kalerkantho

রবিবার। ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৬ মে ২০২১। ০৩ শাওয়াল ১৪৪২

বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্ভারে সমস্যা

চেক নিষ্পত্তি ও অনলাইনে অর্থ স্থানান্তর বন্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ এপ্রিল, ২০২১ ০৩:৪৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চেক নিষ্পত্তি ও অনলাইনে অর্থ স্থানান্তর বন্ধ

বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্ভারে ত্রুটির কারণে গত মঙ্গলবার থেকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে চেক নিষ্পত্তি ও অনলাইনে অর্থ স্থানান্তর (ইএফটি) কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। এতে সঠিক সময়ে চেক নিষ্পত্তি ও অনলাইনে অর্থ স্থানান্তর করতে না পারায় সাধারণ মানুষ ও ব্যবসায়ীরা ভোগান্তিতে পড়েছেন। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানান, গত ১৩ এপ্রিল বাংলাদেশ ব্যাংকের দুটি ডাটা সেন্টারের মধ্যে সংযোগকারী বিটিসিএলের ফাইবার অপটিক্যাল কেবল বিচ্ছিন্ন হওয়ায় এ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। সমস্যা সমাধানে কাজ চলছে। আগামী রবিবার লেনদেন শুরুর আগেই সমস্যার সমাধান সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন তাঁরা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, বিটিসিএলের লাইনে ত্রুটি দেখা দেওয়ায় এই সমস্যা হয়েছে। যত দ্রুত সম্ভব এ সংকট থেকে উত্তরণ হওয়া যায় সেই চেষ্টা চলছে।
আন্ত ব্যাংক চেক লেনদেন ও ইএফটি—এই দুটিই ব্যাংকিং সেক্টরের আর্থিক খাতে লেনদেনের অন্যতম বড় দুই মাধ্যম। এগুলোর মাধ্যমে দৈনিক গড়ে ১৩ হাজার কোটি টাকা লেনদেন হয়ে থাকে। জানা যায়, বাংলাদেশ ব্যাংকের দুটি সার্ভারের একটি মতিঝিলে এবং অন্যটি মিরপুরে বাংলাদেশ ব্যাংক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে (বিবিটিএ)। এর মধ্যে গত মঙ্গলবার একটির সংযোগে বিপত্তি ঘটে। পরে সিস্টেমই পুরোপুরি বসে যায়। এর পর থেকেই চেক নিষ্পত্তি ও অনলাইন অর্থ স্থানান্তর হচ্ছে না। যদিও সিস্টেম সমস্যার আগেই হাই ভ্যালু চেক নিষ্পত্তি করা সম্ভব হয়েছে। তবে রেগুলার ভ্যালু চেক নিষ্পত্তি হয়নি। ইএফটিও নিষ্পত্তি হয়নি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পেমেন্ট সিস্টেমস বিভাগের এক কর্মকর্তা বলেন, “বিটিসিএলের লাইন কেটে যাওয়ার কারণে সমস্যার উদ্ভব হয়েছিল। এরপর সেটা গভীরে গিয়ে সার্ভারটি পুরোপুরি বসে যায়।

লকডাউনের সঙ্গে এর কোনো সম্পর্ক নেই। তবে এটাও ঠিক যে, হঠাৎ করে যখন ঘোষণা করা হলো ২১ তারিখ পর্যন্ত সব কিছু বন্ধ থাকবে, তখন আমরা সিস্টেমে ঢুকে ২১ তারিখ পর্যন্ত ‘বন্ধ মার্ক’ করি। পরে আবার সিদ্ধান্ত হলো ব্যাংক খোলা থাকবে। তখন আবার সিস্টেম ‘খোলা মার্ক’ করতে হতো। কিন্তু সিস্টেম বসে যাওয়ায় এখন আমরাই ঢুকতেই পারছি না।”



সাতদিনের সেরা