kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৯ বৈশাখ ১৪২৮। ২২ এপ্রিল ২০২১। ৯ রমজান ১৪৪২

এক মানিকের বদলে অন্য মানিক গ্রেপ্তার, বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ হাইকোর্টের

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ মার্চ, ২০২১ ১৬:০৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এক মানিকের বদলে অন্য মানিক গ্রেপ্তার, বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ হাইকোর্টের

মাদক মামলায় সাজাপ্রাপ্ত প্রকৃত আসামি ‘মানিক মিয়া’-এর পরিবর্তে মাছ ব্যবসায়ী ‘মানিক হাওলাদার’-কে গ্রেপ্তার করে কারাগারে নেওয়ার অভিযোগের বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। শরীয়তপুরের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটকে তদন্ত করে ৩০ দিনের মধ্যে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলের কাছে প্রতিবেদন দাখিল করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রকৃত আসামি কে তা চিহ্নিত করতে বলা হয়েছে। এই তদন্তে সিরাজগঞ্জের স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল-১ এবং জেল সুপারকে সহযোগিতার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আগামী ১২ এপ্রিল পরবর্তী আদেশের জন্য দিন ধার্য করা হয়েছে।

বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চ সোমবার এ আদেশ দেন। নির্দোষ দাবি করে মানিকের মুক্তির জন্য তার স্ত্রী সালমা বেগমের করা এক আবেদনে এ আদেশ দেন আদালত। অন্তর্বর্তীকালীন নির্দেশনার পাশাপাশি রুল জারি করেছেন আদালত। রুলে মানিক হাওলাদারকে গ্রেপ্তার ও তাকে কারাগারে আটক রাখা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চাওয়া হয়েছে। আদালতে নির্দোষ দাবিকারী মানিক হাওলাদারের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট পার্থ সারথী রায়। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুর্টি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায়।

অ্যাডভোকেট পার্থ সারথী রায় জানান, একটি গাড়িতে ৬৬৮ বোতল ফেনসিডিল রাখার অভিযোগে ২০০৯ সালের ২ জুন সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা থানায় চারজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়। ওই মামলার আসামি মো. মানিক মিয়া, পিতা অজ্ঞাত-কে ২০০৯ সালের ৩ জুন গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ওই বছরই হাইকোর্ট থেকে জামিনে মুক্তি পান মানিক। হাইকোর্টে দাখিল করা জামিন আবেদনে আসামি তার ঠিকানা হিসেবে পিতা নজরুল ইসলাম, মা রেজিয়া বেগম, গ্রাম আলম চাঁন ব্যাপারী কান্দি, ইউনিয়ন সখীপুর, ওয়ার্ড নম্বর-৯ দেখানো হয়। হাইকোর্টে ভুল ঠিকানা দিয়ে আসামি জামিন নিয়ে পালিয়ে যায়।

আইনজীবী আরো জানান, এ মামলায় বিচার শেষে মানিক মিয়াসহ চারজনকে চার বছর করে কারাদণ্ড দিয়ে ২০১৯ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি সিরাজগঞ্জ আদালত রায় দেন। আদালতের নথিতে মানিকের পিতার নাম নজরুল ইসলাম উল্লেখ রয়েছে। এই রায়ের পর শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখীপুর ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের আলম চাঁন ব্যাপারী কান্দি গ্রামের নজরুল ইসলাম ও রেজিয়া বেগমের ছেলে মাছ ব্যবসায়ী মানিক হাওলাদারকে গত বছর ২৮ নভেম্বর ভেদরগঞ্জ থানা পুলিশ গ্রেপ্তার করে। এর পরই মানিক মিয়ার প্রতারণার বিষয়টি সামনে আসে। জানা যায়, প্রকৃত আসামি মানিক মিয়ার পিতার নাম ইব্রাহিম মৃধা, মায়ের নাম লুতফা বেগম। গ্রাম মালতকান্দি। থানা ও ইউনিয়ন সখীপুর, উপজেলা ভেদরগঞ্জ, জেলা শরীয়তপুর। প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, উভয় মানিকের বাড়িই শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখীপুর ইউনিয়নে। তবে গ্রাম ও পিতা-মাতার নাম আলাদা।

এ অবস্থায় মানিক হাওলাদারের মুক্তি ও তাকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেছেন নির্দোষ মানিকের স্ত্রী। এই আবেদনের সঙ্গে দুই মানিকের পরিচয় তুলে ধরে সখীপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান মানিক সরদারের দেওয়া একটি সনদ দাখিল করা হয়। তাতে প্রকৃত আসামির পিতার নাম ইব্রাহিম মৃধা ও নির্দোষ মানিকের পিতার নাম নজরুল ইসলাম উল্লেখ করা হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা