kalerkantho

শুক্রবার। ৩১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ মে ২০২১। ০২ শাওয়াল ১৪৪২

অপশক্তি প্রতিহত করতে প্রস্তুত শেখ হাসিনার বাংলাদেশ

ড. সেলিম মাহমুদ   

১২ এপ্রিল, ২০২১ ০৩:৫৪ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



অপশক্তি প্রতিহত করতে প্রস্তুত শেখ হাসিনার বাংলাদেশ

২০২১ সালে আমরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছর অর্থাৎ সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন করছি। এমন একসময় আমরা এই উৎসব উদযাপন করছি, যখন সারা বিশ্ব, এমনকি বাংলাদেশের শত্রুরাও বাংলাদেশের অভূতপূর্ব সাফল্যের কারণে তার উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করছে। বাংলাদেশ তথা বাঙালি জাতির জন্য এ এক অনন্যসাধারণ উৎসব। পৃথিবীর প্রায় সব রাষ্ট্র ও বিশ্বনেতা একদিকে দীর্ঘ মুক্তিসংগ্রাম আর এক রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন, অন্যদিকে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের অভূতপূর্ব সাফল্যের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। ত্রিশ লাখ শহীদের রক্তে অর্জিত বাংলাদেশ রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিশ্বে এক আদর্শ রাষ্ট্রের স্বীকৃতি পেয়েছে। সারা বিশ্বকে অবাক করে দিয়ে শেখ হাসিনার বাংলাদেশ অবিশ্বাস্য গতিতে এগিয়ে চলেছে। স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে বাংলাদেশে যখন এই সাফল্যের উৎসব উদযাপিত হচ্ছিল এবং সেই উদযাপনে বিশ্বনেতাদের সবাই যখন বাংলাদেশের জয়গান গাইছিলেন, ঠিক সেই সময়ে বিশ্বের কাছে বাংলাদেশকে খাটো করার জন্য, বাংলাদেশের সব অর্জন প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য একটি চক্র ঘৃণ্য উন্মাদনায় মেতে উঠেছিল। এই কাজে তারা সেই মধ্যযুগীয় কায়দায় ধর্মকে ব্যবহার করেছে আর ধর্মান্ধগোষ্ঠীকে লেলিয়ে দিয়েছে। আমরা বহু বছর ধরে দেখে আসছি বাংলাদেশের অভ্যন্তরে একটি গোষ্ঠী আমাদের মহান মুক্তিসংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের আদর্শকে নিজেদের স্বার্থপরিপন্থী মনে করে। এই গোষ্ঠী বারবার মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ ও চেতনাকে আঘাত করেছে। তারা বাংলাদেশের এই আকাশচুম্বী সাফল্য ও অর্জনকে কোনোভাবে মেনে নিতে পারছে না। তারা শুরু থেকেই বাংলাদেশের আদর্শ ও চেতনাবিরোধী ছিল। তাই তারা স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর এই মহোৎসবে ফুঁসে উঠেছে। তারা সব কিছু ধ্বংস করার ঘোষণা দিয়েছে। তাদের সব ক্ষোভ এই বাংলাদেশের বিরুদ্ধে। কিন্তু তারা ভুলে গেছে, বঙ্গবন্ধুর স্বাধীন বাংলাদেশ আজ অনেক শক্তিশালী। পৃথিবীর অনেক শক্তিশালী রাষ্ট্রের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে বাংলাদেশ আজ তার শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছে। রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে যোগ্যতার প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই আজ চ্যাম্পিয়ন। এই রাষ্ট্রকে দমানোর সাধ্য কারো নেই।

