kalerkantho

শনিবার । ৫ আষাঢ় ১৪২৮। ১৯ জুন ২০২১। ৭ জিলকদ ১৪৪২

ধর্মব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা দাবি সেক্টর কমান্ডারস্ ফোরামের

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ এপ্রিল, ২০২১ ২০:৪০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ধর্মব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা দাবি সেক্টর কমান্ডারস্ ফোরামের

মহান মুক্তিযুদ্ধের অর্জন ও ধর্মের  পবিত্রতা রক্ষার্থে  ধর্মব্যবসায়ী অপশক্তির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছে সেক্টর  কমান্ডারস্ ফোরাম- মুক্তিযুদ্ধ’৭১।

আজ রবিবার ‘মুক্তিযুদ্ধের অর্জন ও হেফাজতি তান্ডব’ শীর্ষক এক অনলাইন আলোচনায় এ দাবি জানানো হয়।  

আলোচনায় অংশগ্রহণকারী বিশিষ্টজনরা বলেন, সম্প্রতি বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী  উপলক্ষ্যে হেফাজতের প্ররোচনায় দেশের বিভিন্ন জায়গায় যে সহিংসতা ও  তান্ডব চালানো হয়েছে, তা  বাংলাদেশের  মৌল ভিত্তিকে  আঘাত করেছে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির  সফরকে কেন্দ্র করে এই অপতৎপরতা চালানো হলেও এরা মূলত জাতীয় স্বাধীনতা ও  সংবিধানকেই আঘাত করেছে। অতএব  এই অপশক্তিকে  আর কোনো ছাড় দেওয়া উচিত হবেনা।

সংগঠনের কার্যনির্বাহী নুরুল আলমের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন সংগঠনের মহাসচিব বিশিষ্ট লেখক হারুন হাবীব, সহসভাপতি সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব  ম হামিদ, কেন্দ্রিয় সাংগঠনিক সম্পাদক মেজর জেনারেল (অব.) এ কে মোহাম্মদ আলী শিকদার, যুগ্ম মহাসচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান মৃধা বেনু, কোষাধ্যক্ষ বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা. মনসুর  আহমদ, নারী বিষয়ক সম্পাদক বুলবুল মহলানবীশ, কেন্দ্রিয় নারী কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইফফাত আরা নার্গিস, যুগ্ম তথ্য ও প্রচার সম্পাদক মুঈদ হাসান তড়িৎ, ময়মনসিংহ বিভাগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ রফিকুজ্জামান প্রমুখ।

হারুন হাবীব বলেন, স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে স্বাধীনতা বিরোধী ধর্মব্যবসায়ী মহল যে তান্ডব ঘটিয়েছে, তা পূর্ব পরিকল্পিত ও মহান মুক্তিযুদ্ধ, জাতির পিতা ও বাংলাদেশের  পবিত্র সংবিধানের প্রতি প্রকাশ্য চ্যালেঞ্জ। এই ঔদ্ধত্ব্যের সুমচিত জবাব দেয়া না হলে মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তির এই অনুচরেরা  অনুপ্রাণীত হবে এবং নতুন অরাজকতা সৃষ্টির পায়তারা করবে।

ম হামিদ বলেন, সাম্প্রতিক সহিংসতাগুলো ধর্মীয় মৌলবাদীরা রাজনৈতিক পরিকল্পনায় করেছে। কারণ তারা বাংলাদেশ রাষ্ট্র ও সংবিধান অস্বীকার করে। তারা জাতির পিতার ম্যুরাল আক্রমন করেছে, সরকারি ও সাধারণ জনগনের সম্পত্তি বিনষ্ট করেছে। এদের অপরাধের উপযুক্ত শাস্তি প্রাপ্য বলে তিনি মন্তব্য করেন।

মেজর জেনারেল (অব.) এ কে মোহাম্মদ আলী শিকদার বলেন, হেফাজতে ইসলামের পরিকল্পিতভাবে দেশে অস্থিরতা সৃষ্টির পায়তারা করছে। চিহ্নিত স্বাধীনতাবিরোধী জামায়াতে ইসলামীর সাথে একযোগে তারা রাষ্ট্রকে আঘাত করেছে। মৌলানা মমিনুল হকসহ এদের নেতৃবৃন্দ নৈতিকতাবিবর্জিত কাজে নিয়োজিত, অতএব এদের ছাড় দেওয়ার কোনোই সুযোগ নেই।



সাতদিনের সেরা