kalerkantho

মঙ্গলবার । ৮ আষাঢ় ১৪২৮। ২২ জুন ২০২১। ১০ জিলকদ ১৪৪২

বেগমগঞ্জে নারী নির্যাতনের ভিডিও ভাইরালের ঘটনায় হাইকোর্টে শুনানি

ধর্ষণের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার প্রবণতা মহামারি আকার ধারণ করেছে: হাইকোর্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ জুন, ২০২১ ১৫:২২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বেগমগঞ্জে নারী নির্যাতনের ভিডিও ভাইরালের ঘটনায় হাইকোর্টে শুনানি

নারী ও শিশু ধর্ষণের পর ভিডিও ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার প্রবণতা মহামারি আকার ধারণ করেছে। অথচ এসব ঘটনার বিচারের জন্য দেশে পর্নোগ্রাফী আইন রয়েছে। আদালত প্রশ্ন রেখে বলেন, এই আইনে কি এখন পর্যন্ত কোনো দৃষ্টান্তমূলক সাজা হয়েছে?

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে এক নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ভিডিও ছড়িয়ে পড়ার (ভাইরাল হওয়া) প্রেক্ষাপটে জারি করার রুলের ওপর শুনানিতে এ মন্তব্য করেন হাইকোর্ট। বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লার হাইকোর্ট বেঞ্চে গতকাল বৃহষ্পতিবার এই শুনানি শুরু হয়েছে। শুনানি অসমাপ্ত থাকায় আগামী ১০ জুন পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে। গতকাল আদালতে আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার অনিক আর হক। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার নওরোজ মো. রাসেল এবং সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার আশিক রুবাইয়াত, ব্যারিস্টার সারোয়ার পায়েল। এছাড়াও বিষয়টি আদালতের নজরে আনা আইনজীবী অ্যাডভোকেট আবদুল্লাহ আল মামুন উপস্থিত ছিলেন।

গতবছর ২ সেপ্টেম্বরের নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে এক নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ঘটনার ভিডিও ফেইসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। এরপর ওই নারীকে উদ্ধার করে নিজেদের হেফাজতে নেয় স্থানীয় পুলিশ। এ ঘটনা নজরে আনার পর হাইকোর্ট গতবছর ৫ অক্টোবর এক আদেশে ভিডিওটি অবিলম্বে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে সরিয়ে ফেলতে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রন কমিশনকে(বিটিআরসি) নির্দেশ দেন। একইসঙ্গে ওই ঘটনায় করা মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত নির্যাতিতা নারী ও তার পরিবারকে নিরাপত্তা দিতে নোয়াখালীর এসপির প্রতি নির্দেশ দেওয়া হয়। আদালত মোট ৫ দফা নির্দেশনা দেন। আদালত অন্তবর্তীকালীন নির্দেশনার পাশাপাশি রুল জারি করেন আদালত।

রুলে ওই নারীকে রক্ষায় এবং দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে অবহেলার কারণে বেগমগঞ্জ থানার ওসি এবং ওই থানার সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ও বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না তা জানতে চাওয়া হয়। এই রুলের ওপর গতকাল শুনানি শুরু হয়েছে।



সাতদিনের সেরা