kalerkantho

শুক্রবার । ৪ আষাঢ় ১৪২৮। ১৮ জুন ২০২১। ৬ জিলকদ ১৪৪২

ফিলিস্তিনে হামলার প্রতিবাদে বাম জোটের বিক্ষোভ

মার্কিন-ইসরায়েলি আগ্রাসনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ মে, ২০২১ ১৫:৫৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মার্কিন-ইসরায়েলি আগ্রাসনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান

মার্কিন-ইসরায়েল সাম্রাজ্যবাদী জায়নবাদী আগ্রাসনের বিরুদ্ধে বিশ্ববাসীকে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানিয়েছে বাম গণতান্ত্রিক জোট। জোটের পক্ষ থেকে ফিলিস্তিনী নাগরিকদের হত্যা ও তাদের বসতবাড়ী থেকে উচ্ছেদ বন্ধ এবং তাদের আবাসভূমি ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি জানানো হয়।

আজ বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে এই দাবি জানানো হয়। বাম জোটের সমন্বয়ক ও বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য বজলুর রশীদ ফিরোজের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তৃতা করেন বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, সিপিবির কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুল্লাহেল কাফি রতন, বাসদ (মার্কসবাদী) কেন্দ্রীয় নেতা মানস নন্দী, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের নজরুল ইসলাম, গণসংহতি আন্দোলনের বাচ্চু ভূইয়া, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির শহীদুল ইসলাম সবুজ, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের হামিদুল হক, বাসদের জুলফিকার আলী প্রমূখ।

সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, দীর্ঘ ৭৩ বছর ধরে ফিলিস্তিনীদের আবাসভূমি অবৈধভাবে দখল করে ইসরায়েলী জায়নবাদী শক্তি স্বাধীন-সার্বভৌম ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের উপর আগ্রাসন চালিয়ে আসছে। দখলদার ইসরায়েলী বাহিনীর গুলি, বোমা হামলা ও নির্যাতনে অসংখ্য মানুষ নিহত হয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ সাম্রাজ্যবাদী শক্তিগুলো এই সন্ত্রাসী তৎপরতায় প্রত্যক্ষভাবে মদদ জুগিয়ে চলছে। জাতিসংঘ নীরব ভূমিকা পালন করেছে। তারা বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে স্থায়ীভাবে অশান্তি সৃস্টি করে নিজেদের অস্ত্রের বাজার ও ব্যবসাকে রমরমা রাখতে, তেলসম্পদসহ প্রাকৃতিক ও খনিজসম্পদ লুটপাট করতেই মার্কিন সাম্রাজ্যবাদী শক্তি এতে উৎসাহ যোগাচ্ছে। আর মার্কন সাম্রাজ্যবাদী শক্তিগুলোর চাপে জাতিসংঘ নির্লিপ্ত ভূমিকা পালন করছে। নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে এই হামলা ও গণহত্যা বন্ধ করার আহ্বান জানান।  

ফিলিস্তিনের পক্ষে বাংলাদেশ সরকারকে কঠোর অবস্থান নেওয়া আহ্বান জানিয়ে নেতৃবৃন্দ বলেন, অনতিবিলম্বে এই হামলা-গণহত্যা বন্ধ না হলে এবং বাংলাদেশ সরকার এই জায়নবাদী আগ্রাসনের বিরুদ্ধে দৃঢ় অবস্থান না নিলে ঈদের পরে বাম জোট মার্কিন দূতাবাস অভিমুখে বিক্ষোভের কর্মসূচী পালন করবে।

সমাবেশে শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।



সাতদিনের সেরা