kalerkantho

বুধবার । ২৯ বৈশাখ ১৪২৮। ১২ মে ২০২১। ২৯ রমজান ১৪৪২

বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট

শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও ঝুঁকিভাতা নিশ্চিতের দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ এপ্রিল, ২০২১ ১৭:১২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও ঝুঁকিভাতা নিশ্চিতের দাবি

করোনাকালে কর্মরত শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও ঝুঁকিভাতা নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছে সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট। আজ মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ কর্মসূচি থেকে এই দাবি জানানো হয়। এ সময় নেতৃবৃন্দ অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের কর্মহীন শ্রমিকদের খাদ্য ও নগদ সহায়তা দেওয়ার আহ্বান জানান।

সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের কেন্দ্রীয় সভাপতি রাজেকুজ্জামান রতনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব বুলবুলের সঞ্চালনায় বিক্ষোভ কর্মসূচি চলাকালে বক্তৃতা করেন সাংগঠনিক সম্পাদক খালেকুজ্জামান লিপন, অর্থ সম্পাদক জুলফিকার আলী, জাতীয় শ্রমিক জোটের সভাপতি সাইফুজ্জামান বাদশা, বাংলাদেশ ট্যুরিজম অ্যান্ড হোটেল ওয়ার্কার্স এমপ্লয়িজ ফেডারেশনের আহ্বায়ক রাশেদুর রহমান রাশেদ ও যুগ্ম-আহ্বায়ক ফারহানা ইয়াসমিন, শ্রমিকনেতা সাহিদুল ইসলাম শহিদ ও মহিউদ্দিন আহমেদ রিমেল।

কর্মসূচিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ে প্রতিদিন মৃত্যু ও সংক্রমণের নতুন রেকর্ড তৈরি হচ্ছে। সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সরকার ৫ এপ্রিল থেকে লকডাউন ঘোষণা করলেও মালিকদের চাপে কারখানা খোলা রাখায় কার্যত লকডাউন ব্যর্থ হয়। এরপর ১৪ এপ্রিল থেকে ৭ দিনের জন্য সর্বাত্মক লকডাউনের ঘোষণা দিলেও গার্মেন্টস শিল্প খোলা রাখা হয়েছে। এরপর কর্মহীন এই শ্রমজীবী মানুষদের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়নি। ফলে লকডাউন দিয়ে করোনা সংক্রমণ রোধের চেষ্টা ব্যর্থ হবে।

নেতৃবৃন্দ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে উৎপাদনের চাকা সচল রাখার কাজে নিয়োজিত শ্রমিকদের জন্য ঝুঁকি ভাতা, করোনা টেস্ট, টিকা এবং স্বাস্থ্যবিধির যথাযথ বাস্তবায়ন নিশ্চিত করার দাবি জানান।

তারা বলেন, কর্মরত কোনো শ্রমিক করোনা আক্রান্ত হলে কারখানা মালিককে তার চিকিৎসা এবং যথাযথ ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। করোনার অজুহাতে শ্রমিকদের বেতন-ভাতার কোনোরকম কর্তন কিংবা শ্রমিক ছাঁটাই ও হয়রানি বন্ধ করতে হবে। অন্যথায় প্রতিবাদ আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন নেতৃবৃন্দ।



সাতদিনের সেরা