kalerkantho

শুক্রবার । ৩ বৈশাখ ১৪২৮। ১৬ এপ্রিল ২০২১। ৩ রমজান ১৪৪২

আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে হত্যায় গভীর উদ্বেগ মহিলা পরিষদের

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৮:১৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে হত্যায় গভীর উদ্বেগ মহিলা পরিষদের

বগুড়া জেলার সোনাতলা উপজেলার জোড়গাছা ইউনিয়নের মধ্য দীঘলকান্দি গ্রামে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধুকে হত্যার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘০৮.০২.২০২১ তারিখ বিভিন্ন দৈনিক সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে জানা যায় যে- বগুড়া জেলার সোনাতলা উপজেলার জোড়গাছা ইউনিয়নের মধ্য দীঘলকান্দি গ্রামে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধুকে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ মধ্য দীঘলকান্দি গ্রামের ইব্রাহিম হোসেনের মেয়ে ও একই গ্রামের রঞ্জু মিয়ার স্ত্রী। ইব্রাহিম ও তার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে প্রতিবেশি আবদুল মান্নানের জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। ০৮.০২.২০২১ তারিখ সোমবার দুপুরে ইব্রাহিম ও তার লোকজন বাড়ির পাশে বিরোধপূর্ণ জমিতে কাজ করছিলেন। এ সময় প্রতিপক্ষ আবদুল মান্নানের নেতৃত্বে নান্নু আকন্দ, তার স্ত্রী মাইমুন বেগম, আব্দুল হান্নান, আবদুল গফুর, বিপুল মানিক, ভানু বেগম, ওবায়দুল, রেবেকা বেগম এসে কাজে বাধা দিয়ে এক পর্যায়ে তারা ইব্রাহিম ও তার পরিবারের সদস্যদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় মারপিট ও পেটে লাথির আঘাতে গৃহবধূ, তার বাবা ইব্রাহিম, আবদুল কাদের, জরিনা বিবি ও রোজিনা বেগম আহত হন। গুরুতর আহত অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয় ‘

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে মারধর করে হত্যার এ বর্বর ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করে ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনী ব্যবস্থাগ্রহণসহ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছে।

একইসঙ্গে নির্যাতনের শিকার গৃহবধুর পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের দাবি করছে সংগঠনটি।

এ ধরনের নৃশংস, বর্বর ঘটনার পুনরাবৃত্তিরোধে আশু কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ও মন্ত্রণালয়ের নিকট জোর দাবি জানাচ্ছে। সেইসাথে এই ধরণের অমানবিক ঘটনাসহ নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে সকল সামাজিক শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা