kalerkantho

মঙ্গলবার । ৮ আষাঢ় ১৪২৮। ২২ জুন ২০২১। ১০ জিলকদ ১৪৪২

আদেশ আজ

পাপুলের এমপি পদ বাতিলের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ জুন, ২০২১ ০৩:৪৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পাপুলের এমপি পদ বাতিলের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট

কুয়েতের আদালতে কারাদণ্ডপ্রাপ্ত লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মোহাম্মদ কাজী শহিদ ইসলাম পাপুলের সংসদ সদস্য পদ বাতিলের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে তাঁর বোন নুরুন্নাহার বেগম হাইকোর্টে রিট দায়ের করেছেন।

গতকাল সোমবার বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লার হাইকোর্ট বেঞ্চ শুনানি শেষে আদেশের জন্য মঙ্গলবার দিন ধার্য করেন। পাপুলের বোন নুরুন্নাহার বেগম গত মার্চে এ রিট আবেদন করেন। আগামী ২১ জুন ওই আসনে উপনির্বাচন। এ অবস্থায় হাইকোর্টে ওই রিট আবেদনের শুনানি করা হয়।

লক্ষ্মীপুর-২ আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য শহিদ ইসলাম পাপুলের সদস্য পদ বাতিল করে এবং ওই আসন শূন্য ঘোষণা করে জাতীয় সংসদ সচিবালয় গত ২২ ফেব্রুয়ারি গেজেট জারি করে। এই গেজেটের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে গত মার্চে রিট আবেদন করা হয়।

রিট আবেদনকারীর আইনজীবী ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান খান কালের কণ্ঠকে বলেন, পাঁচটি যুক্তিতে এই রিট আবেদন করা হয়। এর মধ্যে অন্যতম হলো সংবিধানের ৬৬ ও ৬৭ অনুচ্ছেদ, জাতীয় সংসদের কার্যপ্রণালী বিধির ১৯২ ও ১৯৬ ধারা এবং তৃতীয় তফসিল একসঙ্গে পড়ে ও পর্যালোচনা করে এটা স্পষ্টত বলা যায় যে সাজার বিরুদ্ধে আপিল বিচারাধীন থাকাবস্থায় সদস্য পদ বাতিলের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া যাবে না।

তিনি বলেন, ‘আইন অনুযায়ী কুয়েতের আদালত থেকে রায়ের বিষয়ে আমাদের জাতীয় সংসদের স্পিকারকে জানাতে হবে। আমাদের জানা মতে, কুয়েতের আদালত থেকে পাপুলের বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি। আর আমাদের সংবিধানে যে আদালতের কথা বলা হয়েছে, তা বাংলাদেশের আদালত। বিদেশি আদালত নয়। এ ছাড়া একজন সংসদ সদস্যের সদস্য পদ বাতিল করতে হলে যেসব আইনি প্রক্রিয়া অনুসরণ করতে হয়, তা এখানে করা হয়নি। শুনানিতে এসব বিষয়ে বিভিন্ন যুক্তি, নজির ও আইন তুলে ধরা হয়েছে।’

শুনানিতে রাষ্ট্রপক্ষ থেকে বলা হয়, নৈতিক স্খলনজনিত অপরাধে সংবিধানের ৬৬(২)(ঘ) পাপুলের সংসদ সদস্য পদ বাতিল করা হয়েছে। সংবিধানে আদালতের রায়ের কথা বলা হয়েছে। বিদেশের আদালতে সাজা হলে বাতিল হবে না—এমন কিছু বলা হয়নি। আর যিনি এই রিট আবেদন করেছেন, তাঁর রিট আবেদন করার এখতিয়ার নেই। এ ক্ষেত্রে তিনি কোনো সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি নন। তাই এই রিট আবেদন গ্রহণযোগ্য নয়।

গত বছর ৬ জুন কুয়েতের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) পাপুলকে কুয়েতে গ্রেপ্তার করে। সেই থেকে পাপুল কুয়েতের কারাগারে বন্দি। এ অবস্থায় গত ২৮ জানুয়ারি পাপুলকে চার বছরের কারাদণ্ড দেন কুয়েতের আদালত। ওই রায়ের কপি হাতে পাওয়ার পর পাপুলের আসন শূন্য ঘোষণা করা হয়।



সাতদিনের সেরা