kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৬ মাঘ ১৪২৮। ২০ জানুয়ারি ২০২২। ১৬ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

সুনামগঞ্জের শাল্লায় সাম্প্রদায়িক হামলার নিন্দা, নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি

অনলাইন ডেস্ক   

১৮ মার্চ, ২০২১ ২১:৩৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সুনামগঞ্জের শাল্লায় সাম্প্রদায়িক হামলার নিন্দা, নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি

সুনামগঞ্জ জেলার শাল্লা উপজেলার নোয়াগাও গ্রামে ধর্মান্ধদের হামলার নিন্দা ও ক্ষতিগ্রস্থদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবিতে এক যুক্ত বিবৃতি দেয়া হয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ফেসবুকে পোস্ট দেওয়াকে কেন্দ্র করে গত ১৭ মার্চ, সুনামগঞ্জ জেলার শাল্লা উপজেলার নোয়াগাও গ্রামে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মন্দির ও প্রায় শতাধিক বাড়ীতে লুটপাট, হামলা, ভাংচুর-সহ মধ্যযুগীয় তান্ডবে আমরা গভীর উদ্বিগ্ন ও মর্মাহত। ব্যক্তি বিশেষের হীনস্বার্থ হাসিল করতে গিয়ে নীরিহ সংখ্যালঘুদের শতাধিক বাড়ি ঘরে জঘন্য হামলা ও লুটপাটের নিন্দা জানানোর ভাষা আমরা হারিয়ে ফেলেছি। ইতোপূর্বে এই ধরণের ঘটনা দেশের বিভিন্ন জেলায় ঘটানো হয়েছে। আমাদের প্রশ্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ অনুয়ায়ী প্রশাসনের নজরে থাকার পরেও কি করে গ্রামের মসজিদের মাইক ব্যবহার করে উগ্রবাদী ধর্মান্ধ অপশক্তিরা একত্রিত হলো এবং এই বর্বরোচিত মধ্যযুগীয় তান্ডব চালালো। ধর্মের নাম ব্যবহার করে বিগত সময়ে ঘটে যাওয়া সাম্প্রদায়িক নিপীড়নের ঘটনার উপযুক্ত প্রতিকার না হওয়ায় সময়ের ব্যবধানে ধর্মান্ধ অপশক্তির ষড়যন্ত্র ও নিপীড়ন বেড়েই চলেছে। সেই বিবেচনা থেকে সুনামগঞ্জের ঘটনাটি খুবই পরিকল্পিত ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত বলে আমাদের কাছে প্রতিয়মান হয়েছে। আমরা মনে করি এই উগ্রবাদীদের এই তান্ডব দেশের অগ্রযাত্রা, স্থিতিশীলতা ও মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অংশ বিশেষ।’

হামলা লুটপাট ও ভাংচুরের সাথে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার ও বিচারের দাবি জানিয়ে বিবৃতিতে বলা হয়, ‘সরকার ও প্রশাসনের কাছে আমাদের আহ্বান সাম্প্রদায়িক নিপীড়নের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা, ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত, দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ, আক্রান্ত এলাকায় সার্বক্ষনিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার ও ক্ষতিগ্রস্তদের উপযুক্ত ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা করুন।’

বিবৃতিতে স্বাক্ষরদাতাদের মধ্যে রয়েছেন- পঙ্কজ ভট্টাচার্য, সভাপতি, ঐক্য ন্যাপ; ডা. সারওয়ার আলী, ট্রাষ্ট্রি মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর; রামেন্দু মজুমদার, নাট্য ব্যক্তিত্ব; ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, ইতিহাসবিদ; রোকেয়া কবির- মুক্তিযোদ্ধা ও নারী নেত্রী; খুশী কবির, প্রেসিডিয়াম সদস্য, সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন; ড. নূর মোহাম্মদ তালুকদার, সদস্য সচিব সাম্প্রদায়িকতা, জঙ্গিবাদ বিরোধী মঞ্চ; অধ্যাপক এম এম আকাশ, চেয়াম্যান অর্থনীতি বিভাগ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস, শিক্ষক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; কাজল দেবনাথ, প্রেসিডিয়াম সদস্য, বাংলাদেশ হিন্দু- বৌদ্ধ- খৃষ্টান ঐক্য পরিষদ; অধ্যক্ষ মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর, সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি; মেজবাহ্ উদ্দিন আহমেদ, সভাপতি, জাতীয় শ্রমিক জোট; সালেহ আহমদে, সাধারণ সম্পাদক, সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন; পারভেজ হাসেম, আইনজীবী, বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট; এফএম শাহীন, সাধারণ সম্পাদক, গৌরব ’৭১; আব্দুল ওয়াহেদ, সভাপতি, জাতীয় গ্রামেন্টস শ্রমিক জোট; ড. সেলু বাসিত, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব; আব্দুর রাজ্জাক, সাধারণ সম্পাদক, ইমারত শ্রমিক ইউনিয়ন; অলক দাসগুপ্ত, সভাপতি, উঠোন সাংস্কৃতিক সংগঠন; এ কে আজাদ, সমন্বয়ক আনন্দন, সাংস্কৃতিক সংগঠন; জীবনান্দ চন্দ জয়ন্ত, সংগঠক, জাগরণ মঞ্চ; গৌতম শীল, সভাপতি, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বিসিএল। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।



সাতদিনের সেরা