকে তা আরো অনেক বেশি ছিল।  ইন্টারনেটভিত্তিক সেবা ও পণ্যের জন্য বিশেষায়িত আমেরিকান বহুজাতিক কম্পানি গুগল তার ব্যবহারকারীদের অবস্থানসংক্রান্ত তথ্য নিয়েই ‘মোবিলিটি রিপোর্ট’ তৈরি করেছে। বিশেষ করে গুগলের সেবা ব্যবহারকারীদের যারা তাদের ভৌগোলিক অবস্থান উন্মুক্ত করে রেখেছে, তাদের কাছ থেকেই তথ্য নিয়ে তাদের জীবনযাপনের বর্তমান ধারা বিশ্লেষণ করা হয়েছে।

গুগল বিশ্বব্যাপী দেশভিত্তিক মোবিলিটি রিপোর্ট তৈরির উদ্যোগ নিয়েছিল কভিড মহামারি মোকাবেলায় সহযোগিতার অংশ হিসেবে। মহামারি ঠেকাতে জনসমাগম কমানোর উদ্যোগ নেওয়ার ক্ষেত্রে কোন দেশ কতটা সফল, তা বিশ্লেষণেও এ ধরনের তথ্য-উপাত্ত ব্যবহার করা হয়।

গত বছর এপ্রিল মাসে এক বিশ্লেষণে জনবহুল দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে বেছে নেওয়া হয়েছিল। সেখানে দেখা গিয়েছিল, অফিস-আদালত কার্যত বন্ধ বা সীমিত পরিসরে চললেও লোকজনের ঘরের বাইরে বের হওয়া ঠেকানো যায়নি, অর্থাৎ অফিস বন্ধ থাকলেও লোকজন ঘরে বসে ছিল এমনটি নয়।



সাতদিনের সেরা