kalerkantho

রবিবার । ৬ আষাঢ় ১৪২৮। ২০ জুন ২০২১। ৮ জিলকদ ১৪৪২

পটুয়াখালীতে জামাই হত্যায় শ্বশুরকে জামিন দেননি হাইকোর্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ মে, ২০২১ ১৭:৫১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পটুয়াখালীতে জামাই হত্যায় শ্বশুরকে জামিন দেননি হাইকোর্ট

শ্বশুর আনোয়ার হোসেন প্যাদা এবং ভাড়াটে খুনী নিজাম ও আমজেদ

পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় জামাই আমিনুল ইসলাম গাজী ওরফে দিলীপ গাজী হত্যা মামলার আসামি নিহতের শ্বশুর আনোয়ার হোসেন প্যাদাকে জামিন দেননি হাইকোর্ট। তার জামিনের আবেদন কার্যতালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে।

বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথ ও বিচারপতি এএসএম আব্দুল মোবিনের হাইকোর্ট বেঞ্চ সোমবার এ আদেশ দেন। আদালতে জামিন আবেদনকারীপক্ষে আইনজীবী ছিলেন এম ফেরদৌস আল বশির। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন সহকারি অ্যাটর্নি জেনারেল শামীম খান।

পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার লালুয়া ইউনিয়নের নওয়াপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ইউপি সদস্য আমিনুল ইসলাম গাজী ওরফে দিলীপ গাজীকে গতবছর ২২ অক্টোবর হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী হাবিবা বাদী হয়ে মামলা করেন। এ মামলায় বাদীর পিতা আনোয়ার হোসেন প্যাদা এবং ভাড়াটে খুনী নিজাম ও আমজেদকে কয়েকদিনের মধ্যেই গ্রেপ্তার করে পুলিশ। হত্যার কথা স্বীকার করে তিনজনই আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীও দিয়েছেন। দিলীপ গাজীর ব্যাংকে থাকা প্রায় অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নিতেই শশুর আনোয়ার হোসেন এই হত্যার পরিকল্পনা করে।

জানা যায়, পায়রা বন্দরের সম্প্রসারিত উন্নয়নকে কেন্দ্র করে নিহত দিলীপের অনেক জমি অধিগ্রহণ হয়। সেই সূত্রে দিলীপের ব্যাংক হিসাবে প্রায় কোটি টাকা জমা পড়ে। আপন জামাতার টাকা হাতিয়ে নিতেই ভাতিজি জামাতা নিজামের সঙ্গে পরিকল্পনা করেন আনোয়ার হোসেন। এরপর নিজাম বরগুনা জেলার হেউলিয়াবুনিয়া গ্রামের বাসিন্দা আমজেদের সঙ্গে দুই লাখ টাকা চুক্তি করে। পরবর্তীতে নিজামকে এক লাখ ৬০ হাজার টাকা পরিশোধ করে আনোয়ার। নিজাম ও আমজেদ ওই টাকা ভাগাভাগি করে নেয়। পরবর্তীতে আরো ৩০ হাজার টাকা দেয় আনোয়ার হোসেন। এই আনোয়ার হোসেন প্যাদা হাইকোর্টে জামিনের আবেদন করেন। শুনানি শেষে আদালত তাকে জামিন না দিয়ে তার আবেদন কার্যতালিকা থেকে বাদ দেন।



সাতদিনের সেরা