kalerkantho

রবিবার । ১০ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৫ জুলাই ২০২১। ১৪ জিলহজ ১৪৪২

গাজীপুরের যানজটে রাজধানীও অচল

নিজস্ব প্রতিবেদক গাজীপুর ও ঢাকা    

১৬ জুন, ২০২১ ০৩:০৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গাজীপুরের যানজটে রাজধানীও অচল

রাজধানীর বেশির ভাগ সড়কে তীব্র যানজট ছিল গতকাল। উত্তরার জসীমউদ্দীন এলাকার চিত্র।

গাজীপুরে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে দীর্ঘ যানজট রাজধানীর বিমানবন্দর সড়ককেও স্থবির করে দিয়েছিল গতকাল মঙ্গলবার। আগের রাত থেকে বৃষ্টি শুরু হওয়ায় মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে পানি জমে যায়। এ ছাড়া গাজীপুর থেকে রাজধানীর আব্দুল্লাহপুর পর্যন্ত বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) প্রকল্পের কাজের কারণে সড়কের বিভিন্ন স্থানে খানাখন্দ তৈরি হওয়ায় গতকাল সকাল থেকে যানজটের সৃষ্টি হয়।

এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে গাজীপুর থেকে আব্দুল্লাহপুর পর্যন্ত ১৩ কিলোমিটার অংশে যানজট ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। মাত্র ২০ মিনিটের পথ যেতে সময় লেগে যাচ্ছে সাত-আট ঘণ্টা।

গতকাল দুপুরে বোর্ডবাজারে কথা হয় ঢাকা-হালুয়াঘাট রুটে চলাচলকারী আলম এশিয়া পরিবহনের চালক ফারুক হোসেনের সঙ্গে। ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘শুধু আজ নয়, প্রতিদিনই একই অবস্থা চলছে।’ তিনি বলেন, গাজীপুর চৌরাস্তা থেকে আব্দুল্লাহপুর পর্যন্ত ১৩ কিলোমিটার সাত-আট ঘণ্টায়ও যেতে পারছেন না। অথচ সড়ক ভালো থাকলে ২০ মিনিটের বেশি লাগার কথা নয়।

গতকাল দুপুর পর্যন্ত গাজীপুরের যানজট রাজধানীর বনানী পর্যন্ত পৌঁছায়। এর প্রভাব পড়ে মহাখালী, বারিধারা, ফার্মগেটসহ আশপাশের আরো কিছু এলাকায়।  ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ ট্রাফিকের (উত্তর) যুগ্ম কমিশনার আবু রায়হান মোহাম্মদ সালেহ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘গাজীপুরের ওই পাশের সড়কের অবস্থা খুবই খারাপ। বৃষ্টিতে আরো বাজে অবস্থা তৈরি হয়েছে। টঙ্গীর চেরাগ আলী আর মুন্নু সিরামিক এই দুই জায়গা পার হওয়ার কোনো সুযোগই নেই। ওখানে গেলে রিকশার চেয়েও ধীরগতিতে গাড়ি চলে। যেহেতু ওই রোডে এই পাশের গাড়ির একটা চাপ আছে, তাই ওই রোড ক্লিয়ার না হওয়ায় এখানে চাপ বেড়েছে। তবে সন্ধ্যার পর থেকে অবস্থা স্বাভাবিক হয়ে এসেছে।’

দ্রুত সময়ে রাজধানীতে যাতায়াত নিশ্চিত করতে হযরত শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে গাজীপুরের শিববাড়ী পর্যন্ত (বিআরটি) আলাদা লেন। বিকল্প সড়ক নির্মাণ, সংযোগ সড়ক ও পানি নিষ্কাশনের জন্য নালা করার বিষয়টি প্রকল্পে রয়েছে। কিন্তু কাজ শুরুর পর থেকেই প্রকল্প কর্মকর্তা ও চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে দায়িত্বহীনতার অভিযোগ ওঠে। এখনো নির্মাণ করা হয়নি বিকল্প সড়ক।

টঙ্গীর স্টেশন রোড, চেরাগ আলী, সাতাইশ, গাজীপুরা, তারগাছ, বোর্ডবাজার, চৌধুরীবাড়ী, ঢাকা বাইপাস মোড় ও ভোগড়া এলাকায় সড়কে খানাখন্দ বেশি। বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতার কারণেও যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে সৃষ্টি হচ্ছে যানজট।

গাজীপুর মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (ট্রাফিক উত্তর) আব্দুল্লাহ আল মামুন কালের কণ্ঠকে বলেন, টঙ্গী ব্রিজ থেকে গাজীপুরা পর্যন্ত সড়ক খানাখন্দে ভরা। বৃষ্টি হলে পানি জমে যায়। কিন্তু নিষ্কাশনের কোনো ব্যবস্থা নেই। পানি নিষ্কাশনে সহায়তার জন্য বিআরটি প্রকল্পের কাউকে পাওয়া যায় না। আবার অনেক সময় আব্দুল্লাহপুর-আশুলিয়া সড়কের যানজটের চাপ এই সড়কেও এসে পড়ে।

বিআরটি প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী এ এস এম ইলিয়াস শাহ বলেন, ‘প্রকল্প শুরুর আগে বিকল্প সড়ক নির্মাণের সুযোগ না থাকায় করা যায়নি। কাজ করতে হলে খোঁড়াখুঁড়ির বিকল্প নেই। দু-একটি স্থানে নির্মাণকাজের জন্য সামান্য প্রতিবন্ধকতা তৈরি হয়েছে। আমরা এসব স্থানে দ্রুত কাজ করছি। চলতি মাসেই এ কাজ শেষ হলে আশা করছি আর যানজট হবে না।’



সাতদিনের সেরা