kalerkantho

শনিবার । ৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৪ জুলাই ২০২১। ১৩ জিলহজ ১৪৪২

গাজীপুর-টঙ্গী-ঢাকা রুটে চলছে ৩ জোড়া বিশেষ ট্রেন

জনগণের ভোগান্তি কমবে

অনলাইন ডেস্ক   

২০ জুন, ২০২১ ০৮:৩৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গাজীপুর-টঙ্গী-ঢাকা রুটে চলছে ৩ জোড়া বিশেষ ট্রেন

ফাইল ছবি।

গাজীপুরের জয়দেবপুর রেলস্টেশন থেকে ঢাকার কমলাপুর স্টেশন পর্যন্ত বিশেষ ট্রেন সার্ভিস চলাচল শুরু হয়েছে আজ। ফলে ৩-৪ ঘণ্টার পরিবর্তে মাত্র এক ঘণ্টায়ই ঢাকা-গাজীপুর আসা-যাওয়া করতে পারছেন যাত্রীরা। ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ১২ কিলোমিটার সড়কে অব্যাহত যানজটের কারণে মানুষের দুর্ভোগের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে এ উদ্যোগ নিয়েছে রেলপথ মন্ত্রণালয়।

রবিবার (২০ জুন) সকাল থেকে ঢাকা-গাজীপুর রুটে চলাচল শুরু করেছে তিন জোড়া বিশেষ ট্রেন৷

এর মধ্যে তুরাগ এক্সপ্রেস ভোর ৫টায় কমলাপুর থেকে ছেড়ে জয়দেবপুর পৌঁছেছে সকাল ৬টায়। সেটিই আবার জয়দেবপুর থেকে নারায়ণগঞ্জের উদ্দেশ্যে ছেড়ে এসেছে সকাল সোয়া ৭টায়৷ দ্বিতীয়টি টাঙ্গাইল কমিউটার বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থেকে সকাল ৬টা ৪০ মিনিটে ছেড়ে জয়দেবপুর পৌঁছেবে সকাল ৮টা ২০ মিনিটে। যেটি ঢাকার উদ্দেশে রওনা হবে ৮টা ৩০ মিনিটে।

এরপর কালিয়াকৈর কমিউটার ট্রেন কমলাপুর থেকে ছাড়বে দুপুর পৌনে ২টায়। সেটি আবার জয়দেবপুর থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছাড়বে বিকেল সাড়ে ৫টায়।

অনেক দিন ধরেই ঢাকা-গাজীপুর মহাসড়কের পথে চলাচল করা মানুষের কাছে একটি নিত্যভোগান্তির নাম। সব সময়ই লেগে থাকে যানজট। এবারের বর্ষা শুরু হতেই, বড় বড় খানাখন্দে বৃষ্টির পানি জমে যাওয়ায় সড়কটিতে গাড়ি চলাচল করছে মন্থর গতিতে। এতে সড়কের দুই পাশেই তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। নতুন এই ট্রেন সার্ভিস চালুর ফলে জনগণের ভোগান্তি অনেকটাই কমবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এর আগে গত ১৬ জুন বিশেষ ট্রেন চালুর সুখবরটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক পোস্টের মাধ্যমে জানান গাজীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। এ বিষয়ে মন্ত্রী ফেসবুকে লেখেন, ‘এই দুর্ভোগের হাত থেকে মানুষদের কিছুটা হলেও রক্ষা করতে আজ (১৬ জুন) রাতে মাননীয় রেলমন্ত্রী মহোদয়ের সঙ্গে কথা বলে আগামী রবিবার থেকে গাজীপুর থেকে টঙ্গী হয়ে ঢাকা এবং ঢাকা থেকে টঙ্গী হয়ে গাজীপুর পর্যন্ত বিশেষ ট্রেন সার্ভিস চালু করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। মাননীয় রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন মহোদয়ের প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি। জনগণের দুর্ভোগ লাগবে আমার পক্ষ থেকে ভবিষ্যতেও সব ধরনের উন্নয়ন প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।’

এর আগে তিনি আরো লেখেন, ‘গাজীপুর চৌরাস্তা থেকে এয়ারপোর্ট পর্যন্ত রাস্তাটিকে যানজটমুক্ত করার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বিআরটি প্রজেক্ট আমাদেরকে উপহার হিসেবে দিয়েছেন। কিন্তু ঠিকাদারদের ক্রমাগত দায়িত্বজ্ঞানহীনতার কারণে অনেক বছর ধরে ধীরগতিতে কাজ করায় মানুষের দুর্ভোগের কোনো সীমা নেই। আবার যখন বর্ষাকাল আসে এই দুর্ভোগ কয়েক গুণ বৃদ্ধি পায়।’

‘বিআরটি প্রজেক্টে দায়িত্ব পালনরত সচিব, পিডিসহ সবাইকে প্রায় প্রতিদিনই কয়েকবার করে ফোন করছি, যাতে টঙ্গী-গাজীপুরবাসীসহ এই সড়ক দিয়ে যাতায়াতকারী প্রায় ৩৭টি জেলার মানুষের এই দুর্ভোগের হাত থেকে দ্রুত রক্ষা করা যায়। সিটি করপোরেশন, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ, জেলা প্রশাসনসহ সবাই আন্তরিকভাবে চেষ্টা করছেন। উপরন্তু গাজীপুর যাওয়ার সব বিকল্প রাস্তাগুলোতে একসঙ্গে কাজ চলমান থাকায়, সেই রাস্তাগুলো বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করতে না পারায় এই দুর্ভোগ যেন আরো বেড়ে গেছে।’

এরপর তিনি আগামী রবিবার থেকে বিশেষ ট্রেন সার্ভিস চালুর ঘোষণা দিয়ে রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজনের প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। তিনি বলেন, ‘জনগণের দুর্ভোগ লাগবে আমার পক্ষ থেকে ভবিষ্যতেও সব ধরনের উন্নয়ন প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।’



সাতদিনের সেরা