kalerkantho

রবিবার । ১০ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৫ জুলাই ২০২১। ১৪ জিলহজ ১৪৪২

শারীরিক উপস্থিতিতে নিম্ন আদালতে বিচার শুরু, প্রথমদিন উপস্থিতি কম

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ জুন, ২০২১ ১৯:৪৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শারীরিক উপস্থিতিতে নিম্ন আদালতে বিচার শুরু, প্রথমদিন উপস্থিতি কম

সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী রবিবার থেকে পুরোদমে সারা দেশের অধস্তন আদালতে শারীরিক উপস্থিতিতে বিচার কাজ শুরু হয়েছে। তবে শনিবার মধ্যরাতের কাছাকাছি সময়ে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা জারি করায় এর প্রভাব দেখা গেছে আদালত কার্যক্রমে। ফলে নিম্ন আদালতে আইনজীবী আর বিচারপ্রার্থীর উপচেপড়া ভীড় ছিল না। তবে ভার্চুয়াল শুনানির তুলনায় কিছুটা বাড়তি উপস্থিতি ছিল। রবিবার শুধুমাত্র জামিন শুনানি হয়েছে আসামি আর আইনজীবীর শারীরিক উপস্থিতিতে। অন্যান্য ক্ষেত্রে আদালত দিন ধার্য করে আদেশ দিয়েছেন। আইনজীবীরা বলছেন, দু’একদিন পর আগের চেহারায় দেখা যেতে পারে নিম্ন আদালত। দুই মাস পর বিচার কার্যক্রম স্বাভাবিক হওয়ায় আইনজীবীদের মাঝেও উচ্ছাস দেখা গেছে৷

ঢাকা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক খোন্দকার মো. হযরত আলী কালের কণ্ঠকে বলেন, 'আদালত খুলে দেওয়ার জন্য আইনজীবীদের দাবি ছিল। আদালত বন্ধ থাকায় আইনজীবীরা একটা খারাপ অবস্থার ভেতরে ছিল। এতে শুধু আইনজীবীরা ক্ষতিগ্রস্ত না, বিচারপ্রার্থীরাও সমান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এখন শারীরিক উপস্থিতিতে বিচার কাজ শুরু হওয়ায় আদালত কার্যকম স্বাভাবিক হয়ে যাবে। এজন্য সবাই উপকৃত হবে।'

আইনজীবী নয়ন মিয়া বলেন, 'আদালতে স্বাভাবিক বিচারকাজ বন্ধ থাকায় মামলার জট বাড়ার পাশাপাশি বিচারপ্রার্থীদের ভোগান্তি ও হয়রানিও চরমে পৌঁছেছিল। এখন আদালত খুলে দেওয়ায় সব স্বভাবিক হয়ে যাবে।'

অ্যাডভোকেট খাদেমুল ইসলাম জানান, ঢাকার আদালত স্বভাবিক অবস্থায় ফেরেনি। তবে গত সপ্তাহের অন্যান্য দিনের তুলনায় আজ(রবিবার) আইনজীবী ও বিচারপ্রার্থীদের উপস্থিতি কিছুটা বেড়েছে। এর কারণ সুপ্রিম কোটের্ল নির্দেশনা অনুযায়ী আজ আসামিদের উপস্থিতিতেই জামিন আবেদনের শুনানি হয়েছে। একারণে জামিন আবেদনকারী ও আইনজীবীদের উপস্থিতি দেখা গেছে। তিনি জানান, ঢাকার আদালত পাড়ার উপচেপড়া ভীড় দেখতে হলে কয়েকদিন অপেক্ষা করতে হবে।

শারীরিক উপস্থিতিতে নিম্ন আদালতে সকল বিচার কাজ পরিচালনার বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল মো. আলী আকবরের স্বাক্ষরে শনিবার রাতে নির্দেশনা জারি করা হয়। তবে যেসব এলাকায় স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে সেসব এলাকায় ভার্চুয়ালি বিচার কাজ পরিচালনা করতে বলা হয়েছে।

করোনা সংক্রমন বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে গত ৫ এপ্রিল থেকে সারা দেশে নিম্ন আদালতে স্বাভাবিক বিচার কাজ বন্ধ ঘোষনা করে সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন। পরবর্তীতে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নির্দেশে গত ১২ এপ্রিল সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন পৃথক এক আদেশে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত আসামিদের কারাগারে রেখেই ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভার্চুয়ালি জামিন ও রিমান্ড শুনানি করতে দেশের সকল অধস্তন আদালত ও ট্রাইব্যুনালের বিচারকদের প্রতি নির্দেশ দেওয়া হয়। পরবর্তীতে ধাপে ধাপে কিছু কিছু আদালতের বিচারিক এখতিয়ার দিয়ে আদেশ জারি করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় আগের মতোই স্বাভাবিক করে দেওয়া হলো নিম্ন আদালত। তবে এক্ষেত্রে গতবছর ৩০ জুলাই হাইকোর্ট বিভাগের জারি করা বিজ্ঞপ্তিতে বর্ণিত আদালত প্রাঙ্গণ এবং এজলাস কক্ষে সুরক্ষামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ সংক্রান্ত নিদের্শনা প্রতিপালনের জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।



সাতদিনের সেরা