বাংলাদেশবিরোধী এই অপতৎপরতা তথা উন্মাদনা সৃষ্টির অপচেষ্টায় ক্রীড়নক হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে মৌলবাদী ও ধর্মান্ধ গোষ্ঠী। কিন্তু মূল ষড়যন্ত্রকারীর ভূমিকায় রয়েছে বিএনপি-জামায়াত। এরই মধ্যে এটি পরিষ্কার হয়েছে। লন্ডন থেকে কারা নীলনকশা তৈরি করছে, টেলিফোনে কারা যাত্রীবাহী বাস ও যানবাহনে আগুন দিয়ে নিরীহ মানুষ মারার নির্দেশ দিচ্ছে, বিভিন্ন জায়গায় নাশকতার লক্ষ্যে কারা অর্থের জোগান দিচ্ছে—এরই মধ্যে এগুলো আমরা জেনে গেছি।

কারা কাপুরুষের মতো বিদেশে বসে ফেসবুক আর ইউটিউবে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে বিষোদগার করছে এবং বিদেশে বসে বাংলাদেশের ভেতরে নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড পরিচালনার আহ্বান জানাচ্ছে, তাদের পরিচয় সবার কাছে স্পষ্ট। এই সাজানো বাংলাদেশকে কারা ধ্বংস করতে চায়, কারা এই আকাশচুম্বী উন্নয়নকে নস্যাৎ করতে চায়, তাদের নাম একে একে উন্মোচিত হচ্ছে।

বাংলাদেশ আজ যেকোনো অবস্থায় এ ধরনের অপশক্তি ও অপতৎপরতা প্রতিহত ও নির্মূল করার সক্ষমতা রাখে। বাংলাদেশের নতুন প্রজন্ম একটি স্বপ্নপ্রেমী প্রজন্ম। তারা বিশ্ব পর্যায়ে নেতৃত্ব দেওয়ার সক্ষমতা রাখে। তাদের বিশ্বজয়ের স্বপ্ন দেখিয়েছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা।

রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার বাংলাদেশ অনেক বেশি মানবিক। তাঁর এই মানবিকতার গল্প আজ বিশ্বব্যাপী মানুষের মুখে মুখে। তবে এটি ভুলে গেলে চলবে না, শেখ হাসিনার বাংলাদেশ আজ অনেক বেশি শক্তিশালী ও পরাক্রমশালী। বাংলাদেশের স্বার্থে, বাংলাদেশের মানুষের নিরাপত্তার স্বার্থে, এ দেশের ভবিষ্যৎ সুরক্ষার স্বার্থে শেখ হাসিনার বাংলাদেশ যেকোনো অপশক্তিকে কঠোর হাতে দমন করতে প্রস্তুত। যেকোনো অপশক্তিকে নির্মূল করার শক্তি এই রাষ্ট্রের রয়েছে। বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশে দেশবিরোধী কোনো অপতৎপরতার ঠাঁই নেই। রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা গত এক যুগ ধরে দিনরাত পরিশ্রম করে এবং জাতীয়, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণ করে বাংলাদেশকে উন্নয়নের এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন। শেখ হাসিনার বাংলাদেশ বিশ্বে আজ এক উজ্জ্বল নক্ষত্র—এক আদর্শ রাষ্ট্র। এ রকম এক রাষ্ট্রের ক্ষতি বাঙালি জাতি মেনে নেবে না।

গুজব আর মিথ্যাচার করে রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকাণ্ড চালানো যাবে না। বাংলাদেশের মানুষ সব জানে, সব তথ্য তাদের কাছে আছে। ষড়যন্ত্রকারীদের মনে রাখা উচিত, নিকট অতীতে এজাতীয় সব অপতৎপরতা ও ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড রাষ্ট্র কঠোর হাতে দমন করেছে। যেকোনো অপশক্তিকে আবারও প্রতিহত করতে প্রস্তুত শেখ হাসিনার নেতৃত্বে প্রিয় বাংলাদেশ।

এটি আমাদের মনে রাখতে হবে, এই রাষ্ট্র আমাদের সবার। এর নিরাপত্তা, সম্মান ও ভাবমূর্তি রক্ষার দায়িত্ব আমাদের সবার।

লেখক : তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ



সাতদিনের সেরা