kalerkantho

সোমবার । ৬ বৈশাখ ১৪২৮। ১৯ এপ্রিল ২০২১। ৬ রমজান ১৪৪২

চট্টগ্রাম মহানগর

গণপরিবহনে ভাড়া নৈরাজ্য আছে অতিরিক্ত যাত্রীও

নূপুর দেব, চট্টগ্রাম   

১ এপ্রিল, ২০২১ ০২:১৮ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



গণপরিবহনে ভাড়া নৈরাজ্য আছে অতিরিক্ত যাত্রীও

করোনা প্রতিরোধে গণপরিবহনে ধারণক্ষমতার অর্ধেক যাত্রী বহন এবং ৬০ শতাংশ বর্ধিত ভাড়া আদায়ে সরকারের নির্দেশনা চট্টগ্রামে মানা হচ্ছে না। বর্ধিত ভাড়া কার্যকরের প্রথম দিনেই ভাড়া নিয়ে নগরজুড়ে নৈরাজ্য শুরু হয়েছে। ভাড়া ৬০ শতাংশ বাড়ানো হলেও যাত্রীদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে ১০০ থেকে ১২০ শতাংশ। ওদিকে অর্ধেক যাত্রী বহনের নির্দেশনা থাকলেও বাস বোঝাই করেই যাত্রী নেওয়া হচ্ছে। সব মিলিয়ে গতকাল বুধবার প্রথম দিন থেকেই নগরবাসী পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছে।

সরেজমিনে গতকাল নগরের বিভিন্ন সড়ক ঘুরে দেখা গেছে, প্রশাসনের সামনেই গণপরিবহনগুলো সরকার নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে। প্রশাসন অতিরিক্ত যাত্রী বহনের বিষয়টি দেখার চেষ্টা করলেও অতিরিক্ত ভাড়া আদায় নিয়ে তারা কিছু বলছে না। প্রতিটি গণপরিবহনে দ্বিগুণের বেশি ভাড়া আদায় করা হলেও এসব ঘটনায় হাতে গোনা কয়েকটি মামলা করেই প্রশাসন দায়িত্ব শেষ করছে। গাড়িগুলোতে হ্যান্ড স্যানিটাইজারেরও কোনো ব্যবস্থা নেই।

একদিকে ৬০ শতাংশের পরিবর্তে ১০০ থেকে ১২০ শতাংশ বাড়তি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে, অন্যদিকে অনেক গাড়িতে অতিরিক্ত যাত্রী। আবার দুপুরের পর থেকে বিকেল পর্যন্ত নগরের বেশির ভাগ সড়কে গণপরিবহনসংকটে যাত্রীরা চরম দুর্ভোগে পড়ে। বিভিন্ন সড়কে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসায় পরিবহন মালিকরা অঘোষিতভাবে রাস্তায় গাড়ির সংখ্যা কমিয়ে দেন।

বিকেলের পর মানুষের দুর্ভোগ আরো বেড়ে যায়। বিকেল থেকে প্রশাসনের তদারকি কমে যাওয়ায় গণপরিবহন মালিক-শ্রমিকরা আরো বেপরোয়া হয়ে ওঠেন। অফিস ছুটির পর মানুষ বাধ্য হয়ে দ্বিগুণের বেশি ভাড়া দিয়ে বাসে ঠাসাঠাসি করে যাতায়াত করে। পিছিয়ে নেই অন্যান্য যানবাহনও। নগরের প্রতিটি রুটে গণপরিবহনে অতিরিক্ত যাত্রী ও অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করার অভিযোগ পাওয়া যায়।

দুপুর ১টা ৩৬ মিনিটে নগরের বেবী সুপারমার্কেট এলাকায় অটোটেম্পো থেকে নামা চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তা নিলুফার বেগম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘টেক্সটাইল থেকে এখানে (বেবী সুপারমার্কেট) আগে আসতাম পাঁচ টাকা দিয়ে। আজ ১০ টাকা নিয়েছে। সকালে অফিসের কাজে ২ নম্বর গেট থেকে মুরাদপুর এবং মুরাদপুর থেকে বিবিরহাটে ওয়ার্ড কার্যালয়ে যাওয়ার সময়ও দুই দফায় পাঁচ টাকার ভাড়া ১০ টাকা করে নিয়েছে।’

দুপুর পৌনে ২টায় লালখান বাজার এলাকায় অবস্থানকালে বিভিন্ন গণপরিবহন থেকে নামা  যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রতিটি গাড়িতেই ৬০ শতাংশ বর্ধিত ভাড়ার অতিরিক্ত ৪০ থেকে ৬০ শতাংশ বেশি ভাড়া আদায় করা হয়েছে।

দুপুর ২টার দিকে টাইগারপাস চার রাস্তার মোড়ে দেখা যায়, মেট্রো প্রভাতী (চট্ট মেট্রো ১১-১২৭৮) নামে স্পেশাল কাউন্টার সার্ভিসের একটি যাত্রীবাহী গাড়ি ট্রাফিক পুলিশ আটক করে পুলিশ বক্সের সামনে নিয়ে আসে। ওই গাড়িতে উঠে দেখা যায় সামাজিক দূরত্বের কোনো বালাই নেই, একজন আরেকজনের পাশাপাশি সিটে বসে আছে। এ সময় ট্রাফিক সার্জেন্ট কৌশিক চাকমা বলেন, ‘এই গণপরিবহনকে অতিরিক্ত যাত্রী বহনের কারণে তিন হাজার টাকা জরিমানা করেছি।’ বিভিন্ন গাড়িতে দ্বিগুণের বেশি ভাড়া আদায় প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সকালেও ৬ নম্বর রুটে একটি গাড়িতে অতিরিক্ত যাত্রী বহনের কারণে তিন হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।’

মেট্রো প্রভাতীর ওই গাড়ির চালক রেজাউল করিম বলেন, ‘আমাদের গাড়ি সিট ক্যাপাসিটি। আমরা এখনো কোনো কাগজ (সরকারি নির্দেশনা) পাইনি।’

এ সময় বাসচালক ও হেল্পারদের উদ্দেশে এক ট্রাফিক পুলিশ বলেন, ‘আপনারা অতিরিক্ত যাত্রী কেন নিচ্ছেন? ভাড়া বেশি নিচ্ছেন না কম নিচ্ছেন, তা আমরা দেখছি না। অতিরিক্ত যাত্রী নিলে মামলা ও জরিমানা করা হবে।’

আগ্রাবাদ বাদামতলী এলাকায়ও একই অবস্থা দেখা যায়। অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের বিষয়ে জানতে চাইলে সেখানে দায়িত্বরত ট্রাফিক সার্জেন্ট মো. আজিজ বলেন, ‘টেম্পোতে চার টাকার ভাড়া ১০ টাকা নিচ্ছে। যাত্রীদের কাছ থেকে এই অভিযোগ পাওয়ার পর ওই গাড়িকে জরিমানা করেছি।’

চট্টগ্রাম জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের অতিরিক্ত মহাসচিব গোলাম রসুল বাবুল গতকাল বিকেলে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ধারণক্ষমতার ৫০ শতাংশের বেশি যাত্রী পরিবহন করা যাবে না। এই নির্দেশনা আমরা প্রত্যেক গণপরিবহন (বাস, মিনিবাস) মালিক-শ্রমিকদের জানিয়েছি। ভাড়া ৬০ শতাংশের বেশি কেউ নিতে পারবে না।’ অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এ রকম কিছু দেখলে আপনারা (প্রতিবেদক) নিউজের মাধ্যমে তুলে ধরেন।’

বিআরটিএ চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়ের উপপরিচালক মো. শহীদুল্লাহ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন করছে কি না এবং অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়া হচ্ছে কি না এসব তদারকি করছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। ভ্রাম্যমাণ আদালতে মামলা ও জরিমানা করা হচ্ছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা