kalerkantho

রবিবার। ৫ বৈশাখ ১৪২৮। ১৮ এপ্রিল ২০২১। ৫ রমজান ১৪৪২

সুপ্রিম কোর্টের রায় বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির অভিযোগ

চট্টগ্রামের ইটভাটা মালিক সমিতির ছয়জনকে আদালত অবমাননা নোটিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২০:৩২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চট্টগ্রামের ইটভাটা মালিক সমিতির ছয়জনকে আদালত অবমাননা নোটিশ

ফাইল ফটো

চট্টগ্রামের সকল অবৈধ ইটভাটা বন্ধে হাইকোর্টের নির্দেশ থাকার পরও ওই আদেশ বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির অভিযোগে চট্টগ্রামের ইটভাটা মালিক সমিতির ছয়জনকে আইনি নোটিশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মনজিল মোরশেদ। মানবাধিকার ও পরিবেশবাদী সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের (এইচআরপিবি) পক্ষে রবিবার এ নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

আবেদনে বলা হয়েছে, হাইকোর্টের রায়ের পর তা প্রত্যাহারের দাবিতে ইট বিক্রি বন্ধ রাখাসহ যেসব কর্মসূচি গ্রহণ করা হচ্ছে তা আদালত অবমাননার শামিল। তাই নোটিশ পাওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ওইসব কর্মসুচি প্রত্যাহার না করলে আদালত অবমাননার আবেদন করা হবে বলে নোটিশে বলা হয়েছে। যাদের প্রতি নোটিশ দেওয়া হয়েছে তারা হলেন- চট্টগ্রাম জেলা ইটভাটা মালিক সমিতির আহ্বায়ক ইসমাইল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সেকান্দর মিয়া, লোহাগড়া ব্রিকফিল্ড মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও আলহাজ ছরওয়ার কম্পানির প্রেসিডেন্ট আলহাজ আবিদ হাসান মানু, পঞ্চিম সাতকানিয়া ইটভাটা মালিক সমিতি প্রেসিডেন্ট শাহ আলম (লেদু চেয়ারম্যান) ও সেক্রেটারি মো. হাসান লিটন কমিশনার।

চট্টগ্রামের সকল অবৈধ ইটভাটা বন্ধ ও উচ্ছেদের জন্য গতবছর ১৪ ডিসেম্বর, চলতি বছরের ৩১ জানুয়ারি ও ২৫ ফেব্রুয়ারি আদেশ দেন হাইকোর্ট। চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালকের প্রতি এ নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আগামী ১৪ মার্চ পরবর্তী আদেশের জন্য দিন ধার্য রয়েছে।

এর মধ্যে প্রথমদফায় গত বছর ১৪ ডিসেম্বর আদেশ দেওয়ার পর হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে ১০১ জন ইটভাটার মালিক ৬টি আপিল দাখিল করেন। এ আবেদনে হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত চাওয়া হয়। কিন্তু আপিল বিভাগ কোনো স্থগিতাদেশ দেননি। এরপর চলতি বছরের ৩১ জানুয়ারি ও ২৫ ফেব্রুয়ারি আরো দুই দফা আদেশ দেন হাইকোর্ট। প্রশাসন যাতে কোনো পদক্ষেপ নিতে না পারে সেজন্য ইটভাটা মালিক সমিতি বিভিন্নভাবে চাপ সৃষ্টি করছে এবং আদেশ বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে বিভিন্ন কর্মসুচি গ্রহন করছে। যা আদালত অবমাননার শামিল এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা