kalerkantho

বুধবার । ৮ বৈশাখ ১৪২৮। ২১ এপ্রিল ২০২১। ৮ রমজান ১৪৪২

শ ম রেজাউল করিম বললেন

‘ক্ষমতায় থাকলে সব সময় ভালো আছি এ কথা ভাবার কোনো কারণ নেই’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২০:১০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘ক্ষমতায় থাকলে সব সময় ভালো আছি এ কথা ভাবার কোনো কারণ নেই’

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, “দেশী-বিদেশী ষড়যন্ত্রের ব্যাপারে আমাদেরকে সতর্ক থাকতে হবে, যাতে কোনো অপচেষ্টাকারী অপপ্রচার দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করতে না পারে। ক্ষমতায় থাকলে সবসময় ভালো আছি এ কথা ভাবার কোনো কারণ নেই। শত্রুর ষড়যন্ত্র ভেতরে থেকেও আসে। দেশে বঙ্গবন্ধু হত্যা ও যুদ্ধাপরাধের বিচার হয়েছে। এ জন্য আমরা আনন্দিত। এর পাশাপাশি মনে রাখতে হবে ৭৫’র ১৫ আগস্টও আওয়ামী লীগ রাষ্ট্র ক্ষমতায় ছিল। দেশের ভেতর ও বাইরে তখনও ষড়যন্ত্র ছিলো, এখনো আছে। ইতিহাসের মীরজাফরদের তালিকায় খন্দকার মোশতাক, জিয়াউর রহমানসহ অনেকেই আছেন। তাদের স্বরূপ বুঝতে হবে। ইস্পাত কঠিন আদর্শিক দৃঢ়তা দিয়ে সকল ষড়যন্ত্রের ব্যুহ ভেদ করতে হবে।”

আজ বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর ফার্মগেটে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ মিলনায়তনে শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদের ৩৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আয়োজিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মোঃ রকিবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি সংযুক্ত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য প্রদান করেন শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদের মহাসচিব ও সংসদ সদস্য মাহমুদ উস্ সামাদ চৌধুরী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী বিপ্লব বড়ুয়া, সংসদ সদস্য মোঃ নজরুল ইসলাম বাবু ও সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আবেদীন খান।

তরুণ প্রজন্মের উদ্দেশে মন্ত্রী বলেন, “শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদ একটি পরিশিলীত, পরিমার্জিত ও আদর্শিক সংগঠন হিসেবে নতুন প্রজন্মের শিশু-কিশোরদের বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্দীপ্ত করে তুলছে। মনোজাগতিক পরিবর্তনের মাধ্যমে সাংগঠনিকভাবে নতুন প্রজন্মকে প্রস্তুত করার ক্ষেত্রে এ সংগঠনের ভূমিকা অসাধারণ। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের বিস্তার ঘটাতে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ গড়তে ও আমাদের ভবিষ্যত নেতৃত্ব গড়ে তুলতে অনন্য ভূমিকা রাখছে এ সংগঠন। মনে রাখতে হবে আমাদের আশা-আকাঙ্ক্ষা আর ভরসাস্থল একজনই। তিনি বঙ্গবন্ধুর রক্ত ও আদর্শের উত্তরসূরি শেখ হাসিনা। তাঁর নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করতে হবে।”

১৯৭৫ পরবর্তী ইতিহাস তুলে ধরে শ ম রেজাউল করিম বলেন, “জিয়াউর রহমান অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করেছেন। বঙ্গবন্ধুর খুনিদের উৎসাহিত করেছিলেন। বঙ্গবন্ধুর ১২জন খুনিকে ১২টি রাষ্ট্রে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন। বঙ্গবন্ধুর খুনিদের রক্ষার জন্য যে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ হয়েছিল জিয়াউর রহমানের স্বাক্ষরে তা আইনে পরিণত হয়েছে যার কারণে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচারের পথ রুদ্ধ হয়ে গিয়েছিল। এভাবে জিয়াউর রহমান বাংলাদেশকে পেছনে নিয়ে যাওয়ার সকল ব্যবস্থা করেছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশকে ধ্বংস করেছিলেন। তিনি সংবিধানের ৩৮ অনুচ্ছেদকে কর্তন করে ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক সংগঠন করার সুযোগ করে দিয়েছিলেন। মুক্তিযুদ্ধবিরোধীদের রাজনীতিতে নিয়ে এসেছেন। এভাবে মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশকে কার্যত পূর্ব পাকিস্তানে পরিণত করা হয়েছে।  মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষ রাষ্ট্রগুলোকে শত্রু বানিয়ে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী রাষ্ট্রগুলোকে মিত্র বানানো হয়েছে।”

“বর্তমানে বাংলাদেশ দুইভাগে বিভক্ত। একটি বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার একটি পক্ষ। অপরটি মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী আওয়ামী লীগের বিরোধী পক্ষ।” মন্তব্য করেন শ ম রেজাউল করিম।

এসময় বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা আর শেখ হাসিনার নেতৃত্বের জায়গায় থাকতে নতুন প্রজন্মকে অহ্বানও জানান মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা