kalerkantho

শুক্রবার । ৮ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৩ জুলাই ২০২১। ১২ জিলহজ ১৪৪২

অপদ্রব্য পুশ করায় চিংড়ি রপ্তানি হুমকিতে, অভিযানে পুলিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৪ জুন, ২০২১ ১৫:৪০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অপদ্রব্য পুশ করায় চিংড়ি রপ্তানি হুমকিতে, অভিযানে পুলিশ

একের পর এক অভিযান সত্ত্বেও দেশের অন্যতম রপ্তানি পণ্য চিংড়িতে অপদ্রব্য পুশ থামছে না। ফলে হুমকির মুখে পড়েছে হিমায়িত চিংড়ি রপ্তানি শিল্প। এই অবস্থায় অপদ্রব্য পুশ বন্ধ করে চিংড়ির রপ্তানি বাণিজ্য রক্ষায় মাঠে নেমেছেন পুলিশ। খুলনা জেলার পাইকগাছায় অভিযান চালিয়ে অপদ্রব্য পুশ করা চিংড়িসহ একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, খুলনা অঞ্চলে কয়েকটি অভিযান চালিয়ে কয়েক লাখ টাকার পুশকৃত বাগদা ও গলদা চিংড়ি জব্দ করেছে প্রশাসন। সিলগালা করেছে ডিপোগুলোকে এবং উদ্ধার করেছে পুশ করা সিরিঞ্জ, জেলি, জেলি জ্বালানো গ্যাসের চুলা ও হাঁড়িপাতিল। তার পরও এই অপকর্ম বন্ধ হয়নি। চিংড়িতে পুশ করে বাজারজাতের মাধ্যমে অসাধু সিন্ডিকেট রাতারাতি কোটি টাকার মালিক বনে যাচ্ছে। আর প্রকৃত ব্যবসায়ীরা হতাশ হয়ে পড়ছেন। বিদেশিদের কাছে দেশের সুনাম নষ্ট হচ্ছে। শুধু বিদেশের বাজারে নয়, দেশের অভিজাত হোটেল-রেস্তোরাঁয়ও পুশকৃত চিংড়ি সরবরাহ হচ্ছে। যে কারণে পুলিশের পক্ষ থেকে অভিযান শুরু করা হয়েছে।

এ বিষয়ে পাইকগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এজাজ শফী সাংবাদিকদের জানান, গত শুক্রবার রাত ১২টার দিকে উপজেলার লস্কর ইউনিয়নের খড়িয়া খালপাড় পূর্বপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে চিংড়িতে অপদ্রব্য পুশ করার সময় হাবিবুর রহমান সানার ছেলে রবিউল ইসলামকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করা হয়। সে দীর্ঘদিন ধরে চিংড়িতে তরল পদার্থ পুশ করে ওজন বাড়িয়ে বিক্রি করে আসছিল। অভিযানের সময় উপজেলার জ্যেষ্ঠ মৎস্য কর্মকর্তা পবিত্র কুমার দাস উপস্থিত ছিলেন। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে।

ওই পুলিশ কর্মকর্তা আরো জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ একটি অসাধু চক্র বেশি লাভের আশায় ওজন বাড়াতে চিংড়িতে অপদ্রব্য পুশ করে আসছে। এই পুশ করার কারণে বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হচ্ছে। যা রপ্তানিতেও প্রভাব ফেলছে। তাই ওই সব অসাধু ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে সর্বাত্মক অভিযান চালানো হচ্ছে। অপকর্মের সঙ্গে জড়িত কেউ ছাড় পাবে না বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

উল্লেখ্য, বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের দ্বিতীয় বৃহত্তম খাত হিমায়িত চিংড়ি রপ্তানি শিল্পের সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রায় দেড় কোটি লোক জড়িত। রপ্তানির বেশির ভাগ বৃহত্তর খুলনা অঞ্চলের। এ অঞ্চলে প্রায় ৩০টি হিমায়িত চিংড়ি রপ্তানিকারী প্রতিষ্ঠান রয়েছে। বাকি ১০টি চট্টগ্রাম অঞ্চলে।



সাতদিনের সেরা