kalerkantho

রবিবার। ৫ বৈশাখ ১৪২৮। ১৮ এপ্রিল ২০২১। ৫ রমজান ১৪৪২

আনসার বাহিনীকে প্রধানমন্ত্রী

টিকা গ্রহণে দেশবাসীকে উদ্বুদ্ধ করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর ও কালিয়াকৈর প্রতিনিধি   

১২ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০২:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



টিকা গ্রহণে দেশবাসীকে উদ্বুদ্ধ করুন

করোনাভাইরাসের টিকা গ্রহণে দেশবাসীকে উদ্বুদ্ধ করতে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদকের সঙ্গে যেন দেশের যুবসমাজ সম্পৃক্ত হতে না পারে সেদিকেও আনসার বাহিনীকে বিশেষভাবে দৃষ্টি দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে গাজীপুরের সফিপুর আনসার ও ভিডিপি একাডেমিতে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর ৪১তম জাতীয় সমাবেশে প্রধান অতিথির ভাষণে প্রধানমন্ত্রী এই আহ্বান জানান। তিনি গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি সংযুক্ত হন। অনুষ্ঠান থেকে মনোজ্ঞ কুচকাওয়াজ প্রদর্শনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে রাষ্ট্রীয় সালাম জানানো হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘টিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়েছে এবং আনসার-ভিডিপির প্রত্যেক সদস্যকে অনুরোধ করব, প্রতিটি মানুষ যাতে এই টিকা নেয় সেটা নিশ্চিত করতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘অনেকে ভয় পায়, সুঁই ফোটাতেও ভয় পায়; কাজেই তারা যেন রোগাক্রান্ত না হয় সে ব্যাপারে আমরা পদক্ষেপটা নিয়েছি এবং সেখানে আপনাদের সহযোগিতা চাই।’

আনসার ও ভিডিপি সদস্যদের উদ্দেশে শেখ হাসিনা আরো বলেন, ‘আপনারাও গ্রামের মানুষকে উদ্বুদ্ধ করবেন, যেন এই মহামারি, যেটা আজকে বিশ্বব্যাপী দেখা গেছে, তার হাত থেকে বাংলাদেশের মানুষ মুক্তি পেতে পারে। আপনারা সুরক্ষিত থাকেন এবং টিকা নিয়ে নিজেদের আরো সুরক্ষিত করেন এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলেন, সেটাও আমরা চাই।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দীন বক্তব্য দেন। স্বাগত বক্তব্য দেন আনসার ও ভিডিপির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মিজানুর রহমান শামীম।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনা মোকাবেলায় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে এ পর্যন্ত আনসার বাহিনীর মোট ১৯ জন সদস্য মৃত্যুবরণ করেছেন। তিনি তাঁদের আত্মার মাগফিরাত ও শান্তি কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর

পক্ষে ১৪০ জন আনসার ও ভিডিপি সদস্যকে সাহসিকতা ও বিশেষ কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের জন্য ‘সেবা’ ও ‘সাহসিকতা’ পদক প্রদান করা হয়।

সরকারের জিরো টলারেন্স নীতির পুনরুল্লেখ করে সরকারপ্রধান বলেন, ‘মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদে যেন আমাদের দেশের যুবসমাজ সম্পৃক্ত না হয় এ ব্যাপারে বিশেষ ভূমিকা আপনারা রেখে যাচ্ছেন, এটা অব্যাহত রাখা প্রয়োজন। এই বাহিনী দক্ষ মানবসম্পদ তৈরিতে অনন্য ভূমিকা পালন করছে। মৌলিক প্রশিক্ষণ ছাড়াও বিভিন্ন ধরনের কারিগরি ও পেশাভিত্তিক প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে দেশের যুবসমাজের কর্মসংস্থান তৈরিতে সার্বক্ষণিক কাজ করছে।’ বিশেষ করে জাতীয় অর্থনীতিতে নারীদের অংশগ্রহণ এবং নারীর ক্ষমতায়নে এই বাহিনীর অবদান অনস্বীকার্য।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার প্রতিষ্ঠিত ‘আনসার-ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংক’ দেশব্যাপী ২৫৯টি শাখার মাধ্যমে সদস্যদের মধ্যে ক্ষুদ্র ও মাঝারি ঋণ প্রদান করে জাতীয় অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। করোনা মোকাবেলায় বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে স্বল্প সুদে তহবিল সংগ্রহ করে বাহিনীর সদস্যদের মাঝে কৃষি ও ক্ষুদ্রঋণ বিতরণ করার জন্য এরই মধ্যে ৫০০ কোটি টাকা এই ব্যাংককে দেওয়া হয়েছে। এখান থেকে ৫ শতাংশ সুদে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ নেওয়ার সুযোগ রয়েছে।

আনসার ও ভিডিপির সদস্যরা বিভিন্ন দুর্যোগে মানুষের পাশে দাঁড়ান উল্লেখ করে ২০১৩, ১৪ ও ১৫ সালে বিএনপি-জামায়াতের আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে হত্যার অগ্নিসন্ত্রাসের সময়ও তাদের বলিষ্ঠ ভূমিকার প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী।

আনসার বাহিনীর উন্নয়নে তাঁর সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আর্থিকভাবে অসচ্ছল কিন্তু সরকারি দায়িত্ব পালনে দৃষ্টান্ত স্থাপনকারী বিবেচনায় দেশের প্রতিটি রেঞ্জে একজন ভিডিপি সদস্যের বাড়ি বানিয়ে দেওয়ার কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে একই বিবেচনায় প্রতি জেলায় ভিডিপি সদস্যকে বাড়ি নির্মাণ করে দেওয়া হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা