kalerkantho

শনিবার । ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১২ জুন ২০২১। ৩০ শাওয়াল ১৪৪২

ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’: পানি জমলেও ক্ষতি হয়নি চট্টগ্রাম বন্দরের

অনলাইন ডেস্ক   

২৬ মে, ২০২১ ১৬:০৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’: পানি জমলেও ক্ষতি হয়নি চট্টগ্রাম বন্দরের

ফাইল ফটো

ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’-এর প্রভাবে কোনো ক্ষতি হয়নি দেশের প্রধান চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরের। ঘূর্ণিঝড়ের পর প্রায় স্বাভাবিকভাবেই চলেছে বন্দরের কার্যক্রম।

আজ বুধবার দুপুর ১২টার দিকে ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে বন্দরের কন্টেইনার ইয়ার্ডে কিছু পানি জমলেও ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই তা নেমে যায়। এতে কন্টেইনারের মালামালে কোনো ধরনের ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বলে দাবি করেছে বন্দর কর্তৃপক্ষ।

চট্টগ্রাম বন্দর সূত্র জানিয়েছে, ঘূর্ণিঝড়ের খবর পেয়েই কয়েকদিন আগে থেকে যাবতীয় প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হয়েছিল। ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় একটি নিয়ন্ত্রণ কক্ষও চালু করা হয়।

আজ দুপুরে পূর্ণিমার জোয়ার ও ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে কনটেইনার ইয়ার্ডে হালকা পানি জমেছিল। তবে সেটি ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই নেমে যায়।

এদিকে আজ দুপুরে ইয়াস সম্পর্কিত ১৮ নম্বর বিশেষ বুলেটিনে আবহাওয়া অধিদফতর জানিয়েছে, অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৮৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১৩০ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়া আকারে ১৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের কাছে সাগর খুবই বিক্ষুব্ধ রয়েছে। বুলেটিনে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সঙ্কেত দেখাতে বলা হয়েছে।

এতে বলা হয়, ইয়াস ও পূর্ণিমার প্রভাবে খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, ঝালকাঠি, পিরোজপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, ভোলা, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর ও চট্টগ্রাম জেলাগুলোর নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৩ থেকে ৬ ফুট অধিক উচ্চতার জোয়ারে প্লাবিত হতে পারে।

এছাড়া উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সকল মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে বুলেটিনে।



সাতদিনের সেরা