kalerkantho

শুক্রবার । ১১ আষাঢ় ১৪২৮। ২৫ জুন ২০২১। ১৩ জিলকদ ১৪৪২

বিশ্বরেকর্ড গড়ার পর 'শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু'র ধানকাটা উৎসব কাল

নিজস্ব প্রতিবেদক    

২৫ এপ্রিল, ২০২১ ১৫:১৫ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বিশ্বরেকর্ড গড়ার পর 'শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু'র ধানকাটা উৎসব কাল

'শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু' গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে স্থান নেওয়ার পর এবার সেই শস্য কাটার উৎসব অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আগামীকাল সোমবার (২৬ এপ্রিল)।

ওইদিন স্বেচ্ছাশ্রমে কৃষকের ধান কাটতে এবং একইসঙ্গে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে স্থান পাওয়া শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু আয়োজনের ধান কাটতে বগুড়ায় যাচ্ছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা। 

উৎসবে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক।  উদ্বোধন করবেন 'শষ্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু' জাতীয় পরিষদের আহ্বায়ক ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম। এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে থাকবেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া এবং কৃষকলীগ সভাপতি কৃষিবিদ সমীর চন্দ।

'শষ্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু' জাতীয় পরিষদের উদ্যোগে শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি ফুটিয়ে তুলতে চলতি বছরের ২৯ জানুয়ারি বগুড়ার শেরপুর উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নের বালেন্দা গ্রামে প্রায় ১০০ বিঘা জমিতে চীন থেকে আনা ডিপ ভায়োলেট রঙের হাইব্রিড ও দেশের ডিপ গ্রিন ধানের হাইব্রিড চারা রোপণ করা হয়। উচ্চ ফলনশীল দুই ধরনের ধানের চারা রোপণের মাধ্যমে এই কর্মযজ্ঞের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক। আর চারা রোপণ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম।

শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ফুটিয়ে তুলতে গত ১ ফেব্রুয়ারি থেকে প্রতিদিন ১২০ থেকে ১৩০ জন নারী শ্রমিক কাজ করেছেন। তাঁদের সঙ্গে প্রতিদিন ১৫ থেকে ২০ জন পুরুষ শ্রমিক ছিলেন। এ জন্য স্থানীয় কৃষকদের কাছ থেকে জমি ইজারা নেওয়া হয়।

ধানের গাছ ছোট অবস্থায় উঁচু থেকে ড্রোন দিয়ে ছবি তোলার পর বঙ্গবন্ধুর অবয়ব ফুটে উঠতে দেখা যায়। ধানের চারা যতই বড় হয়েছে, ততই বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি স্পষ্টভাবে  ফুটে উঠেছে। গত ১৭ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিনের আগেই ১৬ মার্চ বিশ্বের সর্ববৃহৎ 'শস্যচিত্র' হিসেবে 'শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধুর' প্রতিকৃতি গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে স্থান লাভ করে।

শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধুর আয়তন ছিল ১২ লাখ ৯২ হাজার বর্গফুট। শস্যচিত্রের দৈর্ঘ্য ৪০০ মিটার এবং প্রস্থ ছিল ৩০০  মিটার। গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে স্থান পেয়ে নতুন ইতিহাস সৃষ্টি হয় বাংলাদেশের জন্য। প্রতিদিন শত শত মানুষ শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি দেখতে প্রকল্প এলাকায় ভিড় করছেন।

গাঢ় বেগুনি ও সবুজ রঙের ধান গাছে সোনালী রঙের ধানের শীষে ভরে উঠেছে। শীষগুলো বাতাসে দোল খাচ্ছে। পুরো ধানের মাঠ বাতাসে দুলছে। ওপর থেকে দেখলে মনে হবে বঙ্গবন্ধুর চিত্রটিও দুলছে। তাতে রোদ পড়ে চকচক করছে ধানের শীষগুলো। বিশ্বরেকর্ড গড়ার পর এবার ধান কাটার সময় হয়ে পড়েছে।

বিশ্ব রেকর্ডসে স্থান করে নিয়ে ইতিহাস গড়া বঙ্গবন্ধুর শস্যচিত্রটি এখন পৃথিবীর সবচেয়ে বড় শস্যচিত্র। বিএনসিসি ও কৃষিবিদদের নিপুণ কারুকাজে তৈরি হয়েছে শস্যচিত্রের বিশাল ক্যানভাসে বঙ্গবন্ধু।

বগুড়ার শেরপুর উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নের বালেন্দা গ্রামে ধানের ক্ষেতে তৈরি 'শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু' ক্ষেতের ১০০  বিঘা জমির ধান কাটা হবে আগামীকাল সোমবার। ধানকাটার পর সেগুলোর একটি অংশ প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে জমা হবে। বাকি অংশ শুভেচ্ছা স্বরূপ বিতরণ করা হবে কৃষক ও কৃষক সংগঠনের মাঝে।

সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে 'শষ্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু' জাতীয় পরিষদের আহ্বায়ক ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, 'জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিনা শুরু থেকেই আমাদের পরামর্শ দিয়ে সাহস যুগিয়েছিলেন বলেই এই কাজ সফলভাবে সম্পন্ন করে আমরা গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের স্বীকৃতি পেয়েছি। এই অর্জন বাঙালি জাতির। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে এ অর্জন মাইলফলক হয়ে থাকবে।' 

বাহাউদ্দিন নাছিম আরো বলেন, 'আমরা আগামী ২৬ এপ্রিল স্বেচ্ছাশ্রমে কৃষকের ধান কাটব  এবং শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু উৎসবের ধানকাটা কার্যক্রম উদ্বোধন করব।' 



সাতদিনের সেরা