kalerkantho

শুক্রবার । ১০ বৈশাখ ১৪২৮। ২৩ এপ্রিল ২০২১। ১০ রমজান ১৪৪২

সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের টাকা আত্মসাতের মামলা

দুদকের উপপরিচালকসহ চারজনকে হাইকোর্টে তলব

দুদকের পিক অ্যান্ড চুজ নীতি গ্রাহ্য করা হবে না-হাইকোর্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৫:২৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দুদকের উপপরিচালকসহ চারজনকে হাইকোর্টে তলব

এক দুর্নীতি মামলায় সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের তিন কর্মকর্তাকে আসামি না করায় দুদকের খুলনা অঞ্চলের উপপরিচালক মো. নাজমুল হাসানসহ চারজনকে তলব করেছেন হাইকোর্ট। পাশাপাশি হাইকোর্ট ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। আদালত বলেছেন, দুদকের পিক অ্যান্ড চুজ নীতি গ্রাহ্য করা হবে না। আদালত বলেন, এ মামলা দেখে প্রতীয়মান হচ্ছে উনাদের ইচ্ছা হলো কাউকে আসামি করলো, ইচ্ছে হলো কাউকে আসামি করলো না।

বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি মহি উদ্দিন শামীমের হাইকোর্ট বেঞ্চ মঙ্গলবার এ আদেশ দেন। সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের ২১টি খেয়াঘাট ইজারাবাবদ আদায় করা পৌণে ১৪ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগের মামলায় সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের তিন কর্মকর্তাকে আসামি না করায় হাইকোর্ট এ ক্ষোভ প্রকাশ করেন ও তলবের আদেশ দেন। মামলার আসামি জেলা পরিষদের খলিল ও নাজমুলের জামিন আবেদনের ওপর শুনানিকালে এ আদেশ দেন। আসামিপক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট মো. ওজি উল্লাহ। দুর্নীতি দমন কমিশনের(দুদক) পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান।

অন্য যে তিনজনকে তলব করা হয়েছে তারা হলেন- সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও সচিব। তাদেরকে ১৪ ফেব্রুয়ারি আদালতে হাজির হয়ে উর্দ্ধতনদের বাদ দিয়ে অধস্তনদের বিরুদ্ধে মামলা করার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে। এছাড়া জামিন আবেদনকারী দু’জনকে ঐ দিন আদালতে হাজির থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

২০০৮ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ১০ বছরে সাতক্ষীরা জেলার ২১টি খেয়াঘাট ইজারার ১৩ লাখ ৭৪ হাজার ৮২০ টাকা সরকারি কোষাগারে জমা না দিয়ে আত্মসাতের অভিযোগে সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের প্রধান সহকারি খলিলুর রহমান ও নিম্নমান সহকারি এসএম নাজমুল হোসেন, আশাশুনি উপজেলার শ্রীউলা ইউপি চেয়ারম্যান আবু হেনা শাকিলসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে গত ২৭ জানুয়ারি মামলা করে দুদক।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা