kalerkantho

সোমবার । ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৭ মে ২০২১। ০৪ শাওয়াল ১৪৪

কর্মহীন যাত্রীবাহী নৌযান শ্রমিকদের খাদ্য ও আর্থিক সহায়তার দাবি স্কপের

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ মে, ২০২১ ১৮:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কর্মহীন যাত্রীবাহী নৌযান শ্রমিকদের খাদ্য ও আর্থিক সহায়তার দাবি স্কপের

করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে জারীকৃত বিধি-নিষেধের কারণে কর্মহীন যাত্রীবাহী নৌযান শ্রমিকদের জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্য ও আর্থিক সহায়তা প্রদানের দাবি জানিয়েছে শ্রমিক-কর্মচারী ঐক্য পরিষদ (স্কপ)।

আজ মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে যাত্রীবাহী নৌযান শ্রমিকদের প্রয়োজনীয় সুরক্ষা নিশ্চিত করার দাবি জানান।

বিবৃতিদাতারা হলেন- স্কপের বর্তমান যুগ্ম সমন্বয়ক শ্রমিক নেতা সহিদুল্লাহ চৌধুরী এবং স্কপ নেতা মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ, আনোয়ার হোসেন, শাহ মো. জাফর, সাইফুজ্জামান বাদশা, রাজেকুজ্জামান রতন, কামরুল আহসান, শামীম আরা, ডা. ওয়াজেদুল ইসলাম খান, চৌধুরী আশিকুল আলম, নঈমুল আহসান জুয়েল, শাকিল আক্তার চৌধুরী, আহসান হাবিব বুলবুল, ফিরোজ হোসেন ও পুলক রঞ্জন ধর।

বিবৃতিতে নেতারা বলেন, করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের জন্য ঘোষিত লকডাউনে প্রায় এক মাস উপার্জনহীন হয়ে যাত্রীবাহী নৌযানের শ্রমিকরা মানবেতর জীবনযাপন করছে। পরিবার-পরিজন নিয়ে চরম দুঃসহনীয় অবস্থায় দিনযাপন করতে হচ্ছে তাদের। লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকায় লঞ্চ মালিকরা শ্রমিকদের কোনো বেতন-ভাতা দিচ্ছে না। সরকারও এই শ্রমিকদের দিকে সহায়তার হাত বাড়ায়নি। সরকার দোকানপাট, শপিংমল, সব কিছু খুলে দিয়েছে অথচ মানুষের চলাচলের জন্য সাশ্রয়ী নৌপরিবহন বন্ধ রেখেছে। ফলে মানুষ অতিরিক্ত ভাড়া, স্বাস্থ্যঝুঁকি, এমনকি জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ইঞ্জিন নৌকাসহ বিভিন্ন ঝুঁকিপূর্ণ মাধ্যমে যাতায়াত করছে।

নেতারা প্রশ্ন রাখেন, শ্রমিকদের জীবন-জীবিকার বিষয়ে কোনো ঘোষণা ছাড়াই যাত্রীবাহী নৌযান চলাচল বন্ধের এই সিদ্ধান্তের ফলে নৌযান ও নৌবন্দরগুলো কর্মরত শ্রমিকরা কী করবে? দায়িত্বহীন এই ঘোষণা শ্রমিকদের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার করছে।
কর্মহীন হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত যাত্রীবাহী নৌযান শ্রমিকদের দ্রুত প্রয়োজনীয় আর্থিক সহায়তা প্রদানের দাবি জানিয়ে নেতারা বলেন, হয় শ্রমিকদের প্রয়োজনীয় খাদ্য ও আর্থিক সহায়তা নিশ্চিত করুন, অন্যথায় তারা যেন স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে উপার্জন করতে পারে সেই ব্যবস্থা করে দিন।

নেতারা শ্রমিকদের জীবন ও জীবিকা রক্ষায় করোনা নিয়ন্ত্রণে সমন্বিত পরিকল্পনা গ্রহণের জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।



সাতদিনের সেরা