kalerkantho

বুধবার । ৮ বৈশাখ ১৪২৮। ২১ এপ্রিল ২০২১। ৮ রমজান ১৪৪২

জুলুমতন্ত্রের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হলে বিজয় সম্ভব : এবি পার্টি

অনলাইন ডেস্ক   

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৮:১৫ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



জুলুমতন্ত্রের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হলে বিজয় সম্ভব : এবি পার্টি

এবি পার্টির আহ্বায়ক, সাবেক সচিব ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের প্রাক্তন চেয়ারম্যান এএফএম সোলায়মান চৌধুরী বলেছেন, ভোটের অধিকার হরণ করে পাকিস্তানি খান সেনারা মসনদ রক্ষা করতে পারেনি। বর্তমান জুলুমতন্ত্রেরও একদিন অবসান হবে কিন্তু, সেজন্য সবাইকে একজোট হতে হবে। জুলুমতন্ত্রের বিরুদ্ধে সকল মজলুমরা ঐক্যবদ্ধ হলেই কেবল বিজয় অর্জন সম্ভব। 

আজ শনিবার সকাল ১০টায় কিং অব ফেনী কমিউনিটি সেন্টারে এবি পার্টি ফেনী জেলার এক বিশাল কর্মী সম্মেলন প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

সমাজ সেবক ডা. শামসুদ্দিন ইলিয়াছের সভাপতিত্বে ও প্রকৌশলী শাহ আলম বাদল এবং প্রভাষক ফজলুল হকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এবি পার্টির আহ্বায়ক, সাবেক সচিব এএফএম সোলায়মান চৌধুরী। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন দলের যুগ্ম আহ্বায়ক প্রফেসর ডা. মেজর (অব.) আব্দুল ওহাব মিনার ও সদস্য সচিব মজিবুর রহমান মন্জু।

সোলায়মান চৌধুরি বলেন সন্ত্রাস, দুর্নীতিকে সবাই আমরা জাতীয় সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করছি অথচ প্রশাসনের সদিচ্ছা থাকলে এবং প্রশাসন নিরপেক্ষ হলে এগুলো দূর করা যে সহজ তার প্রমাণ ফেনীর জনপদ। তিনি বলেন, বর্তমান রাজনীতি হলো একে অপরকে উচ্ছেদের রাজনীতি, আমরা এর অবসান চাই। আজ যারা ক্ষমতায় তারা যদি ক্ষমতার বাইরের লোকদের উচ্ছেদ করে তাহলে যেদিন তাদের ক্ষমতা থাকবে না সেদিন ক্ষমতাধররা তাদের নির্মূল করতে সর্বশক্তি নিয়োগ করবে। গত ৫০ বছরে আমরা এই ব্যর্থ রাজনীতি দেখে এসেছি। এবি পার্টি তাই দেশ পুনর্গঠনের নতুন রাজনীতির ডাক দিয়েছে।

বিশেষ অতিথি প্রফেসর ডা. মেজর (অব.) আব্দুল ওহাব মিনার বলেন, একটি কল্যাণ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা এবি পার্টির অভিপ্রায়। স্বাধীনতার ৫০ বছর পরও আমরা কাঙ্খিত লক্ষ্য অর্জন করতে ব্যর্থ হয়েছি, সাধারণ মানুষের অধিকার সংরক্ষণ করতে পারিনি। পালাক্রমে সরকারগুলো মানুষের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলে নিজেরাই দুর্নীতিতে লিপ্ত হয়ে নিজেদের শোষক হিসাবে  প্রতিষ্ঠিত করেছেন। সাধারণ মানুষ হয়েছে বঞ্চিত ও প্রতারিত। তিনি বলেন, দেশ মেরামতের জন্য আমাদের কঠিন প্রস্তুতি নিতে হবে, নিজেদেরকে যোগ্য হিসাবে তৈরি করতে হবে- আমাদের হতে হবে সাধারণ মানুষের সেবক। দেশ গড়ার প্রত্যয়ে, স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষার শপথ নিয়ে সাধারণ মানুষকে সাথে নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। টেকনাফ থেকে তেতুলিয়া, জাফলং থেকে পাথরঘাটা পর্যন্ত সারাদেশের মানুষ জেগে উঠেছে। 

এবি পার্টির সদস্য সচিব মজিবুর রহমান মন্জু বলেন, মুজিব এবং জিয়ার অধিকার আদায় ও দেশ গড়ার রাজনীতির ইতিবাচক দিকগুলো এবি পার্টি অনুসরণ করবে কিন্তু রাতের ভোট এবং ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচন জাতীয় দেশ ধ্বংসের নীতিগুলো ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করবে। তিনি বলেন, বর্তমান ক্ষমতাসীনরা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের নামে কারাগারগুলোকে ডিজিটাল মৃত্যুকূপে পরিণত করেছে। লেখক মুসতাক হত্যার প্রতিবাদে ১৩টি দেশের রাষ্ট্রদূতের নিন্দা জ্ঞাপনকে স্বাগত জানিয়ে তিনি বলেন উন্নয়ন সহযোগী ও বন্ধুদের উচিত গণতন্ত্র এবং অর্থপাচারের ব্যপারেও উদ্বেগ প্রকাশ করা। 

অনুষ্ঠানে অতিথি হিসাবে আরো বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় যুগ্ম সদস্য সচিব ব্যারিস্টার জুবায়ের আহমদ ভূঁইয়া ও বি এম নাজমুল হক, কেন্দ্রীয় সহকারী সদস্য সচিব এবিএম খালিদ হাসান, এম আমজাদ খান, শাহ আব্দুর রহমান ও মো ইব্রাহিম খান সাদাত। উপস্থিত ছিলেন নোয়াখালী জেলা সমন্বয়ক নূর হোসাইন, লক্ষীপুর জেলা সমন্বয়ক চৌধুরী সাকিব।

শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর অব. মীর হোসেন, অধ্যক্ষ জিলানী মজুমদার, জাফর আহমেদ, মামুন আনসারী, ওয়াসিউর রহমান খসরু, জাহানারা আক্তার মনি, প্রভাষক মোজাম্মেল হোসেন, নজরুল ইসলাম কামরুল প্রমূখ। 

সম্মেলনে সর্বসম্মতিক্রমে ডা. শামসুদ্দিন মো. ইলিয়াছকে আহ্বায়ক এবং প্রকৌশলী শাহ আলম বাদলকে সদস্য সচিব করে ২০১ সদস্য বিশিষ্ট ফেনী জেলা আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা