kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৯ ফাল্গুন ১৪২৭। ৪ মার্চ ২০২১। ১৯ রজব ১৪৪২

দনিয়া পাঠাগারে 'জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস' উদযাপন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৬:৩১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দনিয়া পাঠাগারে 'জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস' উদযাপন

গতকাল ৫ ফেব্রুয়ারি, শুক্রবার সকালে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দিপনার মাধ্যমে দনিয়া পাঠাগারের সাধারণ সদস্য, পাঠকদের অংশগ্রহণে 'জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস' উদযাপন করা হয়েছে। দিনের শুরুতে শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয়। শোভাযাত্রাটি পাঠাগার প্রাঙ্গণ থেকে শুরু হয়ে দনিয়া এলাকার প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবার পাঠাগার প্রাঙ্গণে এসে শেষ হয়।

আয়োজনে দ্বিতীয় পর্যায়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সম্মানিত সাধারণ সম্পাদক আবৃত্তি শিল্পী হাসান আরিফ। দনিয়া পাঠাগারের সভাপতি মো. শাহনেওয়াজের সভাপতিত্বে অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন দনিয়া সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি আবু আজাদ, দনিয়া পাঠাগারের সহ-সভাপতি হাসান মো. জাহাঙ্গীর, শিশু সংগঠক ইকবাল হাফিজ, সাংবাদিক আলিমুজ্জামান। স্বাগত বক্তব্য রাখেন গ্রন্থাগার দিবসের আহবায়ক অ্যাডভোকেট ওবাইদুল মিলন। 'বই পড়ে কি পাই' শীর্ষক প্রবন্ধ পাঠ করেন ইরফান শেখ।

বক্তারা এই ডিজিটাল সময়েও বইয়ের গুরুত্ব কোন অংশে কমে যায়নি বলে অভিমত ব্যক্ত করেন। তারা বলেন, প্রত্যেক মানুষের মনন বিকাশে বইয়ের কোন বিকল্প নেই। তাই তারা শিক্ষার জন্য নির্ধারিত বইসমূহের পাশাপাশি সৃজনশীল বই পড়ার প্রতি আরো মনোযোগী হতে শিক্ষার্থী, শিক্ষক, অভিভাবকসহ সকলের প্রতি আহ্বান জানান। প্রধান অতিথির বক্তব্যে আবৃত্তি শিল্পী হাসান আরিফ পাঠাগারের ইতিহাস বিকৃতি, দেশের সংস্কৃতির সংঘাতপূর্ণ বইসমূহের বিষয়ে সতর্ক থাকতে পরামর্শ দেন।

অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, নাটক 'নিশ্বাস' প্রদর্শনী এবং পাঠাগার বিভিন্ন পর্যায়ের সদস্য, শুভানুধ্যায়ীদের নিয়ে এক পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

উল্লেখ্য যে, 'জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস' উপলক্ষে ঢাকার দশটি পাঠাগার - গ্রন্থবিতান (লালবাগ), সিমান্ত গ্রন্থাগার (গেন্ডারিয়া), শহীদ বাকী পাঠাগার (খিলগাঁও), দনিয়া পাঠাগার (দনিয়া), বুকল্যান্ড লাইব্রেরি (বসুন্ধরা), অনির্বাণ পাঠাগার (পলাশপুর, দনিয়া), তাহমিনা ইকবাল পাঠাগার (বউনিয়া), সৃষ্টি পাঠোদ্যান (রূপনগর), শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতি পাঠাগার (নাখালপাড়া), শহীদ রুমি স্মৃতি পাঠাগার (কড়াইল) স্ব স্ব উদ্যোগে আলোচনা ও বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার আয়োজন করে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা