kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ বৈশাখ ১৪২৮। ৭ মে ২০২১। ২৪ রমজান ১৪৪২

দুর্নীতি দমন কমিশন

অভিযোগ থেকে অব্যাহতি পাওয়াদের তালিকা চেয়েছেন হাইকোর্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ মার্চ, ২০২১ ১৬:৪৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অভিযোগ থেকে অব্যাহতি পাওয়াদের তালিকা চেয়েছেন হাইকোর্ট

দুদকের সাবেক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ অবসরে যাওয়ার আগের পাঁচ মাসে অনুসন্ধান পর্যায়ে যে কয়েকজনকে অব্যাহতি দিয়েছেন তার তালিকা চেয়েছেন হাইকোর্ট। আগামী ১১ এপ্রিলের মধ্যে সংশ্লিষ্টদের নাম, ঠিকানাসহ তালিকা দাখিল করতে দুদককে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে দুদকে ‘অনুসন্ধান বাণিজ্য’ শিরোনামে পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনের সপক্ষে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট দাখিল করতে প্রতিবেদককে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি মহিউদ্দিন শামীমের হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল মঙ্গলবার এ আদেশ দেন।

 দুদকে ‘অনুসন্ধান বাণিজ্য’ শিরোনামে গত ১৪ মার্চ দৈনিক ইনকিলাব পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন সামনে আসার পর এ আদেশ দেন হাইকোর্ট। পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন নজরে আনেন সংশ্লিষ্ট আদালতে দায়িত্বরত রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক। আদেশের আগে শুনানিতে দুদকের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান ও এ কে এম ফজলুল হক।

প্রতিবেদনে বলা হয়, “বিদায়ের আগে দুর্নীতির বহু রাঘব বোয়ালকে ছেড়ে দেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সাবেক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। তাদের দায়মুক্তি আড়াল করতে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করেন কিছু নিরীহ ও দুর্বল ব্যক্তিকে। সব মিলিয়ে শেষ ৫ মাসে তিনি ২ শতাধিক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে দুর্নীতির অভিযোগ থেকে অব্যাহতি (দায়মুক্তি) দেন। তথ্য নির্ভরযোগ্য সূত্রের। ইকবাল মাহমুদ গত ১০ মার্চ দুদক চেয়ারম্যান পদ থেকে অবসরে যান।

এদিকে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান সাধারণ বীমা করপোরেশনে ১০ বছর ধরে জালিয়াতি এবং ২৬ কোটি টাকা আত্মসাতের যে অভিযোগ উঠেছে, সে বিষয়ে সংস্থাটির অবস্থান কী, তা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। বীমা কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে তা ১১ এপ্রিলের মধ্যে জানাতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি এ বিষয়ে প্রতিবেদককে যাবতীয় তথ্য আদালতে দাখিল করতে বলা হয়েছে। দৈনিক প্রথম আলো পত্রিকায় ‘১০ বছর ধরে জালিয়াতি, ২৬ কোটি টাকা আত্মসাৎ’ শিরোনামে প্রকাশিত প্রতিবেদনটি নজরে আনার পর এ আদেশ দেন হাইকোর্ট।



সাতদিনের সেরা