kalerkantho

রবিবার । ১৭ শ্রাবণ ১৪২৮। ১ আগস্ট ২০২১। ২১ জিলহজ ১৪৪২

পুরান ঢাকার অগ্নিকাণ্ড নিয়ে বিআইপি’র ৬ সুপারিশ

শম্পা বিশ্বাস   

২৯ এপ্রিল, ২০২১ ১৮:৩৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পুরান ঢাকার অগ্নিকাণ্ড নিয়ে বিআইপি’র ৬ সুপারিশ

রাজধানীর পুরান ঢাকায় একের পর এক ঘটে যাওয়া অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা রোধে অধিক বিপজ্জনক রাসায়নিক গুদামসমূহকে অনতিবিলম্বে শিল্প এলাকায় স্থানান্তর এবং কম বিপজ্জনক রাসায়নিক গুদামকে পুরান ঢাকার সু্নির্দিষ্ট কিছু ভবনের মধ্যে স্থানান্তরসহ মোট ছয়টি সুপারিশ দিয়েছে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্স (বিআইপি)।

বিআইপি’র এক ভার্চুয়াল বৈঠকে এই সুপারিশগুলো তুলে ধরেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক নগর পরিকল্পনাবিদ ড. আদিল মুহাম্মদ খান।

প্রতি মাসে সমসাময়িক ইস্যু নিয়ে সেমিনারের আয়োজন করছে বিআইপি। তারই ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে ‘সমসাময়িক পরিকল্পনা ও উন্নয়ন ব্যবস্থাপনা প্রসঙ্গ’ শীর্ষক আলোচনায় পুরান ঢাকার অগ্নিকাণ্ড রোধে মোট ছয়টি অন্তর্র্বতীকালীন সুপারিশ করেছে বিআইপি। এই সুপারিশগুলোর মধ্যে আছে, আবাসিক ভবনে কোনোভাবেই রাসায়নিক গুদাম বা কারখানার অনুমোদন না দেয়া, রাসায়নিক উপাদান উৎপাদন, বিপণন, বিক্রি ও গুদামজাত করার বিষয়ে একটি সুস্পষ্ট নীতিমালা প্রণয়ন, পুরান ঢাকার বাইরে টংগী, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী ও চট্টগ্রাম এলাকার ঝুঁকিপূর্ণ রাসায়নিক গুদামগুলোকে নজরদারির আওতায় আনা এবং আবাসিক এলাকায় বেআইনিভাবে গড়ে ওঠা সকল রাসায়নিক গুদাম ও কারখানা স্থাপনকারীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা।

এ বিষয়ে ড. আদিল মুহাম্মদ খান কালের কণ্ঠকে বলেন, প্রতি মাসেই আমরা আমাদের চারপাশের সমসাময়িক ঘটনা নিয়ে কথা বলি। সেখানে এই সব ঘটনার কারণ, সেটা রোধে কী করণীয় তার সুপারিশ এবং ঘটনা পরবর্তী ট্রিটমেন্ট নিয়ে আমরা আলোচনা করি। যেমন আমরা দেখছি, বারবার পুরান ঢাকায় রাসায়নিক গুদামে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটছে। কিন্তু এর কোনো সুরাহা হচ্ছে না। তাই এটা নিয়ে আমরা ছয়টি সুপারিশ পেশ করেছি। পাশাপাশি আমাদের দেশের জন্য সবওয়ে নির্মাণ কতটা যৌক্তিক এবং এটার প্রয়োজনীয়তা নিয়েও আমাদের মনে প্রশ্ন রয়েছে।

আলোচনা অনুষ্ঠানে অন্যান্য বক্তারা বলেন, সম্প্রতি পুরান ঢাকার আরমানিটোলার অগ্নিকান্ডের ঘটনায় প্রাণহানি ও ব্যাপক য়তির ঘটনায় বিআইপি গভীর দুঃখ প্রকাশ করছে। এটি নিছক একটি দূর্ঘটনা নয় বরং ব্যবসায়ী, বাড়ির মালিকসহ সংশ্লিষ্টদের অতি মুনাফা লাভের প্রবণতার ফলাফল। পাশাপাশি এটা সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব পালনে ব্যর্থতার সম্মিলিত দায়ও। আশ্চর্যের বিষয় হলো, গত কয়েক বছর ধরে পুরান ঢাকা বোমার উপর বসবাস করছে এই সত্যটি বিআইপিসহ দেশের দায়িত্বশীল সকল মহল থেকে বারংবার বলা স্বত্তে¡ও সেখান থেকে রাসায়নিক গুদাম সরেনি। নিমতলী ট্র্যাজেডির ১১ বছর পার হলো, একের পর এক দুর্ঘটনা ঘটছে। তবুও কর্তৃপক্ষের টনক নড়ছে না।

ভার্চুয়াল আলোচনা অনুষ্ঠানে বিআইপি’র অন্যান্য বোর্ড সদস্যরা যুক্ত ছিলেন।



সাতদিনের সেরা