kalerkantho

শুক্রবার । ১১ আষাঢ় ১৪২৮। ২৫ জুন ২০২১। ১৩ জিলকদ ১৪৪২

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ১৯ গুণীজনকে সম্মাননা দিল বাংলাদেশ প্রতিদিন

অনলাইন ডেস্ক   

১৫ মার্চ, ২০২১ ১৭:৩০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ১৯ গুণীজনকে সম্মাননা দিল বাংলাদেশ প্রতিদিন

১২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে দেশের ১৯ জন গুণী ব্যক্তিত্বকে সম্মাননা জানিয়েছেন দেশের শীর্ষ জাতীয় দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন। রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) জমকালো আয়োজনে গুণীজনদের মধ্যে সম্মাননা পদক, সম্মাননা স্মারক ও চেক দেওয়া হয়।

আজ সোমবার আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম।

এ ছাড়া অনুষ্ঠানে দেশের শীর্ষ শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীর ও ভাইস চেয়ারম্যান সাফিয়াত সোবহান উপস্থিত ছিলেন।
 
অনুষ্ঠানে আসা অতিথিদের অভ্যর্থনা জানান বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপের পরিচালক ও দৈনিক কালের কণ্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন।

গুণীজন সম্মাননা পাওয়া ব্যক্তিরা হলেন- চিত্রশিল্পী মনিরুল ইসলাম, কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন, শিক্ষাবিদ ও ইমেরিটাস অধ্যাপক এ কে আজাদ চৌধুরী, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ও অর্থনীতিবিদ ড. আতিউর রহমান, গীতিকার, সুরকার ও চলচ্চিত্র প্রযোজক গাজী মাজহারুল আনোয়ার, মুক্তিযোদ্ধা কর্নেল (অব.) জাফর ইমাম, অর্থনীতিবিদ ড. এ বি মির্জা আজিজুল ইসলাম, মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমদ, অর্থনীতিবিদ ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ, স্থপতি মুস্তাফা খালীদ পলাশ, কবি হেলাল হাফিজ, জাদুশিল্পী জুয়েল আইচ, রবীন্দ্র সঙ্গীত শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা, খ্যাতিমান চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. সামন্ত লাল সেন, কিংবদন্তী অভিনেত্রী আনোয়ারা বেগম, বাউল সম্রাজ্ঞী কাঙ্গালিনী সুফিয়া, সঙ্গীতশিল্পী সৈয়দ আবদুল হাদী, সাবেক ফুটবলার শেখ মো. আসলাম ও চিত্রনায়িক মৌসুমী।

গুণীজনদের মধ্যে পদক বিতরণের আগে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ প্রতিদিন বাংলাদেশের মানুষের মনে জায়গা করে নিয়েছে। গণমাধ্যম সমাজের দর্পণ, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভ। গণমাধ্যম যখন দায়িত্বশীলতার সঙ্গে কাজ করে তখন রাষ্ট্র এগিয়ে যায়। বাংলাদেশ প্রতিদিন ঠিক সেই কাজটিই করে যাচ্ছে। রাষ্ট্র ও সমাজকে উপকৃত করতে বাংলাদেশ প্রতিদিন শুরু থেকেই কাজ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশ প্রতিদিনের মুন্সিয়ানা হচ্ছে অল্প কথায় অনেকগুলো খবর তারা প্রকাশ করে থাকে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ডিএনসিসি মেয়র বলেন, বাংলাদেশ প্রতিদিনের এক যুগ হয়েছে। আমরা মনে করি যুগ যুগ ধরে বাংলাদেশ প্রতিদিন মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে যাবে। গুণীজনদের সম্মাননা দেওয়া বিরাট ব্যাপার। আমরা তাদের ভুলে যাই। কিন্তু বাংলাদেশ প্রতিদিন তাদের মনে রেখেছে। আমি তাদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি।



সাতদিনের সেরা