kalerkantho

বুধবার । ৯ আষাঢ় ১৪২৮। ২৩ জুন ২০২১। ১১ জিলকদ ১৪৪২

শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলা, হাইকোর্টে হাবিবের আপিল শুনানি চায় রাষ্ট্রপক্ষ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৬ মে, ২০২১ ১৬:১৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলা, হাইকোর্টে হাবিবের আপিল শুনানি চায় রাষ্ট্রপক্ষ

১৯ বছর আগে ২০০২ সালে সাতক্ষীরায় তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় সাজাপ্রাপ্ত সাবেক সংসদ সদস্য হাবিবুল ইসলাম হাবিবের করা আপিল দায়রা জজ আদালতের পরিবর্তে হাইকোর্টে শুনানি করতে চায় রাষ্ট্রপক্ষ। এজন্য রাষ্ট্রপক্ষ হাইকোর্টে আবেদন করেছে। বৃহস্পতিবার এবিষয়ে আদেশ দেবেন বিচারপতি শেখ মো. জাকির হোসেন ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চ।

যশোর-সাতক্ষীরা সড়কে সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে ২০০২ সালের ৩০ আগস্ট শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলার ঘটনা ঘটে। এঘটনায় করা মামলায় তদন্ত শেষে সাবেক সংসদ সদস্য হাবিবুল ইসলামসহ ৫০ জনের বিরুদ্ধে ২০১৫ সালে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ। আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগে বলা হয়, শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে এই হামলা হয়েছে। এ মামলায় বিচার শেষে সাতক্ষীরার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত গত ৪ ফেব্রুয়ারি সকল আসামিকে (৫০ জন) সাজা দিয়ে রায় দেন।

রায়ে হাবিবুল ইসলামসহ তিনজনকে কয়েকটি ধারায় ১০ বছরের কারাদণ্ড দেন। বাকি ৪৭ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে (৫ বছরের কম) দণ্ড দেওয়া হয়। এই সাজার বিরুদ্ধে সাতক্ষীরার জেলা দায়রা জজ আদালতে আপিল করেন হাবিবসহ অপরাপর আসামিরা। এবিষয়ে আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করেছেন ওই আদালত।

এ অবস্থায় দায়রা জজ আদালতের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে গত ২৫ মে মঙ্গলবার হাইকোর্টে রিভিশন আবেদন করেছে রাষ্ট্রপক্ষ। আবেদনে দায়রা জজ আদালতের পরিবর্তে হাইকোর্টে শুনানি করার নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে। রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মনিরুল ইসলামের বক্তব্য, আইন অনুযায়ী সাতবছরের বেশি সাজা হলে তার আপিল শুনানি হবে হাইকোর্টে। তবে হাবিবের আইনজীবী ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকনের দাবি, এই মামলায় ৫টি ধারায় হাবিবুল ইসলামের সাজা হয়েছে। একটি ধারার সাজা ভোগের পর অন্য ধারার সাজা কার্যকর হবে। একারণে সবমিলে ১০ বছরের সাজা হয়েছে। তার মূল সাজা ৫ বছরের বেশি নয়। একারণে দায়রা জজ আদালতেই বিচার হবে। আদালত শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার আদেশের জন্য দিন ধার্য করেছেন।



সাতদিনের সেরা